মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনেও বধ্যভূমির বেহাল দশার কথা

 

বর্তমান সরকার দেশের যে বধ্যভুমিগুলো সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছিল তার মধ্যে অন্যতম ফরিদপুরের নগরকান্দার কোদালিয়া শহীদ নগরের বধ্যভূমি। সম্প্রতি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনেও উঠে আসে বধ্যভূমির বেহাল দশার কথা। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও এটি পড়ে আছে অযতœ আর অবহেলায়।

ফরিদপুরে হানাদার বাহিনীর সাথে সবচে বড় যুদ্ধটি হয় কোদালিয়া শহীদ নগরে। পুড়িয়ে দেয় গ্রামের পর গ্রাম। সেই যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী ও এদেশীয় রাজাকারদের প্রতিহত করতে গিয়ে প্রাণ হারান অসংখ্য নারী-পুরুষ।

হত্যার মৃতদেহগুলো মাটি চাপা দেয়া হয় শহীদ নগরে। ১৯৯৬ সালে এ স্থানটিকে বধ্যভুমি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এরপর ২০০১ সালে শহীদদের স্মরণে বধ্যভূমির প্রবেশ পথে নির্মাণ করা হয় একটি স্মৃতিস্তম্ভ । কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে কেউ না থাকায় বধ্যভূমিটি রয়েছে চরম অবহেলায়।

বিষয়টি সরকারের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের নজরে আনার কথা জানিয়েছেন নগরকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজরিত এ বধ্যভুমিটির দিকে সরকার নজর দেবে এমনটাই প্রত্যাশা ফরিদপুরবাসীর।

Leave a Reply