চামড়া বর্জ্যের দুর্গন্ধে এলাকা ছাড়ছেন ১৮ গ্রামের মানুষ

চামড়া বর্জ্যের উপচে পড়া পানি আর দুর্গন্ধে এলাকা ছাড়ছেন রাজধানী সংলগ্ন ১৮ গ্রামের মানুষ। এরিমধ্যে দূষণ ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয় ধলেশ্বরী নদীতেও। মানুষের শরীরে হচ্ছে খোশ-পাচড়া। সবমিলে বিপন্ন পরিবেশে দিন কাটাচ্ছেন সিঙ্গাইর, সাভার ও কেরাণীগঞ্জের মানুষ।

কথা ছিল সাভারের হেমায়েতপুরে নির্মাণ হবে পরিবেশবান্ধব চামড়া শিল্প নগরী। এতোদিনে হাজারীবাগ থেকে বিসিকের বেঁধে দেয়া জায়গায় কাজ শুরু করেছে মাত্র ১২টি কারখানা। আর তাতেই খাল-বিল নদী-নালার বেহাল অবস্থা। ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা ইটিপি না থাকায় চামড়ার দূষণ ছড়িয়ে পড়ছে বহু দূরের গ্রাম পর্যন্ত।

চামড়ার দূষণ বিবেচনায় পাশের ধলেশ্বরী নদীও এখন বুড়িগঙ্গার প্রতিযোগী। কুচকুচে পানিতে চলছে মাছের আকাল। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে ঝাউচর, শ্যামপুর, হরিণধরা, মিটকা, আরজেনপাড়া, পূর্বহাটিসহ আরও ১৮ গ্রামের মানুষ।

ইটিপি ছাড়াই কেন চলছে চামড়া প্রক্রিয়া? প্রশ্ন্ধসঢ়; ছিল মালিকদের কাছে।

এলাকাবাসী বলছেন, ইটিপি তৈরী না করে হাজারীবাগ থেকে আর কোন কারাখানা হেমায়েতপুরে এলে তা প্রতিহত করবেন তারা।

Leave a Reply