তথ্যপ্রযুক্তি খাতে রপ্তানি আয়ের প্রায় চার ভাগের একভাগই আসছে ফ্রিল্যান্স ও আউটসোর্সিং দিয়ে

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে রপ্তানি আয়ের প্রায় চার ভাগের একভাগই আসছে ফ্রিল্যান্স ও আউটসোর্সিং পেশাজীবীদের হাত দিয়ে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সম্ভাবনাময় এই খাতে দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য অভাব রয়েছে প্রশিক্ষন কেন্দ্রের, একই সাথে প্রয়োজন দ্রুত গতির ইন্টারনেট। এছাড়া এই পেশায় নিয়োজিতদের উদ্যোক্তায় পরিনত হবার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তি খাত থেকে দেশের রপ্তানী আয় প্রায় তিন হাজার তিনশো কোটি টাকা। এরমধ্যে প্রায় আটশ কোটি টাকা আয় করছে ফ্রিল্যান্স-আউটসোর্সিং পেশাজীবীরা। সরকারী তথ্যানুযায়ী বর্তমানে সাত লাখ তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর পেশাজীবীর মধ্যে ফ্রিল্যান্স ও আউটসোর্সিং পেশায় আছেন প্রায় সাড়ে সাত লাখ মানুষ, যাদের ৬৫ শতাংশের বয়সই ত্রিশের নিচে।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন মৌলিক কিছু বিষয়ের দিকে নজর দিলে এই খাত থেকে রপ্তানী আয় বাড়তে পারে কয়েকগুন।

বিভ্রান্তি আছে অনলাইন পেশায় টাকা উত্তোলনের জন্য জনপ্রিয় সংস্থা পে-পালের বাংলাদেশে কোন কর্মকান্ড না থাকা নিয়ে। আউটসোর্সার ও ফ্রিল্যান্সারদের ধারনা, পে-পাল ছাড়া টাকা আনার পথগুলো জটিল। তবে এই দৃষ্টিভঙ্গী বদলে বিকল্প উপায় বের করার পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

এছাড়া এইখাতের প্রসারে মোবাইল ইন্টারনেটের ওপর নির্ভর না করে তারভিত্তিক দ্রুত গতির ইন্টারনেটের উপর জোর দেয়ার পরামর্শ প্রযুক্তি সংশ্লিষ্টদের।

Leave a Reply