বন্ধ হয়নি বাল্যবিয়ে

আইন থাকার পরেও পুরোপুরি বন্ধ হয়নি বাল্যবিয়ে। সম্প্রতি বিশেষ ক্ষেত্রে মেয়েদের ১৮ বছর ও ছেলেদের ২১ বছরের নীচে বিয়ের বিধান করে সংসদে আইন পাশ করায় পর নতুন বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে বিভিন্ন মহলে। আইনটির অপব্যবহার হতে পারে বলে মনে করেন মানবাধিকার কর্মীসহ আইন সংশ্লিস্টরা।

ময়মনসিংহের চরপাড়ার তাসমিনা আক্তার মুক্তাকে মাত্র ১২ বছর বয়সে বিয়ে দেয় তার বাবা-মা। ২০০৯ সালে বিয়ে হওয়ার পর ২ বছর সংসার করতে না করতেই ৩ মাসের সন্তানসম্ভবা মুক্তাকে ডিভোর্স দেয় তার স্বামী। বাল্যবিয়ের অভিশাপ মাথায় নিয়ে লড়াই করছেন জীবনযুদ্ধে।

শুধু মুক্তা নয়, বাল্যবিয়ে কেড়ে নিয়েছে অনেক কিশোরীর হাসিখুশি উজ্জল ভবিষৎ।

বিভিন্ন সময় আইনগত কিছু ব্যবস্থা নেয়া হলেও বাল্য বিয়ে থামানোই যাচ্ছে না। এরমধ্যেও সম্প্রতি ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ ১৮ বছরের নীচেও মেয়েদের বিয়ের সুযোগ রেখে আইন করা হয়েছে। তবে আদালতের নির্দেশ এবং মা-বাবার সম্মতি ছাড়া বিয়ে সম্ভব হবে না বলে জানালেন আইন সচিব।

মানবাধিকার কর্মী ও আইনজীবীরা বলছেন, আইনের ব্যাখ্যা সুস্পষ্ট নয়। অনেক ক্ষেত্রে বিশেষ বিধানের অপব্যবহার হতে পারে বলেও সংশয় জানিয়েছেন তারা।

বাল্যবিয়ে নিরোধ আইনের শর্তগুলো সুস্পষ্ট করে দ্রুত বিধিমালায় অন্তর্ভূক্ত করার কথা বলছেন তারা। নইলে কন্যাশিশুরা ঝুঁকির মধ্যে পড়বে বলেও মনে করেন তারা।

Leave a Reply