কুমিল্লার ‘ময়নামতি ওয়ার সিমিট্রি’ ২য় বিশ্বযুদ্ধে মিত্রবাহিনীর যোদ্ধাদের সমাধিক্ষেত্র

আন্তর্জাতিকভাবে কমনওয়েলথ সমাধি আর স্থানীয়দের কাছে ইংরেজদের কবরস্থান নামেই পরিচিত, কুমিল্লার ‘ময়নামতি ওয়ার সিমিট্রি’। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্রবাহিনীর যোদ্ধাদের এই সমাধিক্ষেত্রটিতে প্রতিদিনই ভিড় জমান দেশি বিদেশি দর্শণার্থী। ঐতিহাসিক স্থানটিতে এসে অনেকেই জানতে পারেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ইতিহাস।

কুমিল্লা শহর থেকে মাত্র ৫ কিলোমিটার পশ্চিমে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে ছায়া-সুনিবিড় স্থান। শান্ত-সবুজ পরিবেশ মন কাড়ে যে কারোই।

প্রায় সাড়ে চার একরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা দ্বিতীয় কমনওয়েলথ সমাধি ক্ষেত্র। এখানেই শায়িত আছেন, ১৯৪১ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নিহত, মিত্রপক্ষের ৭৩৭ যোদ্ধা।

স্থানীয়দের ভাষায় একে ইংরেজ কবরস্থান বলা হলেও আসলে এখানে সারিবদ্ধভাবে শায়িত আছেন বিভিন্ন দেশের যোদ্ধারা। সমাধিক্ষেত্রটি দেখতে প্রতিদিনই আসেন দেশ-বিদেশের দর্শনার্থীরা।

বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে তৎকালীন বার্মায় সংঘটিত যুদ্ধে বিভিন্ন দেশের প্রায় ৪৫ হাজার সৈন্য নিহত হন। তাদের স্মৃতি রক্ষায় তৎকালীন বার্মা, আসাম ও বাংলাদেশের ৯টি স্থানে সমাধিসৌধ তৈরী করে কমনওয়েলথ গ্রেভ ইয়ার্ড কমিশন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে কুমিল্লার ময়নামতি সেনাবাহিনীর একটি বড় ঘাঁটি থাকায় এখানে একটি সমাধিক্ষেত্র প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

Leave a Reply