ঢাকা, ২০১৯-০৪-২৬ ৮:৩৬:৪৫, শুক্রবার

মালয়েশিয়ায় কনস্যুলার সেবা পরিদর্শন করলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

মালয়েশিয়ায় কনস্যুলার সেবা পরিদর্শন করলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের কনস্যুলার সেবা পরিদর্শন করলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় মালয়েশিয়ার আম্পাং জালান বেছার দূতাবাসের পাসপোর্ট শাখা পরিদর্শন করেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন রাষ্ট্রদূত মুহ. শহীদুল ইসলাম, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার উইংপ্রধান মো. মশিউর রহমান তালুকদার, ডেপুটি প্রজেক্ট ডিরেক্টর লেফটেন্যান্ট কর্ণেল শাহরিয়ার মুস্তাফিজ, সহকারী পরিচালক মাহমুদুল হাসান প্রমুখ। পরিদর্শনের সময় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিজে প্রবাসী কর্মীদের সঙ্গে পাসপোর্ট সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন এবং তাদের খোঁজ খবর নেন। এ সময় তিনি বলেন, ডিজিটাল পাসপোর্ট তৈরি এবং নবায়ন থেকে শুরু করে সকল বিষয়ে সেবা প্রদান করার জন্য হাইকমিশনের প্রতিটি কর্মকর্তা-কর্মচারী সব সময় প্রস্তুত আছেন। আশাকরি এখান থেকে আপনাদের কখনই হতাশ হয়ে ফিরতে হবে না। এ সময় রাষ্ট্রদূত মুহ. শহীদুল ইসলাম বলেন, আমাদের মিশন শ্রমিকবান্ধব হওয়ায় দূতাবাস ছাড়া দেশটির প্রত্যেকটি প্রদেশে প্রায় দেড় বছর যাবৎ আপনাদের সেবা দিয়ে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতি মাসের শনি থেকে রোববার মালয়েশিয়ার জহুরবারু, পেনাং, মালাক্কা ও ক্লাংয়ে কনস্যুলার সেবা দেয়া হচ্ছে। ডিজিটাল পাসপোর্টের আবেদন কিভাবে করতে হয়, সে জন্য বসানো হয়েছে তথ্যসেবা কেন্দ্র। এ তথ্যসেবার মাধ্যমে প্রবাসীরা তাদের বিভিন্ন সমস্যা দ্রুত সমাধান করতে পারবে। এছাড়া পাসপোর্ট সংক্রান্ত যে কোনো বিষয়ে মোবাইলের দুইটা নম্বর যথাক্রমে ০১৬২৭৪৭৯১৭, ০১৭৬০১৪৪৮৪ নম্বরে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ফোন দিয়ে তথ্য নিতে পারবে প্রবাসীরা। এসি  
রেমিটেন্সযোদ্ধারা বাংলাদেশের হৃদয়ে বাস করেন: পরিকল্পনা মন্ত্রী

পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, প্রবাসীরা এক একজন রেমিটেন্সযোদ্ধা। আর এই রেমিটেন্সযোদ্ধারা বাংলাদেশের হৃদয়ে বাস করেন। ‘জাতির জনক’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘প্রবাসী বন্ধু’ বলেই প্রবাসীদের সমস্যা নিয়ে কাজ করছেন। আমি জানি প্রবাসীদের অনেক সমস্যা রয়েছে আর তাই প্রবাসীদের প্রত্যাশা পূরণে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। ‘আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখার আহবান জানিয়ে ‘মালয়েশিয়ায় সেন্টার ফর এনআরবি’র সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন। শনিবার (২০ এপ্রিল) সন্ধ্যায় মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের প্যাসিফিক রিজেন্সি হোটেলের বলরুমে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান তার বক্তব্য বলেন, প্রবাসীরা বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা লগ্নে মুক্তি সংগ্রামসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে ও রাজনৈতিক সংকটে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখেছেন। রেমিটেন্স যোদ্ধাদের অব্যাহত প্রচেষ্টায় ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের বিনিয়োগ বান্ধব নীতির ফলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য আসতে শুরু করেছে। বিনিয়োগকারীদের সুবিধার জন্য প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছেন। এগুলোর বাস্তবায়নের কাজ এগিয়ে চলছে। সম্মেলনে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার মহ. শহীদুল ইসলাম তার বক্তব্যে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভূয়সী প্রসংসা করে বলেন, প্রবাসীদের অসাধারন ক্ষমতা রয়েছে। দেশকে এগিয়ে নিতে প্রবাসীদের অবদান অপরিসীম। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিরা সম্মানের জায়গা করে নিয়েছেন। দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্ক । মালয়েশিয়া আমাদের বন্ধু প্রতিম দেশ। বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে। হাইকমিশনার মহ.শহীদুল ইসলাম বাংলাদেশের উন্নয়ন তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে অর্থনৈতিক, সামাজিকসহ সকল ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, বিশ্ববাসী বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করছে। হাই কমিশনার আরো বলেন, দূতাবাস শ্রমিকবান্ধব। মালয়েশিয়া সরকার অবৈধদের বৈধতা দিতে বিগত রি-হিয়ারিং প্রোগ্রামের সময় দূতাবাস থেকে প্রায় ৬ লাখ পাসপোর্ট ইস্যুকরা হয়েছে। যার ফলে প্রায় সাড়ে ৪ লাখেরও বেশি কর্মী বৈধতা পেয়েছেন। আর যারা প্রতারণার শিকার হয়েছেন তাদেরকে বৈধতা দিতে মালয়েশিয়া সরকারের সর্বোচ্চ মহল পর্যন্ত যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে এবং দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহবান জানানো হয়েছে। সম্মেলনে আলোচক হিসেবে ছিলেন-ডিজি এন আইডি ব্রিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো: সাইদুল ইসলাম এনডিসি পিএসসি, মালয়েশিয়া ইসলামিক ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ড. এস এম আব্দুল কুদ্দুছ, ইনভেষ্টমেন্ট ব্যাংকার সৈয়দ সাদিক রেজা, সিলেট প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ। ‘দায়িত্বশীল নাগরিক-সম্মৃদ্ধ দেশ’ শিরোনামে ওয়ার্ল্ড কনফারেন্স সিরিজ ২০১৯ এর সভা পরিচালনা করেন মালয়েশিয়ার কোতা দামানসারা সেগী ইউনিভার্সিটি এন্ড কলেজের ষ্টুডেন্ট বৃষ্টি খাতুন সাবা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেন্টার ফর এনআরবি চেয়ারপার্সন এস এম সেকিল চৌধুরী। সভাপতি তার বক্তব্যে বাংলাদেশের শিল্পে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে বিশ্বব্যাপী বিশেষ সেমিনার আয়োজন করছে এনআরবি। দেশের ব্যবসায়ী, শিল্পপতিসহ বিশিষ্টজনেরা তাতে অংশ নিচ্ছেন। মালয়েশিয়ার সম্মেলনটি এনআরবির ‘বিশ্ব সম্মেলন সিরিজ-২০১৯’-এর একটি অংশ। এদিকে সম্মেলনের শুরুতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও কমনওয়েলথ কুইনের সেমিনার উপলক্ষে দেওয়া বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। বাংলাদেশের শিল্পক্ষেত্রের নানা অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরেন সেকিল চৌধুরী। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এক সম্প্রীতির দেশ। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে এখন দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হচ্ছে। ২০৩০ সালে বিশ্বের ৩০তম বৃহৎ অর্থনৈতিক দেশে পরিণত হবে। বাংলাদেশের বৈদেশিক আয়ের ৬৭ শতাংশই এখন আসছে এই এনআরবির অর্থের মাধ্যমে। সম্মেলনে প্রবাসীদের সমস্যা ও সম্ভাবনার প্রস্তাব তুলে ধরেন, কমিউনিটি নেতা মাহবুব আলম শাহ, পিএইচডি গবেষক মো: আব্দুর রৌফ শিপলু, কমিউনিটি নেতা সোনাহর আলী রশিদ খাঁন, সাংবাদিক আহমাদুল কবির, সাংবাদিক ওয়াহিদ সোহান, এনামুল হক প্রমূখ। এ ছাড়া সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, হাই কমিশনের শ্রম কাউন্সিলর মো: জহিরুল ইসলাম, প্রথম সচিব শ্রম মো: হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল, প্রথম সচিব কন্স্যুলার মো: মাসুদ হোসেইন, প্রথম সচিব বাণিজ্য মো: রাজিবুল আহসান, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মো: মশিউর রহমান তালুকদার, কমিউনিটি নেতা নাজমুল ইসলাম বাবুলসহ মালয়েশিয়ায় বসবাসরত সকল স্থরের কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ। এসি  

দুই বাংলাদেশি নিখোঁজ

শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলার ঘটনার পর থেকে এক শিশুসহ দুই বাংলাদেশি পর্যটকের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।এ সংবাদ জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। আজ রোববার দুপুরে ঢাকায় এক ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘দুজন বাঙালি আন অ্যাকাউন্টেড। তাদের পরিবারের অন্যরা অ্যাকাউন্টেড। আমরা তাদের অবস্থা জানার চেষ্টা করছি। যত তাড়াতাড়ি ট্রেস করা যাবে, আমরা তাদের পরিবারকে জানাব।’ ওই দুইজনের নাম পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে প্রকাশ করেননি প্রতিমন্ত্রী । তিনি বলেন, ওই দুইজনের খোঁজে কলম্বোর হোটেল ও হাসপাতালগুলোতে খোঁজ করা হচ্ছে। এক প্রশ্নের জবাবে শাহরিয়ার আলম বলেন, চারজন বাংলাদেশির একটি দল কলম্বো গিয়েছিল টুরিস্ট হিসেবে। তাদের মধ্যে দুজন ঠিকঠাক থাকলেও একটি শিশুসহ দুজনের খোঁজ পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য, আজ রোববার সকালে ইস্টার সানডের প্রার্থনা চলাকালে শ্রীলঙ্কায় বেশ কয়েকটি গির্জা এবং পাঁচ তারকা হোটেলে একযোগে বোমা হামলা হয়। এ ঘটনায় অন্তত দেড় শতাধিক মানুষ নিহত এবং চার শতাধিক আহত হয়েছেন। এসএ/

বেলজিয়ামের নির্বাচনে প্রার্থী বাংলাদেশি নারী

বেলজিয়ামের সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়েছেন এক বাংলাদেশি নারী। তিনি বেলজিয়ামের ওয়ার্কাস পার্টি ‘পিভিডিএ’ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন। মে মাসের শেষ সপ্তাহে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এন্টওয়ার্প আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়ন পাওয়া শায়লা শারমিন এর আগে কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২৬ মে বেলজিয়ামের জাতীয় নির্বাচনে শায়লাই হবেন প্রথম কোনও বাংলাদেশি প্রার্থী। শায়লার নির্বাচনী আসন এন্টওয়ার্প বহু ভাষাভাষী অভিবাসীদের বসবাস। বেলজিয়ামের ডায়মন্ড শহর নামে পরিচিত এন্টওয়ার্পেই সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশিদের বসবাস। ধারণা করা হয় এ কারণেই পিভিএডি পার্টির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন শারমিন শায়লা। বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকা বলে আসন্ন নির্বাচনে শারমিন শায়লাকেই ‘ফেভারিট’ বলে মনে করছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। বেলজিয়াম জাতীয় নির্বাচনে শারমিন শায়লার প্রার্থী হওয়ার গল্প এখন প্রবাসী বাঙালিদের মুখে মুখে। যুক্তরাজ্য, কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্রের পর বেলজিয়ামে প্রথম কোনও বাংলাদেশির জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা বলে মনে করছেন স্থানীয় প্রবাসীরা। শারমিন শায়লার পৈর্তৃক বাড়ি বরিশাল হলেও বেড়ে উঠেছেন ঢাকায় । তিনি ২০০৬ সাল থেকে স্বামী ও এক ছেলে সন্তান নিয়ে বেলজিয়াম স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। এসি  

জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে ‘মুজিবনগর দিবস’ উদযাপন

জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে ঐতিহাসিক ‘মুজিবনগর দিবস’ উদযাপন করা হয়েছে। জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে দিবসটির শুরু হয়। এরপর মুজিবনগর সরকারের রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদসহ এ সরকারের সকল নেতৃবৃন্দের স্মৃতির উদ্দেশ্যে একমিনিট নীরবতা পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে প্রদত্ত রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। আজ জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়। জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন অনুষ্ঠানে মুজিবনগর দিবসের তাৎপর্য ও ইতিহাস তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল গঠিত স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে ১৭ এপ্রিল শপথ গ্রহণ করে, আর সেদিন থেকে এই স্থানটি পরিচিতি পায় মুজিবনগর নামে। মুক্তিযুদ্ধের প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি ও আইনগত ভিত্তি স্থাপনে এই সরকারের কোন বিকল্প ছিল না বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত। ‘মুজিবনগর সরকার মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করেছে এবং সরকার ব্যবস্থাপনাও সূচারুরূপে পরিচালনা করেছে। এমনকি আয়-ব্যয়ের হিসাব পর্যন্ত রেখেছে এ কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বলেন, ‘মুজিবনগর সরকারের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবেলা করে বিশ্ব জনমতকে পক্ষে আনা যা তারা অত্যন্ত সফলতার সাথে করতে পেরেছে।’ তিনি নতুন প্রজন্মের মাঝে মুজিবনগর সরকার ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং এর তাৎপর্য তুলে ধরার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘জাতির পিতা এবং জাতীয় চার নেতা যে শোষণ ও বঞ্চনামুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন তা বাস্তবায়নে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করবো এবং জাতিসংঘের প্রতিটি স্তরে বাংলাদেশের অবস্থান আরও সুদৃঢ় করব, মুজিবনগর দিবসে এই হোক আমাদের প্রতিজ্ঞা।’ মিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। আলোচনা পর্ব শেষে মুজিবনগর সরকারের প্রয়াত সকল সদস্য, জাতীয় চার নেতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের ত্রিশ লাখ শহীদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। সূত্র : বাসস এসএ/  

আনন্দ-উৎসবের মধ্য দিয়ে লন্ডনে নববর্ষ উদযাপন

লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশন আনন্দ-উৎসবের মধ্য দিয়ে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ বরণ করেছে। ‘এসো হে বৈশাখ’ গানের মাধ্যমে গত রোববার যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীমের উদ্যোগে ‘বাংলাদেশ ভবন’-এ বর্ণিল বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। এ অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা। তিনি হাইকমিশনারকে নিয়ে আগত অতিথিদের সঙ্গে নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন এবং সমগ্র অনুষ্ঠানটি সবার সঙ্গে উপভোগ করেন। বর্ষবরণের একদিকে ছিল বাংলাদেশি-ব্রিটিশ শিল্পীদের পরিবেশিত গান ও কবিতা আবৃত্তি। অন্যদিকে ছিল পিঠা-পুলি, ঝালমুড়ি, চটপটি, পান্তাভাত, বিভিন্ন ধরনের ভর্তা, মাছ ভাজি, খিচুরিসহ বাঙালির চিরচেনা ঐতিহ্যবাহী খাবারের সমারোহ। স্বাগত বক্তব্যে হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য সারা বিশ্বে তুলে ধরার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকে ভিত্তি করেই বাংলাদেশকে একটি ধর্মনিরপেক্ষ ও বৈষম্যহীন আধুনিক রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছিলেন। আজ তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বে একটি সমৃদ্ধ ও সুস্থ সংস্কৃতি চর্চার দেশ হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে।’ এ উপলক্ষে ব্রিটিশ-বাংলাদেশি শিল্পী এস এম আসাদ উল্লার একক চিত্র প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের প্রকৃতি ও ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়। অনুষ্ঠানস্থলটি সাজানো হয়েছিল বাংলার ঐতিহ্যবাহী নকশা, মুখোশ, পোস্টার ও ফেস্টুন দিয়ে। ছোটমণিদের বিনোদনের জন্যও ছিল খেলাধুলার ব্যবস্থা। লাল-সাদা পাঞ্জাবিতে পুরুষ এবং লাল-সাদা শাড়িতে নারী অতিথিরা অনুষ্ঠানটিকে করে তুলেছিলেন আরও বর্ণাঢ্য। অতিথিদের মধ্যে বাংলাদেশি-ব্রিটিশ কমিউনিটির প্রতিনিধি সুলতান মাহমুদ শরীফসহ যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বিভিন্ন পেশার বিশিষ্ট বাঙালিরা উপস্থিত ছিলেন। এসএ/  

জেদ্দায় একুশে টেলিভিশনের জন্মদিন উদযাপিত

হাঁটি হাঁটি পা পা করে ২০ বছরে পদার্পণ করলো বেসরকারি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল ‘একুশে টেলিভিশন’। আনন্দঘন এ মুহূর্তকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ১৫ এপ্রিল (সোমবার) রাত ১০টায় সৌদি আরবের লৌহিত সাগরের পাড় ঘেরা শহর জেদ্দায় গুলডেন হোটেলে ঝঁমকালো আয়োজনে পালিত হয়ে গেল ‘একুশে টেলিভিশন’ এর ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। একুশে টেলিভিশন দর্শক ফোরামের সৌদিআরব এর সভাপতি ব্যাবসায়ী সাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ব্যবসায়ী আব্দুর রহমান। সৌদি আরব প্রতিনিধি মোহাম্মদ ফিরোজ ও আনোয়ার জাহিদ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব ইলেকট্রনিক মিডিয়া পশ্চিমাঞ্চল সৌদি আরবের সভাপতি এম ওয়াই আলাউদ্দিন, বাংলা ভিশন দর্শক ফোরামের সভাপতি মনিরুজ্জামান তপন, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব কাজী সালাউদ্দিন নওফেল, সময় টিভির দর্শক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম, রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন উপদেষ্টা সাংবাদিক রুমি সাঈদ, মো. জমসেদ, আতাউর রহমান ভূইয়ার ও কোরবান আলী বিশ্বাস। প্রধান অতিথি আব্দুর রহমান বলেন, সাংবাদিকরা হচ্ছে জাতির বিবেক। এই বিবেকটাকে ন্যায়ের পথেই চালাতে হবে। বর্তমানে সৌদি আরবের চাকরির বাজার ভালো, ফ্রি ভিসাই না এসে কোম্পানির ভিসাই আসার জন্য সাংবাদিকদের মাধ্যমে অনুরোধ জানান তিনি। একুশে টেলিভিশনের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি ও সফলতা কামনা করে এর জন্মদিনের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন। রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি এম ওয়াই আলাউদ্দিন নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, আশা করি একুশে টিভি আগের মত মুক্তিযুদ্ধের কথা বলবে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলবে এবং ধারণ করবে। সৌদি আরবের প্রবাসী সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও কমিউনিটির নেতারা বলেছেন,শুধু বাংলাদেশে নয়; প্রবাসেও দেশের কৃষ্টি-কালচার তুলে ধরতে বড় ভুমিকা রাখছে একুশে টেলিভিশন। সম্প্রচার মাধ্যমের রূপকার একুশে টেলিভিশন বাংলাদেশে সংবাদ পরিবেশন ও উপস্থপনে সবসময়ই নব দিগন্তের সূচনা করছে। বক্তারা আরও বলেন, প্রবাসী সাংবাদিকরা নিজ কর্মের পাশাপাশি প্রবাসী ও দেশের জন্য কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। কঠিন চাপের মধ্যেও অসত্যের কাছে যেন নতি স্বীকার না করার জন্য সকল মিডিয়ার প্রতি আহ্বান জানান বক্তারা।  অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন থেকে তেলওয়াতের করেন আনোয়ার জাহিদ ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের সিনিয়র সাধারণ সম্পাদক আরটিভির প্রতিনিধি হানিস সরকার উজ্জ্বল । এতে প্রবাসে সংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন অফ ইলেকট্রনিক মিডিয়া সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চলের পক্ষ থেকে সাংবাদিক মোহাম্মদ ফিরোজকে বিশেষ সন্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ‘ রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের অফ ইলেকট্রনিক মিডিয়া সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চলের সাধারণ সম্পাদক এনটিভির প্রতিনিধি মাসুদ সেলিম, ইফতেখার আলম মাসুদ, দিগন্ত ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ আলীম, মোহাম্মদ ফারুক, এইচ এম নাছির, দোলাল মল্লিক, আতাউর রহমান মাসুদ, মো. হারুন শরীফ, মুফিজুল আলম, আনোয়ার অনিক, সাজ্জাদ হোসেন, সালাউদ্দিন রনি, আবুল বাশার। রিপোর্টাস এসোসিয়েশন অফ ইলেকট্রনিক মিডিয়া সৌদি আরব পশ্চিমাঞ্চলের সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাই টিভির মোবারক হোসেন ভূইয়া, সময় টিভির শিপন আল মামুন, এশিয়ান টিভির কাউছার আব্দুস সালাম, বাংলা টিভির সাইফুল রাজীব, জয়যাত্রা টেলিভিশনের নুর আলম ও বিডিসংবাদ৭১ এর রফিক চৌধুরী প্রমুখ। একুশে টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে কেক কেটে পরিবেশন করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

জেদ্দা’য় বাংলাদেশ কনস্যুলেটে বৈশাখ উদযাপন

সৌদি আরবের জেদ্দায় দেশীয় ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির ঢংয়ে পহেলা বৈশাখ উদযাপনের মাধ্যমে বাংলা নতুন বছর ১৪২৬ সালকে বরণ করে নেওয়া হয়। কনস্যুলেট জেনারেল,জেদ্দা’র আয়োজনে নববর্ষ উদযাপনে উৎসব প্রিয় মানুষের ঢল নেমেছে। রোববার বিকাল ৪টার পর থেকে তাপদাহ উপেক্ষা করে তরুণ-তরুণীদের উপস্থিতিতে মুখরিত হয়ে ওঠে কনস্যুলেট জেনারেল প্রাঙ্গণ। সব শ্রেণি পেশার মানুষের পদচারণায় মুখরিত অনুষ্ঠানে দেখলে মনে হয় প্রবাসের বুকে একখণ্ড বাংলাদেশ। বৈশাখী সাজে পুরো এলাকা সেজেছে এক নতুনের আমেজে। মুল অনুষ্ঠান সাড়ে ৪ টায় কনসাল জেনারেলের পত্নী সাবরিনা নাহরিন পিঠা উৎসবের উদ্ভোধন করেন। পরে কনসাল সালাউদ্দিন আহমেদ এর পরিচালনায় উদ্ভোধনী বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত কনসাল জেনারেল আমিনুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল ষ্টাফ পরিচালিত একটি স্টল ও বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ বাংলা শাখা এবং ইংরেজি শাখার ২টি স্টল অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে বাঙ্গালী বৈশাখী খাবার, নাটক, যাদুর পেঠরা খেলা, সমবেত সঙ্গীত, নাচ, কবিতা আবৃতি, এইখানে বেড়ে উঠা বাঙ্গালী কচি কাঁচাদের কবিতা আবৃতি, নাচ, গল্প, দ্বৈত ও দলীয় নৃত্য, একক নৃত্য এবং আরো অনেক কিছু। এছাড়াও বাংলাদেশি বিরিয়ানি, গ্রাম বাংলার বিভিন্ন পিঠা,পায়েস, ফালুদা, লাচ্ছি, মিষ্টান্ন, ঝাল মুড়ি দিয়ে দর্শনার্থীদের আপ্যায়ন করা হয়। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল-এর কর্মকর্তা/কর্মচারী, বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ বাংলা ও ইংরেজি শাখার ছাত্র-ছাত্রী, পরিচালনা কমিটির সদস্য, অভিভাবক, শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ, বাংলাদেশী কমিউনিটির ফোরামের নেতৃবৃন্দ, পেশাজীবী, ব্যবসায়ী, এবং ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকগণ স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করেন। সন্ধ্যায় কনস্যুলেট ভবনে আলোকসজ্জা করা হয়। কেআই/

একজন পরোপকারী লুইস ক্যারলিন

লুইস ক্যারলিন লিউইস। একজন পরোপকারী মার্কিন নাগরিক। বয়স প্রায় ৮০ ছুঁইছুঁই। সদা হাস্যোজ্জল এই বৃদ্ধা প্রতিদিন শুরু হয় পরোপকারী কাজ দিয়ে। আমেরিকার লস এঞ্জেলেসের কোরিয়া টাউনে, ‘হোবার্ট ভুলবার্ড এলিমেন্টারি` স্কুলে সামনে কাটে দিনের বেশির ভাগ সময়। এই স্কুল সংলগ্ন রাস্তার ক্রসস্ট্রিটে দাঁড়িয়ে স্কুলগামী বাচ্চা ও তাদের প্যারেন্টসদের নিরাপদে রাস্তা পারাপারে সহায়তা করে থাকেন তিনি। প্রতিদিন সকালে ২ ঘন্টা, আবার বিকালে স্কুল ছুটির সময় ২ ঘন্টা তিনি এ কাজ করে থাকেন। এরই মাঝের সময়টা ঘুরে-ফিরে ও পথচারীদের সাথে গল্পগুজব করে সময় কাটান তিনি। জীবিকার্জনের জন্যে এটা কোন মাধ্যম নয়। সেচ্ছাই নিজেই এই দায়িত্ব নিজ কাঁধে তুলে নিয়েছেন যিশুখ্রিস্টের আশীর্বাদ লাভের আশায়। কৃষ্ণাঙ্গ এই আমেরিকান বৃদ্ধার ধর্মবিশ্বাস ক্যাথলিক। এক সময় ডিপার্টমেন্ট অব ট্রান্সপোর্টেশনে ভালো চাকরিও করেছেন তিনি। এক সময় তিনি খন্ডকালিন শিক্ষকতাও করেছেন। ছিলেন ফ্যাশন ডিজাইনারও। ছেলে-মেয়ে ও নাতি-নাতনী মিলিয়ে বেশ বড় পরিবার তার। তিনি তাদেরকেও সময় দেন। এরপর অবসর সময়ে বেকার বসে থাকতে ভালো লাগে না তার। গত নয় বছর ধরে তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে এভাবেই স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে যাচ্ছেন। পরকালে ভালো পুরুস্কারের আশায়। বার্ধক্যক্লিষ্ট শরীর নিয়ে ৬ কিলোমিটার দূর থেকে এসে এভাবেই পরার্থে উৎসর্গিত করে যাচ্ছেন জীবনের মহামূল্যবান সময় ও শ্রম। এমনি করেই কাটিয়ে দিতে চান জীবনের বাকিটুক সময়। পৃথিবীতে যুগে যুগে যারা মহিয়ান হয়েছেন, তাদের জীবন কখনোই ভোগবিলাসী ছিলো না। অন্যের কল্যাণেই নিজ জীবন উৎসর্গ করে গেছেন তাঁরা। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) চলার পথে কাঁটা বিছানো এক বৃদ্ধার গল্প আমরা সকলেই জানি। এছাড়াও নবীজি কীভাবে অন্যের বোঝা নিজ কাঁধে তুলে নিয়ে গন্তব্যস্থলে পৌঁছে দিতেন। এসব গল্প থেকে আমরা কি কোন শিক্ষা নিতে পেরেছি? আমরা সকলেই যদি পরের কল্যাণে এভাবে ব্রতী হতাম, তাহলে আমাদের সমাজের চিত্র পাল্টে যেত। মানবহিতেষী কবি কামিনী রায়ের সেই প্রণিধানযোগ্য কবিতা-‘সকলের তরে সকলে আমরা, প্রত্যেকে আমরা পরের তরে, এই ভাব-সম্প্রসারণ কি শুধু পরীক্ষায় পাশের জন্যই পড়েছি? সমাজে এখন মানুষের কোনো অভাব নেই, কিন্তু মানবতার বড্ড অভাব। মানুষ হওয়ার শিক্ষাটার পাশাপাশি আমরা যেন মানবিক শিক্ষাটাও অর্জন করতে পারি, মহান সৃষ্টিকর্তা যেন আমাদের সেই তৌফিক দান করেন,আমীন। লেখক- আবুল বাশার ভূঁইয়া। আমেরিকান প্রবাসী । 

মালয়েশিয়ায় বাস দুর্ঘটনায় হতাহত বাংলাদেশিদের পরিচয় মিলেছে

মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে যাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনায় হতাহত বাংলাদেশি নাগরিকদের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহত ৫ বাংলাদেশির মধ্যে ২ জন চাঁদপুর, ২ জন কুমিল্লা ও ১ জন নোয়খালির রয়েছে বলে জানা গেছে। স্থানীয় সময় রোববার রাত ১১টা ১০ মিনিটে কুয়ালালামপুরের কে এল ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের এমএএস কার্গো, জালান এস-৮ পেকেলিলিংয়ের পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে স্থানীয় গণমাধ্যম নিউ স্ট্রেইটস টাইমস এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে। ওই দুর্ঘটনায় ৫ বাংলাদেশিসহ ১১ জন নিহত হন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আরও দুজন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ওই ঘটনায় আহত হন আরও অন্তত ৩৪ জন।  নিহতরা হলেন- চাঁদপুর জেলার হাজিগঞ্জ থানার দেবপুর ৪নং ওয়ার্ডের মো আনোয়ারের ছেলে সোহেল (২৪), চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার চরভাগল ৩নং ওয়ার্ডের মো. আমির হোসেনের ছেলে আলামিন (২৫), কুমিল্লা জেলার লাকসাম থানার দুরলবপুর গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে মহিন (৩৭), কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানার হাসানপুর কলেজ পাড়ার ঢাকাগাঁও গ্রামের মো. ইউনুস মুন্সির ছেলে মো. রাজিব মুন্সি (২৭) ও নোয়ালি জেলার চাটখিল থানার নোয়াখোলা ২নং ওয়ার্ডের নুর মোহাম্মদের ছেলে গোলাম মোস্তফা (২৩)। নিহতদের লাশ বর্তমানে সেরডাং হাসপাতালে আছে। এ ছাড়া পরিচয় পাওয়া আহত বাংলাদেশিরা হলেন- সেরডাং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মোহাম্মদ নাজমুল হক (২১), মোহাম্মদ রজবুল ইসলাম (৪৩), ইমরান হোসাইন (২১) এবং পুত্রাজায়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাহিদ হাসান (২১), শামীম আলী (৩২), মোহাম্মদ ইউনুস (২৭) ও মোহাম্মদ রাকিব (২৪)। হতাহতদের মধ্যে ২ জন নেপাল, ১ জন মালয়েশিয়া ও ২ ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকও রয়েছেন। দুর্ঘটনায় সংশ্লিষ্ট বাসটি শ্রমিকদের নিয়ে গতকাল রাতে নীলাই, নেগরি সেম্বিলান থেকে এয়ারপোর্ট অভিমুখে যাওয়ার পথে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। কে এল আই এয়ারপোর্টের ওসিপিডির সহকারী কমিশনার জুলকিফলি আদম শাহ গণমাধ্যমকে বলেন, দুর্ঘটনার সময় বাসটি ৪৩ জন শ্রমিক বহন করছিল। তারা এমএএস কার্গোতে চুক্তিভিত্তিক কাজ করতেন। একে//

মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস পালন

  মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির উদ্যোগে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার রাত ৮টায় কুয়ালালামপুরের একটি হোটেলে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ আহবায়ক কমিটির যুগ্ন আহবায়ক ওহিদুর রহমান ওহিদ দোয়া ও আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন। আহবায়ক কমিটির সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরীর সঞ্চালনায় ও আওয়ামী লীগ কুয়ালালামপুর মহানগর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন অর রশিদ মিয়াজীর কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে সকল শহীদ ও সম্প্রতি অগ্নিকান্ডে নিহতদের স্বরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন,আওয়ামী যুবলীগের সাবেক আহবায়ক, এ কামাল হোসেন চৌধুরী, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য যথাক্রমে, হুমায়ুন কবির, নুর মোহাম্মদ ভূঁইয়া, মাসুদ রানা, প্রকৌশলী রাহাদ উজ জামান, শাখাওয়াত হোসেন, শ্রমিক লীগের সাবেক আহবায়ক, সোহেল বিন রানা, আওয়ামী লীগ মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাতেন, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন, মহানগর শাখা  ছাত্রলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, সোহেল আকন ও ডলারঞ্জন দাস প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বক্তারা, ২৫ মার্চ কাল রাতকে আন্তর্জাতিকভাবে গণহত্যা দিবস হিসাবে স্বীকৃতি প্রদানের দাবি জানান। এ সময় বক্তারা  বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে চারদিকে একের পর এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং এর পেছন কোন নাশকতা বা গাফিলতি আছে কিনা, তাহা খুঁজে বের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান। দোয়া ও আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য, হুমায়ূন কবির আমির, হাবিবুর রহমান ও প্রদীপ কুমার বিশ্বাস, নিলায় প্রাদেশিক আওয়ামী লীগের সভাপতি, রানা রাকিব, মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতা মো. আলী আব্দুল ওয়াহিদ, মালয়েশিয়া বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন এর সভাপতি, আনোয়ার হোসেন, বাবলা মজুমদারসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যাক নেতাকর্মী। আলোচনা সভা শেষে বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহীদ ও অগ্নিকান্ডে নিহতদের আত্নার মাগফেরাত কামনা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয় । কেআই/    

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি