ঢাকা, ২০১৯-০৬-২৬ ৭:৪৭:৫৭, বুধবার

সাধনা ও আত্মবিশ্বাস থাকলে বিসিএস উত্তীর্ণ হওয়া যায়

সাধনা ও আত্মবিশ্বাস থাকলে বিসিএস উত্তীর্ণ হওয়া যায়

বিসিএস যেন এক সোনার হরিণ। এই হরিণকে ধরার জন্য মাথার ঘাম পায়ে ফেলে অনেকে দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সকাল থেকে রাত অবধি শুধু পড়া আর পড়া। অসম্ভব সাধনার ফলেই অনেকে কাঙ্খিত সাফল্যে লাভ করে থাকেন। বিসিএস উর্ত্তীণ হয়ে হাসি ফোটান সবার মুখে।
রেকর্ড চাকরিপ্রার্থী বসছে ৪০তম বিসিএসে

৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আজ শুক্রবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ৪০তম বিসিএস পরীক্ষার প্রিলিমিনারি আজ শুক্রবার সকাল ১০টা শুরু হবে চলবে বেলা ১২টা পর্যন্ত। ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহের বিভিন্ন কেন্দ্রে একযোগে এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এই পরীক্ষায় আবেদন পড়েছে মোট ৪ লাখ ১২ হাজার ৫৩১টি। এটাই সর্বকালের রেকর্ডসংখ্যক আবেদন। এর আগে ৩৮তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নিতে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেন। সেটাই ছিল বিসিএস পরীক্ষায় সবচেয়ে বেশি আবেদনের রেকর্ড। ১১ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। ৪০তম বিসিএসের আবেদন গ্রহণ শুরু হয় ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে। এবারের পরীক্ষার মাধ্যমে মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে এই সংখ্যা বাড়তে পারে। ক্যাডার অনুসারে প্রশাসনে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে। টিআর/

৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি ৩ মে

৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আগামী ৩ মে অনুষ্ঠিত হবে। গত বছরের ১১ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এ বিসিএসের মাধ্যমে বিভিন্ন ক্যাডারে ১ হাজার ৯০৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে বলে পিএসসি সূত্রে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৩ মে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ কেন্দ্রে একযোগ এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টায় শুরু হয়ে পরীক্ষা চলবে বেলা ১২টা পর্যন্ত।পরীক্ষার হল এবং আসন বিন্যাসসহ পরীক্ষা-সংক্রান্ত নির্দেশনা পরে জানানো হবে। ৪০তম বিসিএসের আবেদন গ্রহণ শুরু হয় ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থীর আবেদন জমা হয়। প্রায় সাড়ে ৪ লাখ প্রার্থী আবেদন করেন। এবারের পরীক্ষার মাধ্যমে ক্যাডার অনুসারে প্রশাসনে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে। এসএইচ/

৩৭তম বিসিএসসের নন-ক্যাডারে ৫৭৮ জনকে নিয়োগ

৩৭তম বিসিএসের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে ৫৭৮ জনকে প্রথম শ্রেণীর নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। বুধবার (১৩ মার্চ) কমিশনের বিশেষ সভায় এ নিয়োগের সুপারিশ করা হয়। পিএসসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও যারা ক্যাডার পায়নি তাদের মধ্য থেকে এ নিয়োগ দেওয়া হয়। সুপারিশকৃতদের তালিকা পিএসসির ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়েছে। পিএসি জানায়, গত বছরের ১২ জুন ৩৭তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করে পিএসসি। বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগের জন্য এক হাজার ৩১৪ জনকে সুপারিশ করে কমিশন। ৩৭তম বিসিএসের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় ৪ হাজার ৭৬৮ জন উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। চূড়ান্ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েও যারা ক্যাডার পান না, তাদের মধ্য থেকে প্রথম শ্রেণীর নন-ক্যাডার পদে নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয় ৩১তম বিসিএস থেকে। বিসিএসে উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে (যারা ক্যাডার পায়নি) দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দিতে ২০১৪ সালের ১৬ জুন নন-ক্যাডার পদের নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করে সরকার। আরকে//

৪০তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা তারিখ ৩ মে

৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আগামী মে মাসের ৩ তারিখ অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে পিএসসি সূত্রে জানা গেছে। এবিষয়ে প্রস্তুতি শুরু করেছে সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)। পরীক্ষা আয়োজনে ইতিমধ্যে পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) আ ই ম নেছার উদ্দিন স্বাক্ষরিত বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের চিঠি পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে, সম্ভাব্য আগামী ৩ মে (শুক্রবার) সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত ৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আয়োজন করা হতে পারে। সেই লক্ষ্যে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের সব পরীক্ষা কেন্দ্রে এ পরীক্ষা একযোগে শুরু করা হবে। পরীক্ষাটি বহুনির্বাচনী (এমসিকিউ) পদ্ধতিতে নেয়া হবে। ২০০ নম্বরের পরীক্ষা ২ ঘণ্টাব্যাপী চলবে। গত ১১ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। আবেদন গ্রহণ শুরু হয় ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থীর আবেদন জমা হয়। এতে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ প্রার্থী আবেদন করেন। পিএসসির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ‘৪০তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আয়োজনে আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছি। সেখানে ৩ মে সম্ভাব্য একটি সময় উল্লেখ করা হয়েছে। যদি চাহিদা অনুযায়ী আসন খালি পাওয়া যায়, তবে আগামী ৩ মে ৪০তম বিসিএস পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। আসন খালি পাওয়া সাপেক্ষে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান পিএসসি চেয়ারম্যান। তিনি আরও বলেন, এপ্রিলে ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। বর্তমানে দ্বিতীয় ধাপে পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নের কাজ চলছে। উল্লেখিত সময়ের মধ্যেই ফল প্রকাশ করা হবে। এ পরীক্ষার মাধ্যমে এক হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেয়া হবে। তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ক্যাডার অনুসারে প্রশাসনে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেয়ার কথা রয়েছে।   টিআর/  

এপ্রিল মাসে হতে পারে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা

রেকর্ড পরিমাণ ছাড়িয়েছে ৪০তম বিসিএসে আবেদনের সংখ্যা। এতো প্রার্থী বিসিএসের জন্য আবেদন করবেন তা আগে ধারণা ছিল না। তাই এই পরীক্ষাটি কীভাবে নেওয়া যায় সে পরিকল্পনাই করছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)।এ বিষয়ে পিএসসির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ৪০ তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা এপ্রিল মাসে নেওয়া হতে পারে। যেহেতু এ সময় এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা আছে। এর ফাকে কীভাবে পরীক্ষাটি সুষ্ঠুভাবে নেওয়া যায় তার জন্য কাজ করছি।৪০তম বিসিএসে আবেদন করেছেন ৪ লাখ ১২ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী। পিএসসির ইতিহাসে এটা একটা রেকর্ড। কোন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় পিএসসির অধীনে এত বিপুল আবেদন আগে কখনো পড়েনি।গত ১১ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। আর আবেদন গ্রহণ শুরু হয় ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে। এবারের মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। প্রশাসনে ২শ, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮শ জন নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে।এসএ/

৪০তম বিসিএস: চার লাখ ১২ হাজার ৫৩২ আবেদন

৪০তম বিসিএসের আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। এবার ৪ লাখ ১২ হাজার ৫৩২ চাকরিপ্রার্থী এতে আবেদন করেছেন। এটাই কোনো বিসিএসে সর্বোচ্চ সংখ্যক প্রার্থীর আবেদন করার ঘটনা। এর আগে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নিতে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী আবেদন করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পিএসসির জনসংযোগ বিভাগ। এর আগে পিএসসি সূত্র জানিয়েছিল, আবেদনের শেষ দিনে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত ৩ লাখ ৮৯ হাজর ৫৩৩ জন প্রার্থী ফি জমা দিয়ে আবেদন নিশ্চিত করেছিলেন। ফি দেওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন নিবন্ধন করা আরও ৭৮ হাজার। সবশেষে আজ ফি জমা দেয়ার শেষ দিনে চার লাখ ১২ হাজার ৫৩২ আবেদন করেছেন। গত ৩০ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের আবেদন গ্রহণ শুরু হয়। ১১ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। ৪০ তম বিসিএসে মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেওয়া হবে। এর মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জনকে নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে। তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।

কোটা নয়, ৪০তম বিসিএসে নিয়োগ হবে মেধায়

সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার এবার ৪০ বিসিএসে মেধায় নিয়োগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আজ বৃহস্পতিবার পিএসসির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক এবিষয় নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তিতে বলেছিলাম কোটা বিষয়ে সরকারের সবশেষ গ্রহণ করা সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই বিসিএসের মাধ্যমে ক্যাডার নিয়োগ হবে। সেই সিদ্ধান্ত অনুসারে এই বিসিএসে কোটা নয় মেধা থেকে নিয়োগ হবে। এ ছাড়া কয়েকটি নন ক্যাডার নিয়োগের ক্ষেত্রেও কোটার সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুসারে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলাম। সেই নিয়োগ গুলোতেও সরকারের সর্বশেষ কোটার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি আরও বলেন, তবে যেসব নিয়োগ আগের, যেমন ৩৯তম বিশেষ বিসিএসে ক্যাডার নিয়োগের ক্ষেত্রে আগের কোটা নীতি ব্যবহার করা হবে। পিএসসি জানায়, ৪০তম বিসিএসের আবেদন গ্রহণ শুরু হয় গত ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে। চলবে আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান মো. সাদিক বলেন, ৪০তম বিসিএসে মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নেওয়া হবে। এই নিয়োগের ক্ষেত্রে কোটা বিষয়ে সরকারের সবশেষ গ্রহণ করা সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। পিএসসি সূত্র জানিয়েছে, ৪০তম বিসিএসের মাধ্যমে প্রশাসন ক্যাডারে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেওয়া হবে। মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। টিআর/

৩৯তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা বাতিল চেয়ে রিট

৩৯তম বিসিএসের (বিশেষ) লিখিত পরীক্ষা বাতিল এবং মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত চেয়ে রিট আবেদন করা হয়েছে। রিটের যুক্তিতে বলা হয়েছে, এমসিকিউ পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে সাতটি ভুল ছিল, তাই পরীক্ষাটি বাতিল করতে আবেদন করা হয়েছে ওই রিটে। ২২ পরীক্ষার্থীর পক্ষে আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ বৃহস্পতিবার দুপুরে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট আবেদন করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন ইউনুছ আলী আকন্দ। রিটে স্বাস্থ্য সচিব, সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি), সরকারি কর্মকমিশন পিএসসির কন্ট্রোলারকে (ক্যাডার) বিবাদী করা হয়েছে। এদিকে মৌখিক পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন নম্বরভিত্তিক সময়সূচি পিএসসির ওয়েবসাইটে ইতোমধ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। মৌখিক পরীক্ষা প্রতি কার্যদিবসে সকাল ১০টায় শেরেবাংলা নগর আগারগাঁওয়ে পিএসসির প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে, যা ১০ অক্টোবর শুরু হয়ে চলবে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত। চলতি বছরের ৮ এপ্রিল স্বাস্থ্য ক্যাডারে সহকারী সার্জন পদে চার হাজার ৫৪২ জন এবং সহকারী ডেন্টাল সার্জন পদে ২৫০ জনকে নিয়োগের জন্য ৩৯তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। গত ৩ আগস্ট ৩৯তম বিশেষ বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এসএইচ/

৩৯তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা শুরু ১০ অক্টোবর

৩৯তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা ১০ অক্টোবর থেকে শুরু হবে বলে পিএসসি সূত্রে জানানো হয়েছে। সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। পিএসসির আগারগাঁওয়ের প্রধান কার্যালয়ে প্রতি কার্যদিবসে সকাল ১০ টা থেকে মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা শেষ হবে আগামী ২৬ নভেম্বর। কোনো প্রার্থী নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে মৌখিক পরীক্ষার বোর্ডে উপস্থিত হতে ব্যর্থ হলে ওই প্রার্থীর মৌখিক পরীক্ষা আর গ্রহণ করা হবে না এবং প্রার্থিতা বাতিল বলে গণ্য হবে। পিএসসি সূত্রে এ তথ্য জানানো হয়েছে। মৌখিক পরীক্ষার নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে সাক্ষাৎকারপত্রে উল্লিখিত কাগজপত্র, সাক্ষাৎকারপত্রসহ প্রার্থীদেরকে পিএসসি কার্যালয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।  এমএইচ/

৪০তম বিসিএসের আবেদন শুরু

৪০তম বিসিএসের অনলাইন আবেদন শুরু হয়েছে। ৩০ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে আবেদন শুরু হয়েছে। আবেদন আগামী ১৫ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত করা যাবে। আগ্রহীরা bpsc.teletalk.com.bd বা bpsc.gov.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের সময় ৩০০ বাই ৩০০ পিক্সেল আকারের রঙিন ছবি এবং ৩০০ বাই ৮০ পিক্সেল আকারের স্বাক্ষরের স্ক্যানকপি আপলোড করতে হবে। আবেদন ফরম পূরণ শেষে প্রাপ্ত ইউজার আইডি ব্যবহার করে টেলিটক মোবাইলের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দিতে পারবেন। সাধারণ প্রার্থীদের জন্য আবেদন ফি ৭০০ টাকা। তবে প্রতিবন্ধী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ও তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থীদের জন্য ফি ১০০ টাকা। বিপিএসসি প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৪০তম বিসিএসে মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নেওয়া হবে। যার মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে এই সংখ্যা বাড়তেও পারে। / এআর /

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি