বিদেশ যেতে ৯০ শতাংশ পুরুষ কর্মী দুর্নীতির শিকার হয় বলে জানিয়েছে টিআইবি

বিদেশ যেতে দেশের ৯০ শতাংশ পুরুষ কর্মী দুর্নীতির শিকার হয় বলে জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ- টিআইবি। পাসপোর্টের ক্ষেত্রে পুলিশের ছাড়পত্রের বিধান তুলে দিলে দুর্নীতি কিছুটা কমবে বলেও মনে করে টিআইবি। আর শ্রমখাতে ২০১৬ সালে ৫ হাজার কোটিরও বেশি টাকা পাচার হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে টিআইবি’র প্রতিবেদনে।

আশি লাখেরও বেশি বাংলাদেশী শ্রমিক বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত। তাদের ঘামে শ্রমে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় দেড় হাজার কোটি ডলার।

যাদের কারণে সচল থাকে দেশের অর্থনীতির চাকা, অথচ বিদেশ যেতে পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হয় তাদেরই। ধানমন্ডিতে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবি’র কার্যালয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে উঠে আসে বিদেশে কাজ করা শ্রমিকদের নানা বঞ্চনার কথা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৬ সালে সৌদি আরবে যাওয়ার জন্য প্রতিটি ভিসার জন্য খরচ হতো এক লাখ ২০ হাজার টাকা। তবে, বিদেশগামীদের কাছ থেকে নেয়া হয় অন্তত পাঁচ লাখ টাকা করে। এভাবে ভিসার প্রকৃত মূল্যের চেয়ে অনেক বেশি টাকায় বিদেশ যাচ্ছেন শ্রমিকরা।

নারী শ্রমিকদের জন্য ভিসা ফি না থাকলেও পদে পদে তাদেরকেও দিতে হয় অনেক টাকা। এ’জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর ব্যর্থতাকেই দায়ি করেন টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক।

একটি জাতীয় নীতিমালার মাধ্যমে মধ্যসত্ত্বভোগীদের নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব বলেও মনে করে টিআইবি।

Leave a Reply