দেশের স্বার্থ রক্ষা করেই ভারতের সাথে সবচুক্তি ও সমঝোতা হয়েছে

ভারতের সাথে সবচুক্তি ও সমঝোতা দেশের স্বার্থ রক্ষা করেই হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তার সফর প্রলপ্রসূ হয়েছে। বাংলাদেশের জনগণের মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বেঁচে থাকতে দেশের স্বার্থ বিরোধী কিছু হতে দেবেননা বলেও সাফ জানিয়ে দেন তিনি। গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, তিস্তার পানিও আসবে। এজন্যে সাবইকে ধৈর্য্য ধরার আহবান জানান তিনি। বিএনপির বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা উড়ে এসে জুড়ে বসে তারাই দেশ বিক্রি করে।

চারদিনের ভারত সফর শেষে দেশে ফিরে গণভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তুলে ধরেন এই সফরে ২৪ টি সমঝোতা স্মারক ও ১১ টি চুক্তির বিস্তারিত। বলেন, বন্ধুত্ব ও সম্মান নিয়ে এসেছেন দেশের জন্য।

লিখিত বক্তব্যের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী। উঠে আসে সফরের সফলতা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির কথা। শেখ হাসিনা বলেন, এবারের সফর পুরোপুরি সফল ও মর্যাদার, হতাশার কোনো বিষয় নেই। মোদি সরকার বাংলাদেশকে পুরোপুরি সম্মান দেখিয়েছেন বলে জানান তিনি।

তিস্তা চুক্তির প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী আশাবাদী বলে জানান।  তিস্তার পানি কেউ আটকাতে পারবে না উল্লেখ করে সবাইকে কিছুটা ধৈর্য্য ধরার অঅহবান জানান।

প্রতিরক্ষা সমঝোতা স্মারক নিয়ে বিএনপির সমালোচনার জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী।  বলেন, তিনি বেচে থাকতে দেশের কোনো ক্ষতি হবেনা। যারা দেশ বিক্রির কথা বলে, তারাই স্বাধীনতার বিরোধীতাকারী দেশগুলোর সঙ্গে গোপন চুক্তি করেছিল বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

ভারত সফরের সবচুক্তি ও সমঝোতা স্মারকের বিস্তারিত প্রকাশ করা হবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

Leave a Reply