নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ ধরতে গিয়ে ১হাজার জেলে আটক

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নদীতে ইলিশ মাছ ধরতে গিয়ে উপকূলের ৮ জেলায় আটক হয়েছেন প্রায় এক হাজার জেলে। মা ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের কারনে আটক জেলেদের ভাগ্যে জুটছে বিভিন্ন মেয়াদের জেল-জরিমানা। জেলেদের দাবি, সরকার ঘোষিত সহায়তা না পাওয়ায় নিরুপায় হয়ে মাছ ধরতে হয়েছে তাদের। এদিকে বরাদ্দ না দিতে পারার অভিযোগ স্বীকার করেছে খোদ সরকারী কর্মকর্তারা।

ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর- ২২ দিন দেশের সব নদনদীতে ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ ও বিক্রয় সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়। তার পড়েও নদীতে মাছ ধরতে দেখা যায় জেলেদের।

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে এরই মধ্যে সারাদেশে আটক হয় প্রায় হাজার জেলে।  দেয়া হয় বিভিন্ন মেয়াদে সাজাও। গেলো ২০ দিনে, ইলিশ ধরার অপরাধে-

তবে এসব সাজা প্রদান আর কঠোর নিরাপত্তার মধ্যেও পাওয়া যায় ঘুষ নিয়ে মাছ ধরার অনুমতি দেয়ার প্রমাণ। জেলেরা জানান, টাকা দিলে মুক্তি পাওয়া যায়,জেল-জরিমানা থেকেও।

আর নিষেধাজ্ঞা না মেনে মাছ ধরার কারন হিসেবে সরকারি সহায়তা না পাওয়াকেই দায়ী করে মৎসজীবিরা। তারা জানায়, ক্ষতিপূরন হিসাবে জনপ্রতি ২০-৪০ কেজি চাল পাওয়ার কথা থাকলেও তা পায়নি জেলেরা। সরকার চাল বরাদ্দ দিলেও তা ভাগ্যে জোটেনি ভিজিএফ কার্ডধারীদেরও।

এদিকে নিষেধাজ্ঞার প্রায় পুরো সময় কেটে গেলেও সহায়তা প্রদানে জেলেদের তালিকা তৈরি না হওয়ার অযুহাত দেখান সংশ্লিষ্ট র্কমকর্তারা।

বিকল্প কাজের ব্যবস্থা বা সহায়তা না পাওয়ায় ইলিশ বাচাতে মানবেতর দিন কাটায় জেলেরা, তার ওপর মেলে সাজা আর জেল জরিমানা। তাই আগামীতে নেয়া এমন কার্যক্রম জেলেবান্ধব করার দাবি মৎসজীবিদের।

Leave a Reply