বাংলাদেশ রেলওয়ে লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারছে না

লোকসানই কাটিয়ে উঠতে পারছে না বাংলাদেশ রেলওয়ে। বিগত সাত বছরে এ’ খাতে ২৯ হাজার ৭৪ কোটি টাকা ব্যয় হলেও আয় এসেছে মাত্র ৫ হাজার ৩শ’ ৭১ কোটি টাকা। যদিও একে লোকসান বলতে নারাজ রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক। তিনি জানান, যাত্রী সেবাই রেলওয়ের মূল লক্ষ্য। তবে, যাত্রীদের অভিযোগ, দু’দফা ভাড়া বাড়ানো হলেও সেবা বাড়েনি একটুও।

কাঙ্খিত গন্তব্যে যেতে যাত্রীদের প্রথম বিড়ম্বনা টিকেট প্রাপ্তি।

যাত্রীদের অভিযোগ, বেশির ভাগ সময়ই কাউন্টারে  টিকেট পাওয়া যায় না, অথচ অতিরিক্ত টাকা দিলে ট্রেন ছাড়ার আগ মূহুর্তেও টিকেট মেলে।

আসন সংখ্যার বিপরীতে তিনগুন বেশি যাত্রী নিয়ে চলছে ট্রেন। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন জাগে নির্ধারিত আসনের বিপরীতে এতো বেশি যাত্রী বহন করলে ঘাটতি থাকে কিভাবে?

বিনা টিকেট ও স্ট্যান্ডিং টিকেটে গাড়িতে উঠে বাড়তি টাকা দিলে ট্রেনের শ্রমিক কর্মচারীরা বসার ব্যবস্থা করে দেয়।

অতিরিক্ত যাত্রী, অপরিচ্ছন্ন টয়লেট, হকাদের দৌরাত্ম্যে যেখান সেখানে আটকে যায় ট্রেন। এরকম অসংখ্য অভিযোগ যাত্রীদের।

রেলমন্ত্রী জানালেন, আগের তুলনায় এখন যাত্রী সেবার মান বেড়েছে। চলমান উন্নয়ন কাজ শেষ হলে রেল তার গতি ফিরে পাবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন দূর্নীতি ও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় রেল লোকসানের কবলে পড়েছে।

শুধু কথায় নয়, সত্যিকার অর্থেই রেলওয়ে সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে এ প্রত্যাশা যাত্রী ও রেল সংশ্লিষ্টদের।

Leave a Reply