ঢাকা, ২০১৯-০৫-২১ ২৩:৩৩:৩৩, মঙ্গলবার

প্রচণ্ড গরমে থাকুন স্বাভাবিক

প্রচণ্ড গরমে  অস্থির হয়ে উঠেছে জীবনযাত্রা। তাপমাত্রা অত্যধিক বাড়ার কারণে শরীর থেকে অধিক পরিমাণে ঘাম নিঃসৃত হচ্ছে। যে কারণে অস্বস্তির মাত্রাও বেড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে শরীরের তাপমাত্রা সহনীয় পর্যায়ে রাখতে পোষাক পরিচ্ছদে কিছুটা পরিবর্তন ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে। এছাড়া এসময় অনাকাঙ্ক্ষিত রোগবালাই থেকে দূরে থাকতে খাবার-দাবারেও কিছুটা পরিবর্তন জরুরি। আসুন জেনে নেই এই গরমে সঠিক পুষ্টি ও সুস্বাস্থ্য রক্ষায় যেসব বিষয়ে সচেতন হ্ওয়া দরকার- ১. সাবধানতা অবলম্বন করা: বাইরের খোলা জায়গার পানি, শরবত, বরফ মেশানো আখের রস খাওয়া থেকে বিরত থাকা। খোলা স্থানের খাবার গ্রহণের ফলে ডায়রিয়া, আমাশয় সহ নানান রোগে আক্রান্ত করে। এতে করে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়। সাথে আর্থিক ব্যয় বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যু ঝুঁকিও থাকে। ২.গরমে প্রধানত নিরাপদ এবং বিশুদ্ধ পানি পান করা। বাড়িতে তৈরি করা লেবুর শরবত, পানি জাতীয় শাকসবজি ও ফল বেশি খাওয়া। ৩. গরমে ডাব, তরমুজ, বাঙ্গি, বেলের শরবত এগুলো হাত ধুয়ে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নভাবে খাবারের জন্য উপযোগী করা প্রয়োজন। ৪.গরমে  হালকা খানার খা্ওয়া মাছ, মাংস, ভুনা, ভাজি, খিচুড়ি, পোলাও কমিয়ে পাতলা আম ডাল, পাতলা দুধ, টকদই, করলার বোল তরকারি,  শরবত, সালাদ, রসালো ফল খাওয়া যেতে পারে। ৩. গরমে সাদা ভাত; পোলাও, বিরানি, খিচুড়ি পরটা থেকে অনেক বেশি উপকারী। ৪. যারা নিয়মিত হাঁটেন, তারা শুধু সময় পরিবর্তন করলেই চলবে। যেমন সকালে না হেঁটে বিকাল/সন্ধ্যার পর হাঁটা আরামদায়ক। ৫. গরমে খুব বেশি হাঁটা, ব্যায়াম, অত্যধিক পরিশ্রম, অত্যাধিক খাদ্য গ্রহণ পরিহার করা। ৭. খাবারে মশলার ব্যবহার কমিয়ে হালকা খাবার গ্রহণ করা । অবশ্যই একটি নির্দিষ্ট পর্যায় পর্যন্ত খাবারের মশলা দেহের জন্য সহনীয়। অতিরিক্ত মশলাদার যেকোনো খাবারই দেহের তাপমাত্রা বাড়িয়ে দেয় এবং বিপাক ক্রিয়াকে ব্যাহত করে। ৮. যেকোনো মাংস, তা সে যতই স্বাস্থ্যকর উপায়ে রান্না করা হোক না কেন- গরমকালের জন্য সঠিক খাবার নয়। বিশেষ করে তন্দুরি, মশলাদার মাংস তো এ সময়ে স্বাস্থ্যকর নয়ই। এমনকি মাছ, তা সে পুষ্টিতে ভরপুর সামুদ্রিক মাছ হলেও যতোটা সম্ভব এড়িয়ে চলাই বাঞ্ছনীয়। কারণ আমিষ জাতীয় এই খাবারগুলো দেহকে উত্তপ্ত করে, ফলে ঘাম বেশি হয় এবং খাবার হজমে সমস্যা হয়। এ সময় ডায়েরিয়ায় ভোগারও অন্যতম কারণ হলো মাছ-মাংস। ৯. মাংসভর্তি বার্গার- তা সে যতো নামী ব্র্যান্ডের দোকান থেকেই কেনা হোক না কেন, এমনকি ঘরে তৈরি তেলে ভাজা-পোড়া জাতীয় যেকোনো নাশতা থেকেও গরমে শতহাত দূরে থাকতে হবে। ১০. চা বা কফি জাতীয় পানীয় দেহে তাপ বাড়ায়। তাই এগুলো এড়িয়ে চলাই উত্তম। চা ও কফির ক্যাফেইন এবং দোকানের অতিরিক্ত চিনিযুক্ত কেনা পানীয় দেহে পানি শ্যূন্যতা বাড়ায় এবং মুখ ফ্যাকাশে করে ফেলে। ১১. যেকোনো ধরনের সস দিয়ে তৈরি খাবার কিংবা শুধু সসও এ সময়ে খাদ্য তালিকায় রাখা উচিত নয়। বিশেষ করে, পনিরের সস পুরোপুরি এড়িয়ে চলতে হবে। সসের সাথে দেহে প্রবেশ করে প্রায় সাড়ে তিনশ’ ক্যালরি এবং এর ফলে আপনার দেহে ক্লান্তি আসবে, শরীর ভার ভার মনে হবে। কিছু সসে অতিরিক্ত মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট এবং লবণ থাকে। তাই সস ব্যবহার না করে খাবার যতোটা সম্ভব পুষ্টিসমৃদ্ধ এবং প্রাকৃতিক রাখুন। গরমে সুস্থ থাকতে হলে অবশ্যই নিয়ম মেনে খাবার গ্রহণ করা উচিত। নিজেকে সদা সতেজ ও উজ্জ্বল দেখাতে চাইলে এবং দেহে ঝরঝরে অনুভূতি চাইলে ক্ষতিকর খাবারগুলো এড়িয়ে চলুন এবং সুস্থ থাকতে সবুজ সবজি খান।

১১৮ তম জন্মজয়ন্তীতে শ্রদ্ধা জানাতে কবীর সমাধীস্থলে মানুষের ঢল

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৮ তম জন্মজয়ন্তীতে শ্রদ্ধা জানাতে তার সমাধীস্থলে ঢল নামে সর্বস্তরের মানুষের। এসময় কবির অসাম্প্রদায়িক মানবতাবোধ ধারণ করেই জঙ্গিবাদ প্রতিরোধের প্রত্যয় জানান তারা। আর তরুন প্রজন্মের মাঝে নজরুলের সাম্যবোধের চেতনা ছড়িয়ে দিতে কবির সৃষ্টিকর্মে একাধিক ভাষায় অনুবাদের উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানান স্বজনরা।  জাতীয় কবির জন্ম বাষির্কীতে তার সমাধীতে শ্রদ্ধা জানায় বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা-কর্মিরা। শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষও। তারা জানালেন ..শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। এসময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জঙ্গিবাদের বিষবৃক্ষের শেকড় উপড়ে আহবান জানান।বিএনপির পক্ষে শ্রদ্ধা জানান দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। দুঃশাষনের বিরুদ্ধে নজরুলই প্রেরণা বলে মন্তব্য করেন তিনি। বিদ্রোহের মূলমন্ত্র আর সম্প্রীতির চেতনা ছড়িয়ে দিতে তার সৃষ্টিকর্মের অনুবাদে উদ্যোগ নেযার দাবি কবির নাতনীরজঙ্গিবাদের কালো থাবা থেকে দেশ-জাতিকে বাঁচাতে নজরুলকে আরো বেশি পঠন-পাঠন জরুরী বলে মনে করছে বর্তমান প্রজন্ম।

দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন কমেছে

লেনদেন কমেছে দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে। একইসঙ্গে দর কমেছে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের। বৃহস্পতিবার ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দর বেড়েছে ১১৯টির, কমেছে ১৬২টির, আর ৪১টি প্রতিষ্ঠানের দর অপরিবর্তিত ছিল। দিন শেষে লেনদেন হওয়া শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বাজারমূল্য ছিল প্রায় ৫২৪ কোটি টাকা। আর ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসই-এক্স ১ পয়েন্ট বেড়ে উঠে আসে ৫ হাজার ৪১৩ পয়েন্টে। অন্যদিকে, সূচক বেড়েছে সিএসইতেও। সিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৩০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দর বেড়েছে ৮২টির, কমেছে ১০৮টির, আর ৪০টি প্রতিষ্ঠানের দর ছিল অপরিবর্তিত। আর মোট লেনদেন হয়েছে প্রায় ৩৩ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।  

এসএমএস করার সময় যে বিষয়গুলো অবশ্যই মনে রাখবেন

দৈনন্দিন নানা প্রয়োজনে আমরা সবাই কম বেশি এসএমএস করে থাকি। টেক্সট করি আপনি আমি সবাই। সময় বাঁচাতে বা বেকায়দায় পরে কল দেওয়া সম্ভব না হলে তখ দ্রুত একটা টেক্সট পাঠিয়ে দেওয়াটাতেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে থাকি অনেকেই। কিন্তু এই টেক্সট লিখতে গিয়ে অনেকেই কিছু বদ অভ্যাস তৈরি করে ফেলেন যা অন্যদের বিরক্তির কারণ তো বটেই, আপনার নিজেরও ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। এসএমএসে অতিরিক্ত LOLএর ব্যবহার: এসএমএস লেখার ক্ষেত্রেই অনেকেই এ কাজটা প্রচুর পরিমাণে করে থাকেন। টেক্সটের শুরু এবং শেষে অযথাই LOL জুড়ে দেন।হাসির কোনো কারণ নেই, বরং বেশ সিরিয়াস কোন আলোচনা চলছে এর পরেও তারা ক্রমাগত LOL ব্যবহার করেন। ব্যাপারটা মোটেও আকর্ষণীয় নয়, বরং অন্যদের কাছে আপনার ব্যক্তিত্ব কমিয়ে দেয়। অযথাই ছোট ছোট করে লেখা টেক্সট করার সময়ে অনেকেই সংক্ষেপে লেখেন। “ওকে” লেখার পরিবর্তে লেখেন “K”, প্রতিটা শব্দকে সংক্ষেপ করতে করতে এমন দুর্বোধ্য ভাষা তৈরি করে ফেলেন যে তার মর্মার্থ আর খুঁজে বের করা যায় না। এমন ছোট করে না লিখে অন্তত অন্যরা বুঝতে পারে এমনভাবে লিখুন। ইমোটিকনের অতিরিক্ত ব্যবহার মূলত ফেসবুক অথবা মেসেঞ্জারে অনুভূতি বোঝাতে স্মাইলি এবং এমন বিভিন্ন ধরণের ইমোটিকন বা ইমোজি ব্যবহার করা হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে রসিকতা করার সময়ে দু-একটা ইমোটিকন মজা লাগে বটে। কিন্তু আপনি যখন অতিরিক্ত ইমোটিকন ব্যবহার করবেন, একই ইমোটিকন বারবার দেবেন, অথবা কথার বদলে ইমোটিকন ব্যবহার করবেন সর্বত্র, তা নিতান্তই বিরক্তিকর হয়ে দাঁড়াবে। টেক্সটের উত্তর না দেওয়া ফেসবুকে মেসেজ দেখলেন অর্থাৎ “seen” হলো। এরপর সেই মেসেজের উত্তর না দিলে তিনি বুঝে যাবেন যে আপনি ইচ্ছে করেই তাকে ইগনোর করছেন। ভাবছেন ফোনে টেক্সট করলে এমনটা হবে না? হবে। আপনি দিনের পর দিন কারও টেক্সটের উত্তর না দিলে তিনি বুঝে যাবেন যে আপনি ইচ্ছে করে তাকে এড়িয়ে যাচ্ছেন। এভাবে কাউকে কষ্ট দিয়ে লাভ কী বলুন? ছোট হলেও একটা রিপ্লাই দিতে ভুলবেন না। কয়েকটা শব্দের টেক্সট করতে পারবেন না, এতটা ব্যস্ত আপনি নন নিশ্চয়ই।

কী লুকিয়ে আছে মুখের তিলে

মুখমণ্ডলের তিল সাধারণত চেহারার সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয়। অনেকে তিল পছন্দও করেন। তবে এই তিল যে মানুষের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের নির্দেশক সেটা হয়ত অনেকেই জানি না। এ বিষয়ে সংস্কার বা কুসংস্কার দার্শনিকদের ভাবিয়েছে যুগ যুগ ধরে। বিশেষ করে পুরাণের কাহিনীর ভাণ্ডার চীনের দার্শনিকরা জীবনের অনেক সময় ব্যয় করেছেন তিলের তেলেসমাতি আবিষ্কারে। আর চীনের জ্যোতিষবিজ্ঞানের ‍অনেকাংশজুড়ে রয়েছে তিল। বুক অব অসপিসিয়াস এবং ইনঅসপিসিয়াস ডেটসে এ ব্যাপারে বিষদ ব্যাখ্যাও রয়েছে। শুধু চীন নয়, আমাদের পূর্বপুরুষরাও কিন্তু কম যাননি। কোথাকার তিল কী নির্দেশ করে তা ইটিভি অনলাইনের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো। স্থান ১ থেকে ৩ আপনি শিশুসুলভ আচরণের অধিকারী তবে বিদ্রোহী। আপনার উৎসাহ এবং উদ্দীপনা থাকবে। আপনি সৃজনশীল এবং আপনাকে স্বাধীনতা দেওয়া হলে কাজকর্মে আপনি সফলতার স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম। আপনার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আপনাকে পছন্দ করবে। তবে কারো অধীনে কাজ করার চেয়ে আপনি নিজের উদ্যোগে কোনো কাজে হাত দিলে তাতে সফল হবেন বেশি। নিজেই নিজের বস হওয়ার সক্ষমতা রয়েছে আপনার। আপনি প্রতিশ্রুতিশীল মানুষ। স্থান-৪ আপনি আবেগপ্রবণ মানুষ। আপনার মধ্যে হুটহাট করে কাজ করার প্রবণতা রয়েছে, যা আপনাকে অনন্য করে তুলবে। তবে অনেক বেশি মতামত বা দিকনির্দেশনা থাকলে আপনি জটিলতায় পড়বেন। বিতর্কমূলক জায়গায় থাকলেও আপনাকে বিরক্তির পাত্র হতে হবে না। এ জায়গায় তিল থাকলে আপনি বদমেজাজী স্বভাবের। স্থান-৫ ভ্রুর উপরে তিল থাকলে আপনি ভাগ্যবান বা ভাগ্যবতী। তবে সৌভাগ্য আপনাকে অর্জন করে নিতে হবে। এর জন্য অন্য সবার চেয়ে আপনাকে বেশি পরিশ্রম করতে হবে। যা অর্জন করবেন তা ধরে রাখতে আপনাকে কৃপণ হতে হবে। কারণ দুষ্টু লোকেরা মিষ্টি কথা বলে আপনার সর্বনাশ করার তালে থাকবে। তাদের ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে, যারা আপনাকে অল্প সময়ে ধনী বানিয়ে দিতে চাইবে। অন্যকে বেশি বিশ্বাস করবেন না। আপনার সহজাত প্রবৃত্তির ব্যাপারে সজাগ থাকবেন। আপনার আর্থিক সচ্ছলতার বিষয়ে কাউকে হস্তক্ষেপ করতে দেবেন না। স্থান-৬ আপনি জ্ঞানদীপ্ত, সৃজনশীল, অভিজ্ঞ এবং সংস্কৃতিমনা। আপনার সৃজনশীলতা আপনার সৌভাগ্য, যশ ও সফলতার চাবিকাঠি। যাপিত জীবনের বিষয়ে আপনার হৃদকে প্রাধান্য দিতে হবে। যদি আপনি সাহসী হন, তবে সাফল্য অবশ্যাম্ভাবী। স্থান-৭ আপনি অধিকসংখ্যক সদস্যবিশিষ্টি পরিবারের কেউ। যে কারণে আপনার রয়েছে বিষাদগ্রস্ততা। তাই আপনি অসুখী, যা আপনার কাজ এবং জীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলে। আপনি যদি শান্তি চান তবে বিচ্ছিন্ন হয়ে যান আপনার আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে। স্থান-৮ এটা তিলের জন্য ভালো জায়গা নয়। আপনাকে দীনতা আলিঙ্গন করে থাকে। কারণ আপনি অমিতব্যয়ী। আপনার মধ্যে জুয়া খেলার ঝোঁক আছে। তবে কোথায় থামতে হবে তা আপনি জানেন। আপনি প্রেমের ভান করার ব্যাপারে সিদ্ধহস্ত। ভালো হয় যদি আপনি আপনার ভালোলাগার বিষয়গুলোর নির্ণায়ক হন। না হলে সমস্যায় পড়তে হতে পারে। স্থান-৯ এটা যৌন দুর্বলতাকে নির্দেশ করে। এটা অপ্রত্যাশিত তিল। পারলে আপনি ওটাকে মুক্তি দিন। কারণ ওটা আপনার দুর্দশার প্রার্থনা সঙ্গীত আর সমস্যার পাহাড়। স্থান-১০ নাকের নিচে তিল থাকা নির্দেশ করে যে, আপনি সৌভাগ্যের উত্তরপুরুষ। আপনি পরিবারের সদস্য দ্বারা পরিবেষ্টিত। আপনারও অনেক সন্তান এবং নাতিপুতি থাকবে, যারা আপনাকে জীবনভর সহায়তা করবে। স্থান-১১ অসুস্থতা আপনার সঙ্গী। আপনি অসুস্থ হয়েই মৃত্যুবরণ করবেন। তবে তিলটি বড় ও কালো রঙের হলে আপনি ওটাকে তুলে ফেলতে পারেন। না হলে ওটাকে ঢাকতে বেশি বেশি ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে হবে। স্থান-১২ এখানে তিল থাকা মানে আপনি সাফল্যমণ্ডিত। কিন্তু আপনার জীবন খুব নিয়ন্ত্রিত। আপনি ধনী হতে চান না, কিন্তু নাম কামাতে চান। যদিও আপনার অনেক সুযোগ রয়েছে উঁচুমানের জীবনযাপনের। পারিবারিকভাবে আপনার শান্তি আছে। যে সব মেয়েদের এ জায়গায় তিল আছে তারা আংশিক ভাগ্যবতী। তারা সব সময় আবেদনময়ী থাকতে ভালোবাসেন। স্থান-১৩ সন্তানরা আপনার জীবনে দুঃখ ডেকে আনবে। তাদের সঙ্গে আপনার সম্পর্ক খুব ভালো হবে না। এর থেকে বের হওয়ার তেমন কোনো রাস্তা নেই আপনার। তবে পরিবর্তন আনতে সহ্যসীমা কিছুটা বাড়াতে হবে আপনাকে। স্থান-১৪ আপনি খাবার প্রেমিক, যা আপনার জন্য অমঙ্গল বয়ে আনবে। কিছু কিছু খাবারের প্রতি আপনার এলার্জি আছে। তবে আপনি বেশি খেতে পছন্দ করেন। স্থান-১৫ আপনি দৌড়ের উপর থাকেন। আপনার মধ্যে পুনঃউদ্ভাবনী শক্তি আছে। আপনি নিজের বাড়ির নকশা বার বার পরিবর্তন করেন। আপনি নতুন জিনিসের সঙ্গে পরিচিত হতে বেশি পছন্দ করেন। একটা জায়গায় আপনি বেশিদিন থাকতে পছন্দ করেন না। আপনি ভ্রমণ ও দুঃসাহসিক কাজ পছন্দ করেন। আপনার গভীর পর্যবেক্ষণশীল চোখ রয়েছে। স্থান-১৬ খাবারের সময় আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। একই সঙ্গে দাম্পত্যজীবনের ব্যাপারেও। কারণ এ দুটো আপনার বড় সমস্যা। স্থূলতা আপনার জীবনে বিষন্নতা ডেকে আনবে। আপনি রোমাঞ্চ করতে ভালোবাসেন। কখনও কখনও তা অন্যদের তুলনায় বেশি। এছাড়া আপনি বেশ সাধারণ। তবে কখনও কখনও আপনি জটিলতায় ভুগতে পারেন। এ কারণে আপনার মানসিক চাপও বাড়তে পারে। স্থান-১৭ আপনি বিশেষ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। আপনি সামাজিকভাবে উদ্যমী এবং ভালো কথা বলতে পারেন। আপনার সাফল্যের ব্যাপারে আপনার আত্মতুষ্টি আছে। তবে এ জন্য আপনি সুনাম হারাতে পারেন, যা আপনার ওপর গভীর প্রভাব ফেলবে। স্থান-১৮ আপনি ভ্রমণপ্রিয়। বিদেশ ভ্রমণের অপার সুযোগ রয়েছে আপনার। তবে সাগর পাড়ি দেওয়ার সময় আপনাকে সাতর্ক থাকতে হবে। কারণ আপনার তিল আপনাকে বাড়িতে থাকতে বলছে। স্থান-১৯ অনেক বিত্ত-বৈভবের অধিকারী আপনি। এ কারণে আপনার বন্ধুও অনেক। তাই এই জায়গায় তিল থাকাকে ভালোই বলা হয়। তবে বিপরীত লিঙ্গের আক্রমণে আপনার মৃত্যু হতে পারে। গরম পানিতে আপনার মৃত্যুর সম্ভাবনা বেশি। তাই আপনার আকুলতাকে ঠাণ্ডা রাখুন। স্থান-২০ আপনি খুব সৌভাগ্যবান হবেন, না হয় দুর্ভাগা। যদি এখানে আপনার তিল থাকে তাহলে আপনি ব্যাপক খ্যাতি লাভ করতেও পারেন অথবা দুর্নামে ভরা জীবন হতে পারে আপনার। আপনার সৃজনশীলতা বুদ্ধিমত্তা অনেক প্রখর। কিন্তু সেটা ভালো কাজেও ব্যবহৃত হতে পারে আবার খারাপ কাজেও। আপনি সহজে ক্ষমা করতে পারেন না আবার সহজে কোনোকিছু ভুলেও যান না। আপনি ইতিহাসে জাগয়া পাওয়ার মতো। তবে সেটা বিখ্যাতও হতে পারে আবার অত্যাচারী হিসেবেও। স্থান-২১ এটা ভালো। এটা নির্দেশ করে জীবনভর পর্যাপ্ত পান করতে পারবেন ও খেতে পারবেন। এই তিল আপনার জীবনে খ্যাতি ও স্বীকৃতি ডেকে আনবে। স্থান-২২ আপনার জীবন সুখী হবে এবং পার্থিব সবকিছু সহজে আপনার অধীনে আসবে। যদি খেলাধুলার প্রতি আপনার আগ্রহ থাকে তবে আপনার সফলতা আসবে। এই তিল ক্ষমতা নির্দেশ করে। আপনি যদি কোনো কোম্পানির নির্বাহী হন তবে আপনার সফলতা অবশ্যম্ভাবী। স্থান-২৩ আপনি খুবই বুদ্ধিদীপ্ত। আপনি মেধাবী, পথচলার ক্ষেত্রেও বুদ্ধিদীপ্ত। আপনার উচ্চ সহজাত প্রবৃত্তি রয়েছে। আপনি অর্থবহ ও দীর্ঘ জীবনযাপন করবেন। জীবনের শেষ সময়গুলোতেও আপনার বন্ধুর অভাব হবে না। পরিবারের সদস্যরাও থাকবেন পাশে। স্থান-২৪ আপনি যুবক বয়সে খ্যাতি অর্জন করবেন। তবে তা বৃদ্ধ বয়সের জন্য ধরে রাখতে হবে। কারণ এখানে যাদের তিল থাকে তারা বৃদ্ধ বয়সে কঠিন সময়ের মুখোমুখি হন। স্থান-২৫ আপনি আপনার স্বীকৃত সমৃদ্ধি উপভোগ করবেন। তবে বাহুলত্যার ব্যাপারে সজাগ থাকবেন। আপনার আচার-আচরণে ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টা করুন। তাহলে আপনি দীর্ঘ সুখী জীবনের অধিকারী হবেন। সূত্র : ফ্যাক্টসএনমিথস  

২০১৭ সালের প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক ফলাফল প্রকাশ করেছে ব্র্যাক

২০১৭ সালের প্রথম প্রান্তিকে পূর্ববর্তী বছরের একই সময়ের তুলনায় ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড-এর কর পরবর্তী মুনাফা প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১০৪ শতাংশ। সোমবারব্র্যাক ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক ফলাফল প্রকাশ করা হয়। অনুষ্ঠানে  দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগ বিশ্লেষক ও পুঁজি বাজার বিশেষজ্ঞরা অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানটি ইন্টারনেটে সারসরি সম্প্রচার করা হয় যেখানে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা সরাসরি প্রশ্ন করার সুযোগ পান।   কন্সলিডেটেড ভিত্তিতে জানুয়ারি-মার্চ ২০১৭ সময়ে কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১২৬.৭০ কোটি টাকা যা পূর্ববর্তী বছরের একই সময়ে ছিল ৬২.২০ কোটি টাকা। জানুয়ারি-মার্চ ২০১৭ সময়ে কন্সলিডেটেড ভিত্তিতে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১.৬২ টাকা যা পূর্ববর্তী বছরের একই সময়ে ছিল ০.৯৮ টাকা।  ব্র্যাক ব্যাংক-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালনা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম আর. এফ. হোসেন এবং উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) ও চিফ ফাইনান্সিয়াল অফিসার (সিএফও) আবদুল কাদের জোয়াদ্দার ব্যাংকের আর্থিক অবস্থা নিয়ে প্রেজেন্টেশন প্রদান করেন এবং বিনিয়োগকারীদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন।   অনুষ্ঠানে ব্র্যাক ব্যাংক-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালনা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা  সেলিম আর. এফ. হোসেন বলেন, “ব্র্যাক ব্যাংক ২০১৬ সালের অসাধারণ অর্জনের ধারাবাহিকতা ২০১৭ সালের প্রথম প্রান্তিকেও বজায় রেখেছে। দেশের সেরা ব্যাংক হবার অগ্রযাত্রায় ব্যাংকটি ইতোমধ্যেই বড় মাইলফলক অর্জন করেছে। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি আগামী বছরগুলোতে প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে পারবো।”

শ্রীলংকার সাবেক রাষ্ট্রপতির সাথে প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ

শ্রীলংকার সাবেক রাষ্ট্রপতি চন্দ্রিকা বন্দরনায়েকে কুমারাতুঙ্গা গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বলেন, দুই নেতা পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় এবং তাদের রাজনৈতিক দলের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। রাজনৈতিক অভিজ্ঞতাও বিনিময় করেন তারা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চন্দ্রিকা কুমারাতুঙ্গাকে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক অগ্রগতির বিভিন্ন দিক অবহিত করেন। বলেন, বাংলাদেশে বিভিন্ন ধর্মালম্বিরা পারষ্পরিক সম্প্রীতি বজায় রেখে শান্তিপূর্নভাবে সহঅবস্থান করেছে। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, তাঁর সরকার তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ ছাড়াই পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যার সমাধান করেছে।

রবিতে চাকরির সুযোগ

আকর্ষণীয় পদে তরুণদের জন্য চাকরির সুযোগ দিয়েছে রবি আজিয়াটা লিমিটেড। এ উপলক্ষ্যে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। ‘স্পেশালিস্ট, এঙ্গেজমেন্ট অ্যান্ড এইচআর সার্ভিসেস, পিপল অ্যান্ড করপোরেট ডিভিশন’ এই তিনটি পদে নিয়োগ দেবে প্রতিষ্ঠানটি। যোগ্যতা ভালো ফলাফলসহ যেকোনো প্রতিষ্ঠিত দেশি বা বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে দুই থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। ‘এমপ্লয়ি বেনিফিট সিস্টেম’ সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা থাকতে হবে। এ ছাড়া সমস্যা সমাধানে দক্ষতার পাশাপাশি মাইক্রোসফট অফিস অ্যাপ্লিকেশন চালনায় পারদর্শী হতে হবে। আবেদন প্রক্রিয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম লিংকড ইনের (bit.ly/2rOWags) মাধ্যমে আবেদন করা যাবে।  বিস্তারিত দেখুন.....

দিনাজপুর, গাইবান্ধা ও নাচোলে জঙ্গি আটক, অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর ও নাচোল উপজেলার চারটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষ করেছে র‌্যাব। এই অভিযানে আটক করা হয়েছে ১ জনকে। উদ্ধার করা হয়েছে অস্ত্র ও গোলাবারুদ। এদিকে, দিনাজপুর ও গাইবান্ধায় পৃথক অভিযান চালিয়ে জেএমবির দুই জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছে রংপুর র‌্যাব। ভোর চারটার দিক থেকে নাচোল ও গোমস্তাপুরের ৪টি জঙ্গি আস্তানা ঘিরে রাখে র‌্যাব। সকাল ৮টার দিকে নাচোলের চাঁদপাড়া গ্রামের একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় বাড়ির মালিক আব্দুুল মজিদ টানুকে। এখানে কোন বিস্ফোরক পাওয়া যায়নি।পরে একই উপজেলার ফুরশেদপুর গ্রামের আফজালের বাড়িতে এবং গোমস্তাপুরের চকপুস্তম গ্রামের এজাবুলের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। তবে সেখানেও কিছু পাওয়া যায়নি। এরপর বালুগ্রাম-শিমুলতলায় আব্দুস সাকুরের বাড়িতে অভিযানে উদ্ধার করা হয় ২টি পিস্তল, ১টি সুটারগান, ২টি ম্যাগজিন, ৮রাউন্ড গুলি ও একটি খেলনা পিস্তুল উদ্ধার করা হয়। সিংক: লে. কর্নেল মাহবুব আলম, অধিনায়ক, র‌্যাব-৫এর আগে মঙ্গলবার রাতে গোমস্তাপুর বাজার এলাকা থেকে সাইফুল জাহাঙ্গীর ও আব্দুস সাকুরকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে তিন কেজি গান পাউডার, একটি পিস্তল ও চার রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। আব্দুস সাকুর একজন প্রশিক্ষিত জঙ্গি বলে জানায় র‌্যাব। তার দায়িত্ব ছিল অন্যান্যদের প্রশিক্ষণ দেয়া।এদিকে বুধবার ভোরে, গাইবান্ধার রামচন্দ্রপুর পোড়া হাড়িয়া গ্রামের বাদল হানজালাকে গাইবান্ধা থেকে এবং বেলালকে দিনাজপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা জেএমবির সক্রিয় সদস্য।        

এই গরমে যেভাবে মাথা ঠাণ্ডা রাখবেন

বৃষ্টির দেখা নেই। কাঠফাটা রোদ আর গুমোট গরমে হাসফাঁস দশা। এই গরমে মাথা গরম হয়ে যাওয়া খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। যে কারণে গরমকালে আমরা খুব সহজেই মেজাজ হারিয়ে ফেলি। আবার মাথা গরম হয়ে গিয়ে অনেক রকম শারীরিক সমস্যাও হতে পারে। রোদ কথাতেই আছে চাঁদি ফাটা রোদ। যতটা সম্ভব মাথা রোদ থেকে বাঁচিয়ে রাখুন। আপনার মাথার তালু কিন্তু ত্বকেরই অংশ। রাস্তায় বেরোলে হ্যাট ব্যবহার করুন বা মাথা স্কার্ফ, ওড়নায় মুড়ে নিন। মাথায় রোদ লেগে মাথা গরম হয়ে অনেক কিছু ঘটে যেতে পারে। ঘাম গরমে খুব ঘাম। মাথার তালু ঘেমে গিয়ে যেমন চুল পড়ে যেতে পারে, তেমনই মাথায় ঘাম বসে ঠাণ্ডা লেগে যেতে পারে। চুলকুনি, দুর্গন্ধ হয়। তাই কখনই মাথায় ঘাম বসতে দেবেন না। তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। বাইরে থাকলেও সব সময় তোয়ালে রুমাল সঙ্গে রাখুন। শ্যাম্পু গরম কালে মাথা ঘেমে যায়। তাই চুল পড়ার মতে সমস্যা যেমন হয়, তেমনই মাথা গরমও হয়ে থাকে। এই সময় তাই ঘনঘন শ্যাম্পু করুন। অনেকে মনে করেন বেশি শ্যাম্পু করলে চুল থেকে ময়শ্চার কমে গিয়ে চুল রুক্ষ হয়ে যায়। কিন্তু মাথায় ঘাম বসলে চুলের আরও ক্ষতি হতে পারে। তাই শ্যাম্পু করলে মাথা পরিষ্কার থাকবে। অনেক হালকা ও ঠাণ্ডা লাগবে। কুল শ্যাম্পু গরম কালে বদলে ফেলুন শ্যাম্পু। বেশ কিছু শ্যাম্পুর মধ্যে ন্যাচারাল কুল্যান্ট থাকে। যেমন ল্যাভেন্ডার বা টি ট্রি অয়েল। এই ধরনের শ্যাম্পু সারা বছরই লাগাতে পারেন। তবে গরম কালের জন্য সবচেয়ে উপযোগী এই শ্যাম্পুগুলো। অ্যালয় ভেরা, মিন্ট অ্যালয় ভেরা জেল মাথা ঠাণ্ডা রাখতে খুবই উপকারী। এই জেল সরাসরি মাথায় লাগিয়ে মাসাজ করতে পারেন। অথবা অ্যালয় ভেরা বা মিন্ট অয়েল দিয়েও মাসাজ করতে পারেন। এতে মাথার তালু ঠাণ্ডা থাকবে।  সূত্র: আনন্দবাজার  

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

চারদিনের সৌদি আরব সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাত দেড়টায় তাকে বহনকারী ভিভিআইপি ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।বিমানবন্দরে মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, উর্ধ্বতন সামরিক- বেসামরিক কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। সৌদি বাদশাহ’র আমন্ত্রণে আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিটে যোগ দিতে শনিবার রাতে রিয়াদে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পসহ মুসলিম প্রধান অর্ধশতাধিক দেশের সরকার ও রাষ্ট্র প্রধান এই সম্মেলনে যোগ দেন। সম্মেলনে সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় বৈশ্বিক ঐকমত্য গড়ে তোলার উপর জোর দেয়া হয়। এছাড়া, মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লালাহি ওয়াসাল্লাম এর মাজার জিয়ারত এবং পবিত্র ওমরাহ পালন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ক্যাশব্যাক সুবিধাসহ আইফোন ৭ ও আইফোন ৭ প্লাস বান্ডল অফার আনল রবি

স্মার্টফোনের জগতে অনন্য ব্রান্ড আইফোন’র সর্বশেষ মডেল আইফোন ৭ ও আইফোন ৭ প্লাস’র সাথে সম্প্রতি ১৫ হাজার টাকা ক্যাশব্যাক অফার এনেছে মোবাইল ফোন অপারেটর রবি। পাশপাশি এ অফারের আওতায় আইফোন কিনতে আগ্রহী রবি’র প্রি-পেইড গ্রাহকদের জন্য রয়েছে সাশ্রয়ী ইএমআই সুবিধা। ১৫ হাজার টাকা ক্যাশব্যাক অফারের আওতায় আইফোন ৭ (৩২ জিবি), আইফোন ৭ (১২৮ জিবি), আইফোন (২৫৬ জিবি), আইফোন ৭ প্লাস (৩২ জিবি), আইফোন ৭ প্লাস’র (১২৮ জিবি) মূল্য যথাক্রমে ৭৬ হাজার, ৮৭ হাজার ৬৫০, ৯৯ হাজার ২৫০, ৮৯ হাজার ৬৫০ ও ১ লাখ ১ হাজার ৬৫০ টাকা থেকে কমে ৬১ হাজার, ৭২ হাজার ৬৫০, ৮৪ হাজার ২৫০, ৭৪ হাজার ৬৫০ ও ৮৬ হাজার ৬৫০ টাকায় নেমে এসেছে।  আইফোন ৭ (৩২ জিবি), আইফোন ৭ (১২৮ জিবি), আইফোন (২৫৬ জিবি), আইফোন ৭ প্লাস (৩২ জিবি) ও আইফোন ৭ প্লাস (১২৮ জিবি) এর মাসিক কিস্তির পরিমাণ যথাক্রমে ৫ হাজার ৮৪, ৬ হাজার ৫৫, ৭ হাজার ২১, ৬ হাজার ২২১ ও ৭ হাজার ২২১ টাকা। এ আইফোনগুলোর যে কোন একটি কিনলে রবি’র প্রি-পেইড গ্রাহকরা হ্যান্ডসেটটি কেনার পর থেকে প্রথম দুই মাস ৫জিবি করে মোট ১০জিবি ফ্রি ডাটা উপভোগ করতে পারবেন। এ ক্যাম্পেইনের ক্রেডিট কার্ড পার্টনার হিসেবে রয়েছে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ট ব্যাংক, দি সিটি ব্যাংক আমেরিকান এক্সপ্রেস, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড ও ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। এ ক্রেডিট কার্ডগুলো দিয়ে রবি’র প্রি-পেইড গ্রাহকরা শূন্য শতাংশ ইন্টারেস্ট রেটে ১২ মাসের ইএমআই সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। দেশজুড়ে রবি সেবা কেন্দ্রগুলোতে এই আইফোন হ্যান্ডসেটগুলো পাওয়া যাচ্ছে। গ্রাহকরা ম্যাট বø্যাক, জেট বø্যাক, সিলভার ও গোল্ড কালারের হ্যান্ডসেটগলো থেকে তার পছন্দেরটি বেছে নিতে পারেন। অফারটি ঈদ-উল-ফিতরের চাঁদ রাত পর্যন্ত প্রযোজ্য।  

ইসলামী ব্যাংক ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি পদের একটি পদ বিলুপ্ত

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি পদের একটি পদ বিলুপ্ত করা হয়েছে। ভাইস চেয়রম্যানের পদ হারিয়েছেন অধ্যাপক আহসানুল আলম পারভেজ; তবে থাকছেন স্বতন্ত্র পরিচালক। ব্যাংকের বার্ষিক সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার প্রস্তাব অনুমোদন পায়। রাজধানীর কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের ৩৪তম বার্ষিক সাধারাণ সভা। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ সমাপ্ত বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার প্রস্তাব অনুমোদন পায়। গেল বছরের তুলনায় কম লভ্যাংশ দেয়া হলেও প্রতিষ্ঠানের মৌলভিত্তি মজবুত করতে পরিচালনা পর্ষদের এই সিদ্ধান্ত যৌক্তিক বলে জানান শেয়ারহোল্ডাররা।শেয়ার হোল্ডারদের দাবির মুখে ব্যাংকটির দুটি ভাইস চেয়ারম্যান পদের একটি বিলুপ্ত করে পরিচালনা পর্ষদ। আরেকটি পদে বহাল রয়েছেন আল রাজি গ্র“পের প্রতিনিধি। পরে গৃহিত সিদ্ধান্ত সাংবাদিকদের জানান ব্যাংকের চেয়ারমান আরাস্তু খান । এদিকে পাঁচ সতাংশের বেশি শেয়ার ছেড়ে দিয়েছে ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক। তবে বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের ওপর আস্থা রয়েছে বলে উল্লেখ করেন ব্যাংক প্রতিনিধি ড. আরিফ সুলায়মান।এজিএমে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সদস্যগণ, শীর্ষ কর্মকর্তা ও বিপুল সংখ্যক শেয়ারহোল্ডার উপস্থিত ছিলেন।    

পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

  পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড-এর ২১তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার কোম্পানীর চেয়ারম্যান জনাব এম আনিস উদ দৌলা-এর সভাপতিত্বে গুলশানস্থ স্পেক্ট্রা কনভেনশন সেন্টার লিমিটেড-এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কোম্পানীর পরিচালক  এ.কে.এম. রহমতউল্লাহ্ এমপি, সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর, সুস্মিতা আনিস, সৈয়দ আব্দুস সোবহান, ফাহামা খান, এম এ মাজেদ, সাঞ্চিয়া চৌধুরী, পারভীন আক্তার, রোজিনা আফরোজ, এম মোকাম্মেল হক এবং কনসালট্যান্ট জনাব কিউ.এ.এফ.এম. সিরাজুল ইসলাম ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব এস.এম. মিযানুর রহমান সহ উলে­খযোগ্য সংখ্যক শেয়ার হোল্ডারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ২০১৬ সালে কোম্পানী প্রিমিয়াম আয় করেছে ২৫০.৪৪ কোটি টাকা এবং নীট মুনাফা অর্জন করেছে ২৫.৮৬ কোটি টাকা। সভায় পরিচালনা পর্ষদের সুপারিশ মোতাবেক ২০১৬ সালের জন্য ১৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড অনুমোদন করা হয়। কোম্পানী পরিচালনায় সর্বাত্মক সহযোগীতা প্রদানের জন্য সভাপতি শেয়ারহোল্ডারবৃন্দকে ধন্যবাদ দেন। তিনি কোম্পানীর সার্বিক সাফল্যের জন্য কোম্পানীর সকল স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণের প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতেও তাঁদের এ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার পরামর্শ দেন।

ইসলামী ব্যাংকের ৩৪তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

 ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর ৩৪তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার রাজধানীর কুর্মিটোলা গল্ফ ক্লাবে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যাংকের চেয়ারম্যান আরাস্তু খান এতে সভাপতিত্ব করেন। শরী‘আহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান শায়খ মাওলানা মোহাম্মদ কুতুবুদ্দীন, ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান সৌদি আরবের আল-রাজি গ্রæপের ইউসিফ আব্দুল্লাহ আল-রাজী, পরিচালক ও আইডিবি প্রতিনিধি ড. আরিফ সুলেমানসহ ১৯ জন পরিচালকের মধ্যে ১৮ জন পরিচালক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শেয়ারহোল্ডারগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন। সভায় ২০১৬ সালের আর্থিক বিবরণী এবং শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ অনুমোদন করা হয়।বার্ষিক সাধারণ সভা পরবর্তী এক সংবাদ সম্মেলনে ব্যাংকের চেয়ারম্যান, অন্যান্য পরিচালক, উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শেয়ারের মালিক এবং পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান সৌদি আরবের জনাব ইউসিফ আব্দুল্লাহ আল-রাজী এবং ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি)-এর প্রতিনিধি পরিচালক ড. আরিফ সুলেমান সাম্প্রতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত ব্যাংক সম্পর্কে বিভিন্ন বিভ্রান্তিকর সংবাদের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে বর্তমান পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের প্রতি তাদের জোরালো সমর্থন ব্যক্ত করেন। তারা বলেন, বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের সকল সদস্য এ ব্যাংকের সার্বিক উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন এবং এ পর্ষদের গতিশীল ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ব্যাংক উত্তোরোত্তর সমৃদ্ধি এবং কল্যাণের দিকে এগিয়ে যাবে।  তারা ইসলামী ব্যাংক ও বাংলাদেশের সাথে তাদের বাণিজ্য সম্পর্ক অব্যাহত রাখার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।     

দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে বেড়েছে  সূচক ও লেনদেন

সূচক ও লেনদেন বেড়েছে দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে। একইসঙ্গে দর বেড়েছে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের। মঙ্গলবার ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩২০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৮টির, কমেছে ১২৫টির, আর ৪৭টি প্রতিষ্ঠানের দর অপরিবর্তিত ছিল। দিন শেষে লেনদেন হওয়া শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বাজারমূল্য ছিল ৬১২ কোটি টাকা। আর ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসই-এক্স ৯ পয়েন্ট বেড়ে উঠে আসে ৫ হাজার ৩৯৪ পয়েন্টে। অন্যদিকে, সূচক বেড়েছে সিএসইতেও। সিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৩১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দর বেড়েছে ১১২টির, কমেছে ৮৮টির, আর ৩১টি প্রতিষ্ঠানের দর ছিল অপরিবর্তিত। আর মোট লেনদেন হয়েছে প্রায় ৩১২ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি