কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন রাষ্ট্রপতি, উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী

মহান বিজয় দিবসের কুচকাওয়াজে সমরশক্তির জানান দিল বাংলাদেশ। দেশের নৌবাহিনীতে প্রথমবারের মতো সংযোজিত সাবমেরিনও প্রদর্শন করা হয় এই আয়োজনে। রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন। উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। দুই ঘন্টাব্যাপী মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ আর অ্যারোবেটিক ডিসপ্লে উপভোগ করে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।

বাংলাদেশের জন্মযুদ্ধে বাঙালির বিজয়ের ৪৫ বছর পূর্তিতে জাতীয় প্যারেড ময়দানে কুচকাওয়াজের আয়োজন করা হয়। যোগ দেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার সকাল দশটার দিকে সেখানে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। এর ৫ মিনিট পরেই পৌঁছান রাষ্ট্রপতি। এ’সময় তাকে স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী ও তিন বাহিনীর প্রধানগণ।

খোলা জিপে চড়ে প্রথমেই কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন রাষ্ট্রপতি। পরে অভিবাদন মঞ্চে দাঁড়িয়ে সালাম গ্রহণ করেন তিনি। দীপ্ত সঙ্গীতের তালে একে একে এগিয়ে যায় সম্মিলিত পতাকাবাহী তিনটি দল, বীর মুক্তিযোদ্ধা কন্টিনজেন্ট, সেনা, নৌ এবং বিমানবাহিনীর নিজস্ব কন্টিনজেন্টগুলো।

এরপর বিজিবি, কোস্টগার্ড, পুলিশ, বিএনসিসি এবং অন্যান্য অংশগ্রহণকারী বিভাগগুলোর ইউনিট সালাম জানায় রাষ্ট্রপতিকে। ছিলো মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দলের কুচকাওয়াজও।

বিজয় দিবসের অন্যতম এই আকর্ষণীয় আয়োজনে সামরিক কুচকাওয়াজে প্রতিরক্ষা বাহিনী তাদের সক্ষমতা তুলে ধরে।

প্রদর্শন করা হয় দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় সর্বশেষ সংযোজন হওয়া সাবমেরিনও।

প্রতিবছরের মতো এবারও অন্যতম আকর্ষণ ছিল আকাশ ভেদ করে উড়ে চলা ৪৪টি বিমান ও হেলিকপ্টারের ডিসপ্লে। নানা আঙ্গিকে লাল সবুজের বাংলাদেশকে আকাশের বুকে তুলে ধরেন বৈমানিকরা।

সমরশক্তির পাশাপাশি সবগুলো মন্ত্রণালয়ের কর্মকান্ডও প্রদর্শন করা হয় কুচকাওয়াজে।

Leave a Reply