রাজধানীর কড়াইল বস্তিতে হবে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম আবাসন প্রকল্প

আর বেশি দিন থাকছে না রাজধানীর বিষ ফোড়া খ্যাত ‘কড়াইল বস্তি’। সেই জায়গায়, প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তাদের আবাসনের জন্য বহুতল ভবন নির্মান করতে যাচ্ছে গৃহায়ন ও পূর্ত মন্ত্রণালয়। অবশ্য, তার আগে আদালতের, নির্দেশনা মেনে, বস্তিবাসীদের স্থানান্তর ও পূণর্বাসনের কাজও করা হবে। পিপিপি’র আওতায় দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই আবাসন প্রকল্পের আর্ন্তজাতিক টেন্ডারও আহবান করা হয়েছে এরইমধ্যে।

কড়াইল বস্তি। দেশের বৃহত্তম বস্তি; যার আয়তন ১শ ৭০ একর। ১৯৫৭ সালে, টিএন্ডটি’র নামে, অধিগ্রহন করা জমিটির ১০ একর জায়গায়, স্থাপনা বাদে, পুরোটাই এখন বস্তিবাসীর দখলে। সব সরকারের সময়েই, প্রভাবশালীরা অপ-ব্যবহার করেছে এই বস্তির জমি। দুস্থ, ভূমিহীন, অসহায় বস্তিবাসী’র আবাসনের দোহাই দিয়ে, কখনই উন্নয়নের আওতায় আনা যায়নি এই জমি।

শেষ পর্যন্ত বিষয়টি, আদালতে গড়ায়; নির্দেশনা আসে, আগে বস্তিবাসীদের পূনর্বাসনের। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ি ঢাকা’র ১৫ কিলোমিটারের মধেই, এই বস্তিবাসীদের বিনা পয়সায় ঘর দিয়ে; কড়াইলে, বহুতল এপার্টমেন্ট বানাবে পূর্ত মন্ত্রণারয়।

প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে, এক দিকে যেমন, ভড়াট হতে চলা, গুলশান-বনানী লেক উদ্ধার করা সম্ভব হবে, তেমনি করা যাবে, পরিবেশ বান্ধব ও দৃষ্টি নন্দনও।

সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীর আবাসন সুবিধার পাশাপাশি, বস্তির জমি থেকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের নামে বরাদ্দ ৪৭ একর জমিতে, আইটি পার্ক করার পরিকল্পনা হাতে, আছে সরকারের।

Leave a Reply