ঢাকা, ২০১৯-০৪-২৬ ৮:৪১:৫৪, শুক্রবার

রমজানে নিত্যপণ্যের মূল্য স্বাভাবিক থাকবে: কৃষিমন্ত্রী

রমজানে নিত্যপণ্যের মূল্য স্বাভাবিক থাকবে: কৃষিমন্ত্রী

পবিত্র রমজান মাসে দ্রব্যমূল্য ভোক্তাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রাখতে সচেষ্ট থাকবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন ব্যবসায়ী নেতারা। এ ছাড়াও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন বাজারের মূল্য পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ফলে আসন্ন রমজান মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য অস্বাভাবিক হবে না বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক।  বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে একাধিক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান কৃষিমন্ত্রী। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির অনুপস্থিতিতে সংসদে তার পক্ষে প্রশ্নের উত্তর দেন কৃষিমন্ত্রী। তিনি জানান, পবিত্র রমজান উপলক্ষে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে প্রতিদিন দু’টি করে মোট ১৪টি টিম ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন বাজারে মূল্য পর্যবেক্ষণ কাজে নিয়োজিত রয়েছে। বাজার মনিটরিং টিম বিভিন্ন পাইকারি ও খুচরা বাজার নিয়মিতভাবে পরিদর্শন করে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর মূল্য, মজুদ ও সরবরাহ পরিস্থিতি সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে থাকেন। কোনোরূপ অস্বাভাবিক অবস্থা/পরিস্থিতি হলে সে সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। এ টিম ব্যবসায়ীদের প্রেষণ প্রদান এবং প্রয়োজনে জরিমানাসহ অন্যান্য শাস্তি আরোপ করে থাকে। আরকে//
ডিজিটাল বিসিএস অলিম্পিয়াডের আয়োজন করল রবি

দেশের সর্ববৃহৎ অনলাইন স্কুল রবি টেন মিনিট স্কুলের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো ডিজিটাল বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) অলিম্পিয়াডের আয়োজন করেছে রবি। রবি টেন মিনিট স্কুলের অ্যাপ এবং এর ওয়েবসাইট  www.10minuteschool.com এর মাধ্যমে ডিজিটাল বিসিএস অলিম্পিয়াডে অংশ নেওয়া যাবে। রবি দেশব্যাপী সর্ববৃহৎ ৪.৫জি নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার ফলে ডিজিটাল বিসিএস অলিম্পিয়াডের মতো উদ্যোগগুলো দেশব্যাপী অসংখ্য মানুষের কাজে লাগছে। মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে ডিজিটাল অলিম্পিয়াডে এক লাখের বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে গেছে। ইতোমধ্যে দেশের ৬৪ জেলার ৪০ হাজার রবি গ্রাহক ডিজিটাল কুইজ-ভিত্তিক বিসিএস অলিম্পিয়াড পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। গুগল প্লে স্টোর থেকে রবি টেন মিনিট স্কুল অ্যাপ ডাউনলোড করে যে কেউ ডিজিটাল অলিম্পিয়াডে দেশের যেকোন প্রান্ত থেকে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন।  রবি বা এয়ারটেল নাম্বার দিয়ে ডিজিটাল বিসিএস অলিম্পিয়াডে নিবন্ধিত হয়ে এ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন আগ্রহীরা। রবি টেন মিনিট স্কুলের জাতীয় লিডবোর্ড ফিচারের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীরা অন্যান্য প্রতিযোগীদের তুলনায় নিজের অবস্থান যাচাই করে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। সিভিল সার্ভেন্ট হিসেবে গৌরব ও মর্যাদার সঙ্গে দেশ সেবা করার সুযোগ থাকায় প্রতিবছর এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন তিন থেকে চার লাখ প্রতিভাবান তরুণ। দেশের প্রথম ডিজিটাল বিসিএস অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়ে বিসিএস’র জন্য নিজের প্রস্তুতিকে আরও শাণিত করে নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন শহর বা গ্রামের যে কোন তরুণ। কেআই/

ব্যাংক এশিয়ার সঙ্গে গ্রামীন ইউগলেনার সঙ্গে চুক্তি

কৃষকদের ডিজিটাইজেশন পেমেন্ট সেবা নিশ্চিত করার লক্ষে ব্যাংক এশিয়া লি. ও গ্রামীন ইউগলেনা (বাংলাদেশ ও জাপানের একটি যৌথ সামাজিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান) এর সঙ্গে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। ব্যাংক এশিয়া লি. এর প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আরফান আলী ও গ্রামীণ ইউগলেনার কো-সিইও মি. ইউকোহ সাতাকে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বাক্ষর শেষে চুক্তিপত্র হস্তান্তর করেন। ২৫ এপ্রিল ব্যাংকের স্কশিয়া শাখায় অনুষ্ঠিত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ব্যাংকের স্কশিয়া শাখা প্রধান তানফিজ হোসেন চৌধুরী, টাওয়ার শাখা প্রধান মো. আবদুল লতিফ, গ্রামীণ ইউগলেনার মিস আয়া সুজিবায়াসি, ব্লু নাম্বার এর কাশফিয়া আহমেদসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এ প্রজেক্টের আওতায় গ্রামীণ কৃষকদের প্রয়োজনীয় সকল আর্থিক সেবা প্রদান করা হবে। কেআই/  

টেকসই রাজস্ব আহরণে বাজেটে নীতিগত পরিবর্তন প্রয়োজন

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সংগঠন ফরেন ইনভেস্টর’স চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফ আইসিসিআই) প্রেসিডেন্ট শেহজাদ মুনিম বলেন, ঘাটতি কমিয়ে রাজস্ব আয় বাড়াতে প্রতিবছরই বাজেটে কিছু নীতিগত পরিবর্তন আনা হয়। টেকসই রাজস্ব আহরণে এই পরিবর্তনগুলোর বিষয়ে বাজেট পরবর্তী মূল্যায়ন প্রয়োজন। কারণ নীতিগত পরিবর্তনগুলো কাজে না আসলে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ব্যাহত হয়। বৃহস্পতিবার রাজধানীর রেডিসন ব্লু হোটেলে অনুষ্ঠিত এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।  আসন্ন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটকে সামনে রেখে দৈনিক সমকাল ‘টেকসই রাজস্ব আহরণ: আমাদের অবস্থান’ শীর্ষক এই গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে। এতে সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি বৈঠকে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন। শেহজাদ মুনিম বলেন, বিশ্বের সবদেশেই দেখা যায়, রাজস্ব ফাঁকির মাত্র ১০ ভাগ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ধরতে পারেন। তাই শাস্তির এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে যেন সবাই বুঝতে পারে, ফাঁকি দিয়ে পার পাওয়া যাবে না।  ইন্টারন্যাশনাল গেটওয়ে (আইজিডব্লিউ) অপারেটরস ফোরামের চীফ অপারেটিং অফিসার মুশফিক মনজুর বলেন, ভিওআইপি খাতে ২০১৫ সাল থেকে এ বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয় করেছে সরকার। কিন্তু অবৈধ ভিওআইপি না থাকলে এ রাজস্ব আয় আরও অনেক বেশি হতো। বাংলাদেশ সিগারেট ম্যানুফ্যাকচারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিসিএমএ) মুখপাত্র শেখ শাবাব আহমেদ বলেন, সরকারের রাজস্ব আয়ের প্রায় ১০ ভাগ তামাক খাত থেকে আসে। গত নয় মাসে তামাক খাত থেকে সরকারের সাড়ে ২০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আহরণের লক্ষ্য থাকলেও আয় হয়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রা থেকে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা আদায় হয়নি। এর বড় কারণ গত বছর সরকার নিম্মস্তরের ১০ শলাকার এক প্যাকেট সিগারেটের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে ৩৫ টাকা। এর আগের বছর এই প্যাকেটের দাম ছিল ২৭ টাকা। এক বছরেই প্যাকেট প্রতি দাম বেড়েছে আট টাকা অর্থাৎ প্রায় ৩০% মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অবৈধ বাজার গড়ে উঠেছে। যেখানে সরকারকে ৩৫ টাকার এক প্যাকেট সিগারেটে ৭১ ভাগ কর দিতে হয় সেখানে অবৈধ সিগারেট ১৫ থেকে ২০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। বৈঠকে আরও বক্তব্য রাখেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অতিরিক্ত কমিশনার (বৃহৎ করদাতা ইউনিট) মোহাম্মদ শফি উদ্দিন, র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সারওয়ার আলম, সিআইডি’র বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম এবং আইজিডব্লিউ অপারেটরস ফোরামের সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম।  এই আলোচকগণ রাজস্ব ফাঁকি রোধে সমন্বিতভাবে কাজ করার এবং শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিজস্ব উদ্যোগে তথ্য সরবরাহ ও আইনগত দিকটির দায়িত্ব নিয়ে আইন- শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগিতার আহবান জানান। কেআই/

ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি ৭৭৪৮ মিলিয়ন ডলার

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ৭ হাজার ৭৪৮ দশমিক ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের ৮৭৩ দশমিক ৩ মিলিয়ন ডলার রফতানির বিপরীতে আমদানির পরিমাণ ৮ হাজার ৬২১ দশমিক ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য সহিদুজ্জামানের প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এসব তথ্য জানান। জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর পর্বে বাণিজ্যমন্ত্রীর অনুপস্থিতিতে প্রশ্নের জবাব দেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। মন্ত্রীর তথ্য অনুযায়ী, সার্কভুক্ত অন্য দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে। এর মধ্যে পাকিস্তানের সঙ্গে ৪৭১ দশমিক ৪ মিলিয়ন ডলার, ভুটানের সঙ্গে ২৭ দশমিক ৯ মিলিয়ন ডলার, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ১৬ দশমিক ২ মিলিয়ন ডলার, মালদ্বীপের সঙ্গে ১২ দশমিক ৯ মিলিয়ন ডলার ও আফগানিস্তানের সঙ্গে ২ মিলিয়ন ডলার। ঢাকা-২০ আসনের সংসদ সদস্য বেনজীর আহমদের প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ‘দেশের সাড়ে ১৬ কোটি জনসংখ্যার জন্য প্রতিদিন ৫০৯ গ্রাম হিসাবে বছরে ৩০৬ লাখ ৫৫ হাজার টন খাদ্যশস্যের চাহিদা আছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৩১৯ লাখ ২৬ হাজার টন চাল ও ৯ লাখ ৩৪ হাজার টন গম উৎপাদিত হয়েছে। বর্তমানে চাহিদার চেয়ে বেশি খাদ্যশস্য উৎপাদন হয়। তাই খাদ্যের কোনো ঘাটতি নেই।’ আরকে//

দুই কার্যদিবস পর সূচকের উত্থান

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) পুঁজিবাজারে সূচকের উত্থান হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচকের সঙ্গে বেড়েছে লেনদেন। টানা দুই কার্যদিবস পর পুঁজিবাজারে সূচকের উত্থান হলো। গত মঙ্গল ও বুধবার পুঁজিবাজারে সূচকের পতন হয়েছিলো। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এদিন ডিএসই’র সাধারণ সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ২৫ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ২৬৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অন্য সূচকের মধ্যে শরীয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ৪ দশমিক ১৯ পয়েন্ট কমে যথাক্রমে ১ হাজার ২১৪ ও ১ হাজার ৮৬৩ পয়েন্টে রয়েছে। অপরদিকে বৃহস্পতিবার লেনদেন শুরুর থেকে সূচকের উত্থান দেখা যায়। লেনদেন শুরুর প্রথম ৫ মিনিট সূচক ৭ পয়েন্ট বাড়ে। এরপর সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক আরো ২০ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১১টার দিকে সূচকের অবস্থান স্থির থাকে। এদিন লেনদেন শুরুর দেড় ঘণ্টা পর অর্থ্যাৎ দুপুর ১২টায় ডিএসই’র সাধারণ সূচক ডিএসইএক্স কিছুটা কমলেও আগের দিনের চেয়ে ১০ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ২৫০ পয়েন্টে অবস্থান করে। ডিএসই শরীয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট কমে যথাক্রমে ১ হাজার ২১৪ ও ১ হাজার ৮৬৫ পয়েন্টে রয়েছে। দুপুর ১টার দিকে সূচক কিছুটা কমলেও এরপর সূচক বেড়ে দিনের লেনদেন শেষ হয়। ডিএসইতে এদিন টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৩৮২ কোটি ৯৭ লাখ টাকার। যা আগের দিন থেকে ৫০ কোটি টাকা বেশি। আগের দিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিলো ৩৩২ কোটি ৮৪ লাখ টাকার। এদিকে, বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৩৪৪টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ২০২টির, কমেছে ১০২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর। ডিএসইতে এদিন টাকার পরিমাণে সর্বোচ্চ লেনদেন হওয়া ১০টি কোম্পানি হলো- ফরচুন সুজ, মুন্নু সিরামিক, ন্যাশনাল টিউবস, বিএসসিসিএল, ব্র্যাক ব্যাংক, ফাইন ফুড, ইউনাইটেড পাওয়ার, একটিভ ফাইন, সুহৃদয় ও যমুনা ব্যাংক। অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১০২ পয়েন্ট বেড়ে ১৬ হাজার ১৪৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৩৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৪৫টির, কমেছে ৭৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির দর। বৃহস্পতিবার সিএসইতে ১৮ কোটি এক লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিনের চেয়ে ৫ কোটি টাকা বেশি। আগের দিন লেনদেন হয়েছিলো ১৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। আরকে//

খরচ কমল কোম্পানি নিবন্ধনের 

নিবন্ধন সম্পর্কিত কোম্পানির বিভিন্ন ধরনের খরচ কমিয়েছে সরকার। এর আগে ২০ হাজার টাকা মূলধন হলে কোম্পানি নিবন্ধনের জন্য সরকারের নিবন্ধকের কার্যালয়কে ৭০০ টাকা ফি দিতে হতো। এ ছাড়া ২০ হাজার টাকার বেশি মূলধনের কোম্পানি বিভিন্ন ধাপে ধাপে নিবন্ধন ফি ছিল। এখন থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত মূলধনের কোম্পানি নিবন্ধনে কোনো ফি লাগবে না। একইভাবে কোম্পানির ডিজিটাল সনদ সরবরাহে নিবন্ধকের কার্যালয় প্রতিবারের জন্য এক হাজার টাকা নিত। এই খরচও তুলে নিয়েছে সরকার। বিনা পয়সায় ডিজিটাল সনদ সরবরাহ করবে নিবন্ধকের কার্যালয়। সম্প্রতি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নিবন্ধকের ফি-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে। নতুন ফি কার্যকর হয়েছে বুধবার থেকে। যৌথ মূলধনী কোম্পানির নিবন্ধনের কার্যালয় নতুন যেসব ফি নির্ধারণ করেছে, তাতে ৫০ লাখ পর্যন্ত মূলধনের কোম্পানির নিবন্ধনে ১০ লাখ টাকার ঊর্ধ্বে প্রতি লাখে ৫০ টাকা নিবন্ধন ফি ধরা হয়েছে, যা আগে ছিল প্রতি ১০ হাজারে ৫০ টাকা। এ ছাড়া ৫০ লাখ টাকার ঊর্ধ্বের মূলধনের কোম্পানি নিবন্ধনে প্রতি লাখে ৮০ টাকা নিবন্ধন ফি ধরা হয়েছে, যা আগে ছিল ১০০ টাকা। কোম্পানির দলিল দাখিলের ফি ২০০ টাকা থেকে কমিয়ে ১০০ টাকা করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় ও অনুমোদিত কোনো কিছু লিপিবদ্ধ করার ফি ৪০০ টাকা থেকে অর্ধেক কমিয়ে ২০০ টাকা করা হয়েছে। বন্ধক বা ডিবেঞ্চার ও চার্জ নিবন্ধনের ফিও কমানো হয়েছে। কোম্পানির সদস্য সংখ্যা ২০ জনের কম হলে তার নিবন্ধন ফি এক হাজার টাকা করা হয়েছে, যা আগে এক হাজার ২০০ টাকা ছিল। ২০ জনের বেশি কিন্তু ১০০ জনের কম সদস্যের কোম্পানির ফি ৫০০ টাকা কমিয়ে আড়াই হাজার টাকা করা হয়েছে। সংঘবিধিতে কোম্পানির সদস্য অনির্দিষ্ট থাকলে নিবন্ধন ফি ৯ হাজার থেকে কমিয়ে সাড়ে ৭ হাজার টাকা করা হয়েছে। একইভাবে আরও কিছু ফি কমানো হয়েছে। বিশ্বব্যাংক সহজে ব্যবসা করা বা ডুয়িং বিজনেস র‌্যাংকিং করার জন্য ১১টি সূচক বিবেচনায় নেয়। এর মধ্যে প্রথম সূচক হচ্ছে ব্যবসা শুরু করার প্রক্রিয়া। কোম্পানির নিবন্ধন ব্যয় কমানোর ফলে ব্যবসা শুরুর সূচকে বাংলাদেশের উন্নতি হবে। সর্বশেষ ডুয়িং বিজনেস রিপোর্টে বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করার ব্যয় মানুষের মাথাপিছু আয়ের ২২ দশমিক ৮২ শতাংশ। নিবন্ধন খরচ কমায় ব্যয় ৫ শতাংশে নেমে আসবে বলে আশা করছে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)। বিডার কর্মকর্তারা জানান, ব্যবসা সহজ করার জন্য ডুয়িং বিজনেস পরিস্থিতির উন্নয়নের জন্য আরও কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। শিল্পকারখানায় বিদ্যুৎ সংযোগ প্রাপ্তি সহজ করা হয়েছে। এতদিন কারখানায় বিদ্যুৎ সংযোগের আগে পরিবেশের ছাড়পত্র লাগত। এখন থেকে পরিবেশের ছাড়পত্র ছাড়াই বিদ্যুৎ সংযোগ মিলবে। অনলাইনে মূসক নিবন্ধন হবে এবং পরে তদন্ত করা হবে না। এসব কিছু মিলিয়ে বিডা একটি প্রতিবেদন আগামী ৩০ এপ্রিল বিশ্বব্যাংকে জমা দেবে। বিশ্বব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে ১৯০টি দেশের মধ্যে ডুয়িং বিজনেস সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭৬তম। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বিনিয়োগ বৃদ্ধি না পাওয়ার যেসব কারণ রয়েছে তার মধ্যে এ সূচকে পেছনে থাকা অন্যতম। এ জন্য সরকার এই সূচকের উন্নয়নে বেশ জোর দিয়েছে। এসএ/  

আরও ৫০ হাজার টন গম কিনবে সরকার

সরকার আন্তর্জাতিক বাজার থেকে আরও ৫০ হাজার টন গম আমদানি করবে। এজন্য ব্যয় হবে ১১২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে ক্রয় কমিটির বৈঠকে এ-সংক্রান্ত দর প্রস্তাবের অনুমোদন দেওয়া হয়। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে বৈঠকে আরও তিন প্রকল্পের দর প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। এর আগে অর্থনৈতিক বিষয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নাসিমা বেগম সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে চলতি অর্থবছরে প্যাকেজ-১১-এর আওতায় ৫০ হাজার টন গম আমদানি করা হবে। প্রতি টন ২৬৭ দশমিক ৯৮ মার্কিন ডলার হারে এ গম সরবরাহের কাজ পেয়েছে কর্প ইন্টারন্যাশনাল। এদিকে, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য নিউক্লিয়ার ফুয়েল (ইউরেনিয়াম) কিনবে সরকার। এ-সংক্রান্ত ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটি। চুক্তি অনুযায়ী রাশিয়া থেকে ইউরেনিয়াম কেনা হবে। এসএ/  

পারটেক্স স্টার গ্রুপকে ব্যবসায়িক সহায়তা দেবে ওরাকল ক্লাউড

বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ, বৈচিত্রপূর্ণ প্রতিষ্ঠান পারটেক্স স্টার গ্রুপ তাদের অন-প্রিমিসিস এন্টারপ্রাইজ রিসোর্স প্ল্যানিংকে (ইআরপি) সফলভাবে ওরাকল ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচারে স্থানান্তর করেছে। পুরো প্রক্রিয়াটি শেষ করতে এবং ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধির লক্ষে প্রতিষ্ঠানটিতে ক্লাউড সম্প্রসারনে মাত্র এক মাস সময় লেগেছে। ওরাকল ক্লাউড অবকাঠামোয় স্থানান্তরের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি আগের চেয়ে ভালো কর্মক্ষমতা, নিয়ন্ত্রণ, পরিচালনার দক্ষতা অর্জন করেছে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানের সার্বিক খরচ কমেছে।  পারটেক্স স্টার গ্রুপে ১০ হাজারেরও বেশি প্রত্যক্ষ কর্মী রয়েছে। ভোক্তা পণ্য সামগ্রী, আসবাবপত্র, টেক্সটাইল এবং অন্যান্য প্রযুক্তি খাত মিলিয়ে ২৫ টিরও বেশি শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে যা প্রতিনিয়তই সম্প্রসারিত হচ্ছে। এর ক্রমবর্ধমান কার্যক্রমে আরো ভালো অভিজ্ঞতা দিয়ে সহযোগিতা করতে এবং আকস্মিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় নতুন নতুন সুবিধা দেয়ার প্রয়োজনীয়তা থেকেই প্রতিষ্ঠানটি ওরাকল ক্লাউড অবকাঠামো গ্রহণ করেছে। পারটেক্স স্টার গ্রুপের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম বলেন, “বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা নিয়ে আমাদের প্রতষ্ঠান পারটেক্স। আমাদের এমন একটি ক্লাউড প্লাটফর্মের প্রয়োজন ছিল যা উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ ছাড়াই আমাদের প্রতিষ্ঠানের সাথে সামঞ্জসপূর্ণ হয়।” তিনি আরো বলেন, “ওরাকল ক্লাউড ইনফ্রাসট্রাকচার আমাদের প্রয়োজনীয় দক্ষতা, উপযোগিতা এবং যুতসই সেবা সরবরাহ করবে, যার ফলে আমরা আশা করছি এটি আমাদের সার্বিক কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।” ওরাকল ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচারের কম্পিউটিং শক্তিকে কাজে লাগিয়ে প্রতিষ্ঠানটি মিশন ক্রিটিক্যাল ডাটাবেস, নানা ধরনের অ্যাপলিক্যাশন ও ওয়ার্কলোডসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আরো ভালো কর্মক্ষমতা দিবে এবং একই প্লাটফর্মে গতানুগতিক এবং ক্লাউড-নেটিভ ওয়ার্কলোড পরিচালিত হবে। পরবর্তীতে ওরাকল ক্লাউড ইনফ্রাস্ট্রাকচার পারটেক্স গ্রুপ পরিচালনায় সার্বিক খরচ কমাবে এবং এর ভিন্ন ব্যবসার মধ্যে সংযোগ ও তথ্য আদান-প্রদানে সক্ষমতা আনবে। ওরাকল এসএজিই’এর ক্লাউড প্লাটফরম গ্রুপের সেলস ডিরেক্টর নিলান্থা ব্রিত বলেন, “বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে দ্রুত ব্যবসা সম্প্রাসরণ এবং প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত প্রযুক্তির সাথে তাল মেলাতে সহযোগিতা করছে ওরাকল ক্লাউড। এই ইনফ্রাসট্রাকচার গ্রহণ করে পারটেক্স গ্রুপ দ্রুত তাদের বিনিয়োগের সুফল ভোগ করতে পারবে। সত্যিকারের ব্যবসায়িক ক্লাউডের সুবিধা পাবে যা তাদের চলমান ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধিকে নিরবিচ্ছিন্নভাবে সহযোগিতা করে যাবে।” উল্লেখ্য, ওরাকল পার্টনার নেটওয়ার্কের অংশ এবং গোল্ড মেম্বার শ্রীলঙ্কার ‘সফটলাইন’ পারটেক্স স্টার গ্রুপের ক্লাউড ইনফ্রাসট্রাকচার বাস্তবায়নের কাজ করেছে। এসি  

ডিজিটাল রূপান্তরকে নিরাপদ ও শক্তিশালী করতে চায় রেড হ্যাট

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় মুক্ত সফটওয়্যার কোম্পানি রেড হ্যাট বাংলাদেশে তাদের ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে চায়। তাদের সেবা দেশের ডিজিটাল রূপান্তর প্রক্রিয়াকে নিরাপদ ও শক্তিশালী করবে বলে মনে করছে বহুজাতিক আমেরিকান কোম্পানিটি। ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সরকারি সংস্থা এবং টেলিকম খাতের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করার লক্ষ্য তারা নির্ধারণ করেছে। বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে এক সাংবাদিক সম্মেলনে রেড হ্যাট ইন্ডিয়া ও সাউথ এশিয়ার জেষ্ঠ্য কর্মকর্তারা এ তথ্য জানান। সাংবাদিক সম্মেলনে রেড হ্যাট ইন্ডিয়া ও সাউথ এশিয়ার পার্টনার, অ্যালায়েন্সস অ্যান্ড কমার্শিয়াল সেলস পরিচালক নিরাজ ভাটিয়া, সল্যুশন আর্কিটেকচার পরিচালক অমিতা রায় এবং হেড অব সেলস- স্টেট গভর্নমেন্ট অ্যান্ড কমার্শিয়াল বিজনেস পলাশেন্দু ভট্টাচার্য্য বক্তব্য রাখেন। তারা বলেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম শীর্ষ সফটওয়্যার ব্যবহারকারী দেশে পরিণত হবে। এ প্রযুক্তিগত রূপান্তর প্রক্রিয়াকে নিরাপদ ও টেকসই করতে মুক্ত সফটওয়্যারের যথাযথ ব্যবহার প্রয়োজন। রেড হ্যাট অংশীজনদেরকে নিয়ে তা নিশ্চিত করতে কাজ করবে। নিরাজ ভাটিয়া বলেন, ওপেন সোর্স বাংলাদেশের ডিজিটাল অর্থনীতিতে উদ্ভাবনী গতি দিবে। গত কয়েক বছরে দেশে ক্লাউড কম্পিউটিং জনপ্রিয় হচ্ছে। মানুষ এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এটি গ্রহণ করছে। রেড হ্যাট স্থানীয় ব্যবসায় উন্মুক্ত হাইব্রিড ক্লাউড সমাধান আনতে উদ্ভাবনমূলক কাজ করবে। ব্যবসার সম্প্রসারণে এটি আধুনিকতম সমাধান আনছে। অমিতা রায় বলেন, বিশ্বজুড়ে ডিজিটাল বিচ্যুতির বিপরীতে ভালো সমাধান নিয়ে এসেছে ওপেন সোর্স সল্যুশন। প্রযুক্তির পরিবর্তনের সাথে এটি দ্রুতই পরিবর্তিত হয় বলে এর ব্যবহারও সহজ এবং নিরাপদ। গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ী এটি নতুন বৈশিষ্ট্য পরিমাপ করতে এবং সংশোধন করতে সক্ষম। অপেক্ষাকৃত কম অবকাঠামো এবং সফটওয়্যার খরচ কম হওয়ার কারণে ওপেন সোর্স ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং ডেভেলপারদেরকে উন্মুক্ত, নমনীয় এবং সাশ্রয়ী ব্যবস্থাপনায় কাজ সম্পন্ন করার সুযোগ দেয়। অন্য সফটওয়্যারের চেয়ে এ মুক্ত সল্যুশনের নিয়ন্ত্রণও সহজ। আইটি অবকাঠামো এবং অ্যাপ্লিকেশন নির্মাণে ভেন্ডরদের সাথে দীর্ঘসূত্রিতা এবং সময়ক্ষেপন রোধ করে রেড হ্যাটের ওপেন সোর্স সল্যুশন। পলাশেন্দু ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘ক্লাউড কম্পিউটিং, কন্টেইনারস, মোবাইল, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, মেশিন লার্নিংয়ের মত উদ্ভাবনগুলোর মূলেও রয়েছে ওপেন সোর্স সল্যুশন। এয়ারলাইনস, কমার্শিয়াল ব্যাংক এবং টেলিকম খাতের শতভাগ ফরচুন ৫০০ কোম্পানি রেড হ্যাটের সেবা গ্রহণ করছে।’ এসি  

জিপি অ্যাকসেলেরেটরে স্টার্টআপদের জন্য আবেদন আহ্বান

প্রযুক্তি বিষয়ক উদ্ভাবক ও স্টার্টআপদের সহায়তায় ‘জিপি অ্যাকসেলেরেটর ২.০’ প্রোগ্রামের জন্য দেশব্যাপী আবেদন গ্রহণের ঘোষণা দিয়েছে গ্রামীণফোন। বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ ঘোষণা দেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। অন্যান্যদের মধ্যে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী মাইকেল ফোলি, ডেপুটি সিইও ও সিএমও ইয়াসির আজমান, হেড অব ডিজিটাল সোলায়মান আলম, কমিউনিকেশনসের ডিরেক্টর তালাত কামাল এবং প্রতিষ্ঠানটির হেড অব স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম মিনহাজ আনওয়ার। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, চলতি বছর ‘জিপি অ্যাকসেলেরেটর ২.০’ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে দেশব্যাপী প্রযুক্তি বিষয়ক উদ্ভাবক ও স্টার্টআপদের কাছে পৌঁছানোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে গ্রামীণফোন। পাশাপাশি, এ পদক্ষেপের মাধ্যমে প্রযুক্তি বিষয়ক উদ্ভাবক ও স্টার্টআপদের ধারণাকে প্রি-অ্যাকসেলেরেটরের মাধ্যমে মিনিমাম ভায়াবল প্রডাক্টে রূপান্তর সহায়তা করাও প্রতিষ্ঠানটির উদ্দেশ্য। প্রযুক্তি বিষয়ক উদ্ভাবক ও স্টার্টআপরা https://www.grameenphone.com/gp-accelerator-2.0- এ গিয়ে অনলাইনে নিবন্ধন করতে পারবেন। প্রি-অ্যাকসেলেরেটর ধাপে ২৫টি নির্বাচিত স্টার্টআপকে পণ্য গবেষণা, পণ্যের ডিজাইন বা নকশা, বৈধতা এবং প্রাতিষ্ঠানিক তথ্য সংক্রান্ত কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। আগামী ১৫ মে পর্যন্ত প্রি-অ্যাকসেলেরেটর রাউন্ডের জন্য আবেদনের সুযোগ রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি আরও জানায়, আরো দক্ষ স্টার্টআপগুলো আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত সরাসরি অ্যাকসেলেরেটর প্রোগ্রামের জন্য আবেদন করতে পারবে, যেখানে তারা প্রায় সাড়ে ৪ মাস দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে প্রশিক্ষণের সুযোগ পাবে। জিপিএ ২.০ হচ্ছে এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে বিনিয়োগকারী এবং ইকোসিস্টেমের গুরুত্বপূর্ণ স্টার্টআপগুলো এক হয়ে উদ্ভাবনী ধারণার বিচার-বিশ্লেষণ করে সেগুলো যথাযথভাবে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে কাজ করে। বিশ্বখ্যাত পরামর্শকদের কাছ থেকে নির্বাচিত স্টার্টআপগুলো বাণিজ্যিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হতে, ব্যবসায়িক পরিমাপকরণে এবং প্রবৃদ্ধি সংক্রান্ত সহায়তা পাওয়ার পাশাপাশি জিপি হাউজে কার্যালয়, জিপি ডিষ্ট্রিবিউশন চ্যানেলে অন্তর্ভুক্তি এবং দেশী ও বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছে ধারণা উপস্থানের সুযোগ পাবে। তারা জানায়, গত ২০১৫ সালে ‘জিপি অ্যাকসেলেরেটর’ শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত ২৬টি স্টার্টআপের মধ্যে ১৯টি স্টার্টআপ তাদের সেবা ও পণ্য বাণিজ্যিকভাবে চালু করেছে। অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘তথ্যপ্রযুক্তি খাতের প্রবৃদ্ধির লক্ষে সম্ভাব্য ব্যবসার সুযোগ তৈরির মাধ্যমে বর্তমান সরকার সহায়তার দিক থেকে শতভাগ প্রতিশ্রতিবদ্ধ, যা সার্বিকভাবে জাতীয় অর্থনীতিকে শক্তিশালী করবে। এক্ষেত্রে, স্টার্টআপগুলোর সহায়তায় জিপি অ্যাকসেলেরেটর প্ল্যাটফর্ম একটি অন্যন্য উদাহরণ। সকল অংশগ্রহণকারীদের প্রতি রইলো আমার শুভ কামনা।’ গ্রামীণফোনের প্রধান মাইকেল ফোলি বলেন, ‘বাংলাদেশে ডিজিটাল ইকোসিস্টেম তৈরির লক্ষে দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠান হিসেবে গ্রামীণফোন সরকারের সাথে সম্ভাব্য সকল ক্ষেত্রে কাজ করে যাচ্ছে। দেশের অগ্রগতিতে তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করতে এটি কার্যকরী একটি প্ল্যাটফর্ম বলে মনে করি আমরা, আর এই যাত্রায় সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে যুক্ত হতে পেরে গ্রামীণফোন আনন্দিত। বর্তমানে আমাদের দেশে দ্রুতগতিতে নতুন ব্যবসা ও ব্যবসায়িক ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। আর তাই আমাদের যেমন তরুণ প্রজন্মকে দরকার ঠিক তেমনি তাদের কাছেও আমাদের প্রয়োজনীয়তা ব্যাপক। গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও এবং সিএমও ইয়াসির আজমান বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের সত্যিকারের সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচনে আমাদের উদ্ভাবন ও তরুণদের সম্পৃক্ততা প্রয়োজন। দেশজুড়ে উচ্চগতির ডাটা নেটওয়ার্ক তৈরি ছাড়াও গ্রামীণফোন অ্যাকসেলেরেটর কর্মসূচির মাধ্যমে তরুণদের জন্য প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে। এ কর্মসূচিজুড়ে সমস্যার উদ্ভাবনী সমাধান নিয়ে আলোচনা করা হয় এবং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এ সমাধানের উন্নয়ন ঘটিয়ে বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি করে দেয়া হয়। এ ইকোসিস্টেমেরই অংশ হিসেবে গ্রামীণফোন উদ্ভাবনে সহায়তাদানে এবং তরুণদের অর্থপূর্ণভাবে সম্পৃক্ত করার ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’ গ্রামীণফোনের হেড অব স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম মিনহাজ আনওয়ার বলেন, ‘বাংলাদেশের স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমকে কয়েক ধাপ সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে গ্রামীণফোন অ্যাকসেলেরেটর ২.০ বিশেষ ভূমিকা রাখবে। এ উদ্যোগ সম্পূর্ণভাবে অংশীয়ারিত্বমূলক। এ কর্মসূচি এর অংশীদারদের লক্ষ্য যেমন পূরণ করে, তেমনি দীর্ঘমেয়াদে সুরক্ষিত ভবিষ্যত তৈরি করে।’ এসি  

আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের লভ্যাংশ ঘোষণা

আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিঃ ২০১৮ সালের জন্য ১৫% নগদ ও ২% বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। বুধবার (২৪ এপ্রিল) ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত পরিচালক পর্ষদের ৩৩৪তম সভায় এ লভ্যাংশ প্রদানের সুপারিশ করা হয়। ব্যাংকের চেয়ারম্যান আলহাজ্জ আব্দুস সামাদ লাবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আগামী ২২ জুন, ২০১৯ ব্যাংকের ২৪তম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) -এর তারিখ এবং ১৯ মে ২০১৯ রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়। এজিএম -এর অনুমোদন সাপেক্ষে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে সমাপ্ত বছরের জন্য উক্ত ডিভিডেন্ড প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সভায় পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্জ মোঃ আব্দুস সালাম, সদস্য আলহাজ্জ হাফেজ মোঃ এনায়েত উল্যা, আলহাজ্জ মোঃ লিয়াকত আলী চৌধুরী, মোঃ আমির উদ্দিন পিপিএম, আলহাজ্জ নাজমুল আহসান খালেদ, আলহাজ্জ আব্দুল মালেক মোল্লা, আলহাজ্জ মোঃ আনোয়ার হোসেন, আলহাজ্জ ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ, আলহাজ্জ আহামেদুল হক, আলহাজ্জ এ এন এম ইয়াহিয়া, আলহাজ্জ নিয়াজ আহমেদ, ডাঃ মোঃ শফিউল হায়দার চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন, খালিদ রহিম, এম কামালউদ্দিন চৌধুরী এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ফরমান আর চৌধুরী অংশগ্রহণ করেন। এসময় ব্যাংকের কোম্পানি সচিব ও সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ মাহমুদুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন নির্বাহীগণ উপস্থিত ছিলেন। এসি  

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি