২০১৬ সাল ছিল বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ রায়ের একটি বছর

মানবতাবিরোধী অপরাধের চূড়ান্ত সাজার রায় প্রদান থেকে শুরু করে পরিবেশ রক্ষা ও জনস্বার্থ মামলায় ২০১৬ সালে উচ্চ আদালত থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ রায় এসেছে। আলবদর প্রধান মতিউর রহমান নিজামী ও চট্টগ্রামের ত্রাস মীর কাসেম আলী চূড়ান্ত রায় এসেছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ থেকে। তবে মামলা জটের অবস্থা এখনো আশাব্যঞ্জক নয়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় চট্টগ্রামে অঞ্চলের আল বদর কমান্ডার মীর কাসেম আলীকে, কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিমকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদন্ড রায় আসে। রায় কার্যকরের  মধ্য দিয়ে শেষ হয় যুদ্ধাপরাধে দন্ডিত এই জামায়াত নেতার বিচার প্রক্রিয়া।

এর আগে রিভিউ রায় খারিজের মধ্য দিয়ে জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামীর মৃর্তুদন্ড কার্যকর করে সরকার।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পদে সংসদ সদস্যদের দায়িত্ব পালন এবং গভর্নিং বডির বিধান অবৈধ করে হাইকোর্টের দেয়া রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। ফলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সভাপতির পদ ফেরত পাচ্ছেন না সাংসদরা।

ডিটেনশন বা (আটকাদেশ) দেওয়ার জন্য পুলিশ কাউকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করতে পারবে না। কাউকে গ্রেপ্তার করার সময় পুলিশ তার পরিচয়পত্র দেখাতে বাধ্য থাকবে। ৫৪ ও ১৬৭ ধারাকে সংশোধনের আদেশ দিয়ে কিছু নীতিমালা করে দেন আপিল বিভাগ।

এবছর বিনা বিচারে কারাগারে থাকা ৪ জনের জামিন দিয়েছে উচ্চ আদালত। বিনা বিচারে ৫ বছরের বেশী কারাগারে থাকা ৪৬২ বন্দীর তালিকা পেয়ে কাজ শুরু করেছে সুপ্রিম কোর্টের লিগ্যাল এইড অফিস।

এছাড়াও শিশুর শরীরের ১০ শতাংশের বেশি ওজনের স্কুলব্যাগ বহন না করানোর নির্দেশনা সহ পরিবেশ সংরক্ষন, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নিয়ে জনস্বার্থমূলক মামলার আদেশ আসে উচ্চ আদালত থেকে।

এসব রায় পরবর্তীতে গুরুত্বপূর্ণ ভ’মিকা রাখবে বলে মন্তব্য করেন আইনজীবীরা।

Leave a Reply