নতুন ঠিকানায় যাচ্ছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার

সোয়া দুইশ’ বছরের ইতিহাস পেছনে ফেলে নতুন ঠিকানায় যাচ্ছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার। রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোড থেকে স্থানান্তরিত হচ্ছে কেরানীগঞ্জে। সেখানে প্রায় একশ’ ৪২ একর জায়গায় গড়ে তোলা হচ্ছে নতুন কারাগার। প্রায় পাঁচ হাজার বন্দী থাকতে পারবে এই কারাগারে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের রাজেন্দ্রপুর, রাজধানী থেকে দুরত্ব ১৮ কিলোমিটার। এখানেই সরিয়ে নেয়া হচ্ছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার।

একশ’ ৯৪ একরের বেশি জায়গা নিয়ে কেরানীগঞ্জে ২০১১ সালে শুরু হয় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের নির্মাণ কাজ। ৪০৬ কোটি টাকা ব্যয়ে শুরুতে কাজ হচ্ছে প্রায় ১৪২ একর জায়গায়। এরইমধ্যে শেষ হয়েছে পুরুষদের কারাভবন নির্মাণ।

প্রধান ফটক আর কারা প্রশাসনের ভবন পার হওয়ার পরই চোখে পড়বে কেইস টেবিল নামের শেড। যেখানে, কারাবিধি ভঙ্গকারি বন্দিদের বিচার করা হবে। এর চারপাশে থাকছে (গ্রাফিক্স কার্ড-১): বিচারাধীন বন্দীদের ৬টি ভবন। আরও চারটি ভবন রয়েছে সাজাপ্রাপ্তদের। ভিআইপিদের জন্য থাকছে আলাদা ভবন। মানসিক প্রতিবন্দীদের জন্য রয়েছে ভিন্ন ভবনে থাকার ব্যবস্থা। (কার্ড-২:)। সব মিলিয়ে প্রায় পাঁচ হাজার বন্দী রাখার ব্যবস্থা রয়েছে এই কারাগারে। এছাড়া, থাকছে গ্রন্থাগার, চিকিৎসা ইউনিট, ওয়ার্ক শেড, ফ্লাওয়ার মিল আর ফাঁসির মঞ্চ।

তবে, এত সংখ্যক বন্দীর জন্য প্রথম দফায় তৈরি করা হয়েছে মাত্র আট বেডের মেডিকেল ইউনিট। এই বিষয়টি ভাবিয়ে তুলছে কারা কর্তৃপক্ষকে।

বন্দীদের ভবনগুলো ঘিরে ফেলা হয়েছে ১৫ ফুট উঁচু দেয়ালে। তার উপরে থাকবে বৈদ্যুতিক তার ঘেরা। আর চারদিকে থাকছে ওয়াচ টাওয়ার।

নারীদের জন্য ১১ একর জায়গায় চলছে ভবন নির্মাণের কাজ। এই ভবনগুলো প্রস্তুত না হওয়ায়, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নারীদের স্থানান্তর করা হবে গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগারে।

তবে, ২০১৭ সালের মধ্যেই সব কাজ শেষ হবে বলে জানান, পিডব্লিউডি’র কর্মকর্তা।

আগামী ১০ই এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন কারাগার উদ্বোধন করবেন। তারপর এই মাসের মধ্যেই পুরুষ বন্দিদের স্থানান্তর করা হবে বলে জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ।

Leave a Reply