ঢাকা, ২০১৯-০৬-১৯ ২৩:৫৫:৫০, বুধবার

‘বঙ্গবন্ধু’ একটি আদর্শের নাম

শোকাবহ ৬ আগস্ট

‘বঙ্গবন্ধু’ একটি আদর্শের নাম

  শুরু হয়েছে শোকের মাস। এই মাসেই জাতির জনককে সপরিবারে হত্য করা হয়। আজ ৬ আগস্ট। জাতি মহান এই নেতাকে স্মরণ করে। জাতি কৃতজ্ঞচিত্তে শোকের কর্মসূচির মাধ্যমে পুরো মাস তাকে স্মরণ করে। পথে-ঘাটে-পাড়া-মহল্লায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গান, মিছিল-স্লোগান ও তার ভাষণ শুনতে পাওয়া যায়। কিন্তু জাতীয় জীবনে তার আদর্শের চর্চা চোখে পড়ে খুব কমই বলে অনেকেই অভিযোগ করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার অপর নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার বাবা মায়ের কাছে আদরের নাম ‘খোকা’। শেখ মুজিবুর রহমানকে বলা হয় ‘হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি’, ‘স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা’, ‘জাতির পিতা’, ‘বঙ্গবন্ধু’, ‘বাংলাদেশের জনক’সহ আরও অনেক নামে। কিন্তু সার্বিকভাবে তিনি একটি আদর্শের নাম। যে আদর্শে উদ্ভূত হয়ে বাঙালি জাতি মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল, বিশ্বের বুকে জন্ম হয় স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। আমরা সবাই জানি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চেয়েছিলেন একটি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে। বাঙালি জাতিকে দীর্ঘদিনের শোষণ-বঞ্চনা থেকে মুক্ত করে বিশ্বের বুকে একটি মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে তুলে ধরতে। আর এসব করতে গিয়ে তিনি যা যা করেছেন, সেটাই তার আদর্শ। এ আদর্শের মূল কথা ত্যাগ আর সংগ্রাম। যেখানে ব্যক্তিস্বার্থ, লোভ, মোহ, পদ-পদবির ঊর্ধ্বে উঠে নিজের বিশ্বাসে অটল থেকেছিলেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে খুব সংক্ষেপে তুলে ধরা যায় এভাবে- ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়া, অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক-ধর্মনিরপেক্ষ-প্রগতিশীল রাষ্ট্র গড়ে তোলা আর মানুষের জন্য ভালোবাসা। আত্মসংযম, আত্মশুদ্ধি, আত্মসমালোচনা, সমাজের সর্বস্তরে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা, সমাজ থেকে দুর্নীতি নির্মূল ও শান্তি প্রতিষ্ঠা করা। আজীবন তিনি বাংলার মানুষের কথা চিন্তা করেছেন। বঙ্গবন্ধু ছিলেন ত্যাগী নেতা। সারা জীবন ত্যাগ করে গেছেন। বাংলার মানুষের জন্য ছিলেন নিবেদিত এক প্রাণ। বঙ্গবন্ধু ছিলেন আপোষহীন নেতা। তার অসংখ্যা প্রমাণ রেখে গেছেন তিনি। ১৯৪৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির দাবিতে ডাকা ধর্মঘটে নেতৃত্বদানের অভিযোগে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। পরে মুচলেকা দিয়ে ছাত্রত্ব ফেরত পাওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয় তাকে। কিন্তু বঙ্গবন্ধু রাজি হননি। এদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হতে পারা সবসময়ই সম্মান ও গর্বের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া প্রায় সব ছাত্রছাত্রীর স্বপ্ন। কিন্তু নিজের বিশ্বাস ও কাজে আস্থাশীল ছিলেন বলেই বঙ্গবন্ধু মুচলেকা দিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রত্ব ফেরত নেননি। জাতির জনক গণতন্ত্র ও মানুষের অধিকারের প্রশ্নে আপস করেননি বলেই তার জীবদ্দশায় তাকে ৪ হাজার ৬৭৫ দিন কারাগারে কাটাতে হয়েছে। অথচ পাকিস্তানি শাসকদের লোভনীয় প্রস্তাব মেনে নিয়ে তিনি অনায়াসেই বড় পদ নিয়ে আরাম-আয়েশে বিলাসী জীবন-যাপন করতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা করেননি। তিনি কখনও আদর্শ থেকে বিচ্যুত হননি।   এসএইচ/
বিশ্বকাপে `হানি শট` অনেকের জীবনে এনেছে পরিবর্তন

আকর্ষণীয় ও সুন্দরী সমর্থকদের অনেক সময়েই `জুম` করে বা খুব বড় করে তুলে ধরে। ভিডিওগ্রাফির পরিভাষায় যাকে কি-না বলে `হানি শট`। এবারের ফুটবল বিশ্বকাপে খেলা চলাকালীন সময়ে গ্যালারি থেকে বেছে বেছে সুন্দরী নারীদের ছবি প্রচারে আপত্তি তুলেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা। সম্প্রচারের দায়িত্বে থাকা ক্যামেরাগুলো বৈচিত্র্য তুলে ধরতে আকর্ষণীয় ও সুন্দরী সমর্থকদের অনেকসময়েই `জুম` করে বা খুব বড় করে তুলে ধরে। ভিডিওগ্রাফির পরিভাষায় যাকে কি-না বলে `হানি শট`। আর সেখানেই সমস্যা দেখছেন ফিফার ডাইভারসিটি প্রধান। তবে এমন `হানি শট` অনেকের জীবনে পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। বিশ্বের ক্ষমতাবান ও প্রভাবশালী নারীদের নিয়ে বিবিসির ১০০ নারী সিরিজে স্থান পাওয়া নাটালিয়া বেটটানকুর জানিয়েছেন তেমনটিই। ২০১৪ সালের ব্রাজিল ও কলম্বিয়ার খেলায় গ্যালারিতে নিজ দেশের সমর্থন জানাচ্ছিলেন নাটালিয়া। সেসময় তার ছবির প্রচার পরবর্তী জীবনে নাটালিয়াকে করে তোলে একজন মডেল এবং টিভি ব্যক্তিত্ব। ‘আমার কোনো ধারণাই ছিল না কখন ক্যামেরা আমাকে জুম করে তুলে ধরেছে। আর সেই সঙ্গে অবশ্যই জানতাম না যে পরবর্তীতে কী হবে এর ফল।’ বিবিসিকে এভাবে সে সময়ের কথা জানিয়েছেন নাটালিয়া। পপ স্টার রিয়ানার দৃষ্টি কাড়ে নাটালিয়ার ছবি আর তিনি সেটি তার টুইটারে প্রকাশ করেন `কলম্বিয়ান সুন্দরী` শিরোনামে। আর এতেই জীবন বদলে যায় তার। নাটালিয়া বিশ্বকাপ শেষে ব্রাজিল থেকে ফিরে আসার সময় জানতেনও না যে কি বিস্ময় অপেক্ষা করছে তার জন্যে। নাটালিয়া বলেন, ‘এই ছবি আমার জন্যে মিডিয়ার দরজা খুলে দেয়। এর আগে আমি আমার বন্ধুর সঙ্গে একটি নির্মাণ সামগ্রী সরবরাহ কোম্পানি খুলেছিলাম।’ এক মাসের মধ্যে নাটালিয়া চলে আসেন পুরুষদের একটি ম্যাগাজিনের প্রথম পাতায়। এখনো বন্ধুর সঙ্গে তার সেই নির্মাণ সামগ্রীর কোম্পানিটি থাকলেও নাটালিয়া দেশটির অনেকগুলো পণ্যের মডেল, সম্প্রতি তিনি কাজ করছেন চুলের সৌন্দর্য রক্ষার একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে। তবে বিশ্বকাপের শেষ সপ্তাহে এসে ফিফার ডাইভারসিটি প্রধান ফেডেরিকো আদিয়েচি সম্প্রচার কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেছেন ভিড়ের মাঝ থেকে খুঁজে খুঁজে আকর্ষণীয় নারীদের ছবি প্রচার না করতে। এই রাশিয়া বিশ্বকাপে আলোকচিত্র এজেন্সি গেটি ইমেজ প্রকাশ করেছিল `দা হটেস্ট ফ্যান অ্যাট দ্য ওয়ার্ল্ড কাপ` শিরোনামে একটি অ্যালবাম। যার মূল লক্ষ্য ছিল সুন্দরী তরুণীরা। পরে `বিবেচনায় দুঃখজনকভাবে ত্রুটি` বলে এটি তারা সরিয়ে ফেলে। ‘কলম্বিয়ার একটি টিভির রিয়ালিটি শো-তে অংশ নিয়ে আমার সুযোগ হয় সব তারকাদের সঙ্গে অংশ নেওয়ার, নাচানাচি করার।’ বলছিলেন নাটালিয়া। রাশিয়া বিশ্বকাপের শুরুতে বর্ণবৈষম্য নিয়ে উদ্বেগ থাকলেও পরবর্তীতে `সেক্সিজম` একটি বড় সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। বৈষম্য বিরোধী সংগঠন `ফেয়ার নেটওয়ার্ক` ও স্থানীয় পুলিশের সহায়তায় হয়রানির বিভিন্ন অভিযোগ খুঁজে বের করে শাস্তির ব্যবস্থা করছে ফিফা। এরই মধ্যে `দ্য ফ্যান গার্লস` নামে অনলাইন ভিত্তিক একটি গ্রুপ প্রকাশ করেছে খেলা দেখতে যাওয়া এমন কিছু নারী সমর্থকদের ছবি, যাকে তারা বলছে ‘ডিফারেন্ট কাইন্ড অব উইমেন’। কানাডায় একটি ফুটবল ম্যাচ দেখতে গিয়ে এমনই `হানি শট` থেকে পরবর্তীতে বিশ্বখ্যাত হয়েছেন এমন একজন তারকা হলেন পামেলা এন্ডারসন। তাই এসব `হানি শট`এর বিরোধিতা থাকলেও পক্ষের যুক্তিও তুলে ধরেছেন নাটালিয়া বেটটানকুর। ‘আমি মনে করি না এটি খুব আপত্তিকর। ফুটবল যে নারী পুরুষ উভয়ের জন্যেই খেলা হয় এতে বরং সেটিই প্রমাণ হয়,’ নাটালিয়ার বক্তব্য। ব্রাজিল বিশ্বকাপ ছিল নাটালিয়ার প্রথম অভিজ্ঞতা। এবারও রাশিয়ায় খেলা দেখতে এসেছেন তিনি এবং ইংল্যান্ড কলম্বিয়া ম্যাচে আবারো ধরা পরেছেন টেলিভিশন ক্যামেরায়। তার মতে, ‘এবারো আমাকে জুম করে দেখানো হয়েছে, আর আমারতো মনে হয় আগের চাইতে আরো হাসিখুশিই দেখাচ্ছিল।’ একে//

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি