শিশু হত্যার মতো জঘন্য অপরাধ বাড়ছে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা

আর্থ সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন, সামাজিক অবক্ষয় আর পারিবারিক বন্ধন দুর্বল হয়ে যাওয়ায় শিশু হত্যার মতো জঘন্য অপরাধ বাড়ছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। পরিস্থিতির উত্তরণে আইনের কঠোর প্রয়োগ আর পরিবারের বন্ধন দৃঢ় করার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

shisho hottaকার না চাওয়া, নিরাপদে বেড়ে উঠবে শিশু, নির্ভাবনায় কাটাবে সময়। কিন্তু, দিন বদলের সাথে সাথে শিশুরাও হচ্ছে ভয়াবহ নির্মমতার শিকার। রাষ্ট্র, সমাজ সম্পর্কে কিছু বুঝে উঠবার আগেই তাদের প্রাণ দিতে হচ্ছে সামাজিক কিংবা পারিবারিক বিরোধে।

গেল চার বছরে দেশে ১ হাজার ৮৫টি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। আর চলতি বছরের এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে ৪৯

বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ২০১২ সালে ২০৯ জন শিশু হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছে। ২০১৩ সালে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২১৮ জনে। ২০১৪ সালে হত্যাকান্ডের শিকার হয় ৩৬৬ শিশু। ২০১৫ সালে দাঁড়ায় ২৯২ জনে। চলতি বছরের ৩রা মার্চ পর্যন্ত হত্যার শিকার হয়েছে ৪৯ শিশু।

এর মধ্যে সিলেটে শিশু রাজন, খুলনায় রাকিব, সুনামগঞ্জের বাহুবলে একসঙ্গে চার শিশু হত্যার ঘটনা আলোড়ন তোলে সারাদেশে। আর রাজধানীর বনশ্রীতে মায়ের হাতে দুই শিশুর মৃত্যু স্তম্ভিত করেছে দেশবাসীকে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার, আকাশ সংস্কৃতির আগ্রাসন আর পারিবারিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের জন্য এমন অনাকাংখিত ঘটনা ঘটছে।

এই অবস্থার উত্তরণে পরিবার, সমাজ তথা রাষ্ট্রকে অগ্রণী ভূমিকা পালনের পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

সব শিশু হত্যার বিচার দ্রুত শেষ করারও তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

Leave a Reply