‘বাংলাদেশি শ্রমিকদের জঙ্গি সন্দেহে গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে’

বাংলাদেশি শ্রমিকদের জঙ্গি সন্দেহে গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। মালয়েশিয়ার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ শাখা বলছে, জঙ্গি সন্দেহে গ্রেপ্তার দুই বাংলাদেশি শ্রমিকের গন্তব্য ছিলো ফিলিপাইনের দক্ষিণাঞ্চলীয় বাসিলান ও জোজো দ্বীপ। সেখানে সক্রিয় জঙ্গি গোষ্ঠী আবু সাইয়াফ বিভিন্ন দেশ থেকে সদস্য সংগ্রহ করছে। আর মালয়েশিয়ার বাংলাদেশি শ্রমিকদের দলে টানছে জঙ্গি সংগঠনটি।

গত বছরের পহেলা জুলাই গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার পর থেকেই মালয়েশিয়ায় কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়–য়া ছাত্রদের জঙ্গি তৎপরতায় জড়িয়ে পড়ার বিষয়টি আলোচনায় আসে।

হলি আর্টিজানে হামলায় অংশ নেওয়া জঙ্গিদের একজন নিবরাস ইসলাম। কমান্ডো অভিযানে নিহত নিবরাস লেখাপড়া করতেন মালয়েশিয়ার মোনাস ইউনিভার্সিটিতে।

২৭ আগস্ট নারায়ণগঞ্জে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে নিহত হয় আরেক জঙ্গি তাওসিফ হোসেন। তাওসিফও লেখাপড়াও মোনাস ইউনিভার্সিটিতে।

২ সেপ্টেম্বর মালয়েশিয়া থেকে ঢাকায় ফেরত পাঠানো এক বাংলাদেশীর বিরুদ্ধে হলি আর্টিজান হামলার সাথে জড়িতদের সম্পর্ক থাকার অভিযোগ আনে দেশটির আইনশৃঙ্খলাবাহিনী।

এসব ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ১৯ জানুয়ারি জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস এর সঙ্গে জড়িত সন্দেহে দুই বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেপ্তার করে মালয়েশিয়ায় সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ শাখা।

তাদের অভিযাগ, গ্রেপ্তারকৃতদের গন্তব্য ছিল ফিলিপাইনের বাসিলান ও জোজো দ্বীপে। দ্বীপ দু’টিতে সক্রিয় আছে জঙ্গি গোষ্ঠী আবু সাইয়াফ। সংগঠনটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে সদস্য সংগ্রহ করছে।

কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশি নাগরিক গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনা মালয়েশিয়ার শ্রম বাজারে প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের উচিত গ্রেপ্তার হওয়া জঙ্গিদের সব তথ্য সংগ্রহ করা।

Leave a Reply