বাড়ছে মোবাইল ব্যাংকিং হ্যাকিং

প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় মানুষ এখন হাতের মুঠোয় ব্যাংকিং সেবা পেলেও বেড়েছে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেয়াসহ বিভিন্ন ঝুঁকি। মোবাইল ব্যাংকিংও বেশ জনপ্রিয় হয়েছে। তবে, মোবাইল অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা চুরি, ভূয়া এসএমএস আর কাস্টমার কেয়ারের নামে ভয়ভীতি দেখিয়ে অ্যাকাউন্ট হ্যাকের অভিযোগও আছে বিস্তর। ক্ষতিগ্রস্তরা প্রশাসন ও কাস্টমার কেয়ারে ধর্ণা দিয়েও প্রতিকার পাচ্ছেন না।

উন্নত প্রযুক্তি প্রয়োগে এখন অনেকটা সহজ হয়েছে মানুষের জীবন। নতুন নতুন উদ্ভাবনে হাতের মুঠোয় এসেছে গোটা পৃথিবী। রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নের পথে বাংলাদেশে যেকটি কার্যক্রম ব্যাপক সাড়া ফেলেছে তার মধ্যে অন্যতম মোবাইল ব্যাংকিং সেবা।

ব্যাংকিং সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করতে বাংলাদেশ ব্যাংক ২৯টি আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে অনুমতি দিলেও কাজ করছে অর্ধেক। এর মধ্যে ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগি প্রতিষ্ঠান বিকাশসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু করেছে। বিকাশের গ্রাহক সংখ্যা দুই কোটিরও বেশি। সারা দেশে তাদের এজেন্ট দেড় লাখেরও বেশী।

সিম ক্লোন, হ্যাক, জালিয়াতি, আবার অনেক কাস্টমার কেয়ারের নাম ভাঙিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ করেছেন অনেক বিকাশ এজেন্ট ও সাধারন গ্রাহক।

পুলিশ বলছে, সাইবার অপরাধ বাড়ছে। তবে সব থানায় সাইবার অপরাধ দমনে যথযথ ব্যবস্থা না থাকার কথাও স্বীকার করলেন এ কর্মকর্তা।

এসব বিষয়ে বিকাশের কর্মকর্তা জানালেন, জালিয়াতির মাধ্যেমে টাকা হাতিয়ে নেয়া হলে সেগুলো ফেরত দেয়া হয়। তবে প্রক্রিয়াটি সময় সাপেক্ষ।

প্রতারণার পরিমান কমিয়ে, অনলাইন ব্যাংকিংকে আরো নিরাপদ করতে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহনের কথা পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

জালিয়াতি, তথ্য পাচার কিংবা প্রতারণা নয়, নিরাপদে এবং নির্ভয়ে উন্নত প্রযুক্তির সুবিধা ভোগ করতে চায় সাধারণ মানুষ। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কঠোর নজরদারির আশা করেন তারা।

Leave a Reply