রাজবাড়ীর সেমাই কারখানার কারিগররা ব্যস্ত সময় পার করছেন

ঈদকে সামনে রেখে সেমাই তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন রাজবাড়ীর সেমাই কারখানার কারিগররা। প্রতিদিন  গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কাজ। জেলার চাহিদা মিটিয়ে এই সেমাই চলে যায় অন্যান্য জেলায়ও। সেমাই প্রস্তুতে খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুত বিধিমালা মেনে চলার কথা জানান বিসিক কর্মকর্তা।

ঈদের খাদ্য তালিকার অপরিহার্য উপাদান সেমাই। ঈদে সেমাইয়ের বাড়তি কদর। তাই এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন রাজবাড়ীর বিসিক শিল্পনগীর ৩টি সেমাই কারখানার শ্রমিকরা।

কারিগররা জানান, সারা বছর তেমন কাজের চাপ না থাকলেও এখন তারা দারুণ ব্যস্ত। কারণ সামনে ঈদ। তাই  সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে তাদের কাজ।

ময়দা দিয়ে মেশিনের সাহায্যে তৈরি হয় সেমাই। এরপর রোদে শুকিয়ে ভেজে প্যাকেটজাত করা হয়। এই সেমাই পাইকাররা কিনে নিয়ে যান বিভিন্ন জেলায়।

এদিকে সেমাই তৈরির সঙ্গে জড়িতদের খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুত বিধিমালা মেনে চলার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানালেন বিসিকের এই কর্মকর্তা।

জেলার বিসিক শিল্পনগরীতে প্রতিদিন ১৫শ’ কেজি সেমাই উৎপাদন হচ্ছে।

Leave a Reply