ঢাকা, ২০১৯-০৬-২৬ ৭:৫৬:৫১, বুধবার

মাইকেল জ্যাকসনের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মাইকেল জ্যাকসনের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

‘পপ কিং’ মাইকেল জ্যাকসনের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ মঙ্গলবার। স্নায়ু শিথিল করতে মাত্রাতিরিক্ত প্রপোফল সেবনে ২০০৯ সালের ২৫ জুন ৫০ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছিল। বিশ্বের সবচেয়ে সফল সেলিব্রেটি মাইকেল জ্যাকসন একজন মার্কিন সংগীতশিল্পী, গীতিকার, নৃত্যশিল্পী, অভিনেতা, সমাজসেবক ও ব্যবসায়ী। ব্যক্তিজীবনে বিতর্কিত পপসম্রাট বিভিন্ন ঘটনার প্রেক্ষাপটে চার দশকেরও বেশি সময় সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বৈশ্বিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছেন। ১৯৫৮ সালের ২৯ আগস্ট যুক্তরাষ্ট্রে আফ্রিকান-আমেরিকান একটি পরিবারে জন্ম হয়েছিল মাইকেল জ্যাকসনের। মাইকেলের বাবার নাম জোসেফ ওয়াল্টার জ্যাকসন। জ্যাকসন পরিবারের ৭ম সন্তান মাইকেল। চার ভাইকে সঙ্গে নিয়ে মাত্র ৬ বছর বয়সে পেশাদার জগতে পা রাখেন তিনি। এককভাবে কাজ করেন ৭১ সালে। তবে বিশ্বজুড়ে উন্মাদনা ছড়ান আরও এগার বছর পর। ১৯৮২ সালে তার থ্রিলার অ্যালবাম ভেঙে দেয় পৃথিবীর সব রেকর্ড। অলটাইম হিটসের তালিকায় আছে - অফ দ্য ওয়াল (১৯৭৯), ব্যাড (১৯৮৭), ডেঞ্জারাস (১৯৯১) এবং হিস্টরি (১৯৯৫)। সর্বকালের সবচেয়ে সফল বিনোদন তারকা হিসেবে গিনেস বুকেও জায়গা পেয়েছেন তিনি। প্রায়শই তাকে পপ সঙ্গীতের রাজা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয় অথবা, সংক্ষেপে তাকে এমজে নামে অভিহিত করা হয়।
ইউটিউবে ইমরান-পড়শীর রসায়ন (ভিডিও)

এবারের ঈদে জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ইমরান ও পড়শীর বিশেষ উপহার ‘আবদার’। সিডি চয়েস থেকে প্রকাশিত নতুন এ গানটিতে বেশ রসায়ন দেখিয়েছেন দুই তারকা। গানটির ভিডিওতে পারফর্ম করে চমক দেখিয়েছেন শিল্পীরা। ভিডিওসহ গানটি ইউটিউবে প্রকাশের পর বেশ ভালো সাড়া ফেলেছে। ঈদের গানগুলোর মধ্যে এখন পর্যন্ত এগিয়ে রয়েছে ইমরান-পড়শীর ‘আবদার’। এরইমধ্যে সাত লাখেরও বেশি দর্শক গানটি উপভোগ করেছেন। রবিউল ইসলাম জীবনের কথায় গানটির সুর ও সংগীতায়োজন করেছেন ইমরান। এর ভিডিও পরিচালনা করেছেন চন্দন রায় চৌধুরী। এ গানের মাধ্যমে দীর্ঘদিন পর ইমরান-পড়শী জুটি হয়ে নতুন গানে কণ্ঠ দিলেন। সেই সঙ্গে নিজেরাই হলে মডেল। গানটি নিয়ে ইমরান বলেন, ‘অনেক দিন পর আমার সঙ্গে পড়শীর গান প্রকাশ হয়েছে। ভিডিওতে আমরাই পারফর্ম করেছি। ‘আবদার’ গানটি থেকে এরইমধ্যে ব্যাপক সাড়া মিলছে। সিডি চয়েসসহ গানটির সঙ্গে জড়িত সবাইকে ধন্যবাদ দিতে চাই। কৃতজ্ঞতা শ্রোতা-ভক্তদের প্রতিও।’ পড়শী বলেন, ‘ইমরান ভাইয়ার সঙ্গে ‘আবদার’ গানটি আগেই করা ছিলো। এবার ভিডিওসহ প্রকাশ হলো। খুব ভালো সাড়া পাচ্ছি। সবাই প্রশংসা করছেন গানটি। আমার মনে হয় সময়ের সঙ্গে আরো ভালো অবস্থানে যাবে গানটি।’ গানের ভিডিও : এসএ/  

অ্যাসিড নিক্ষেপের বিষয়ে মুখ খুললেন মিলা

সংগীতশিল্পী মিলা। বেশ বিড়ম্বনায় আছেন ব্যাক্তিগত জীবন নিয়ে। সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। সাবেক স্বামী পাইলট এস এম পারভেজ সানজারির শরীরে অ্যাসিড নিক্ষেপের অভিযোগে এ মমলা করা হয়েছে। রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলাটি করেছেন সানজারির বাবা এস এম নাসির উদ্দিন। গত বুধবার করা ওই মামলায় মিলা ছাড়াও আসামি করা হয়েছে তার সহকারী পিটার কিমকে। এরই মধ্যে মামলার বিষয়ে মুখ খুললেন মিলা।  মিলা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি এখন এক নম্বর আসামি হয়ে গেছি। অ্যাটেম টু মার্ডার এবং অ্যাসিড নিক্ষেপের এক নম্বর আসামি। আমার তো জীবন শেষ এখানে। দেশের সেরা আর্টিস্ট হয়ে আমি কি এমন একটা বোকামি করব?’ এই সংগীতশিল্পী আরও বলেন, ‘আমাকে এক নম্বর আসামি করা মানে ওর (পারভেজ সানজারি) বিরুদ্ধে আমার যা যা অভিযোগ আছে, অ্যাসিড মারার পরে তা আর থাকে? আমার মামলাই তো এখানে শেষ হয়ে যায়।’ মামলার বিষয়ে পুলিশ কিছু বলেছে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে মিলা বলেন, ‘পুলিশ একবার জিজ্ঞেস করেছে, কিন্তু অ্যারেস্টের (গ্রেপ্তার) বিষয়ে কিছু বলেনি। পুলিশে বলেছে, আমরা তো প্রমাণ পাইনি।’ মিলা আরও বলেন, ‘আমি কোনোভাবে বুঝতেছি না, একটা জিনিস কি মানুষের মাথায় আসার কথা না যে, এরকম একটা মামলা চলতেছে, এই পরিস্থিতিতে ও (সানজারি) যদি আমার কোনো ক্ষতি করে বা আমি যদি তার ক্ষতি করি, স্বাভাবিকভাবেই তো ওরে দোষ দেবে বা আমাকে দোষা দেবে, তাই না?’ সহকারী পিটার কিম অ্যাসিড নিক্ষেপের ঘটনায় জড়িত থাকতে পারে জানিয়ে মিলা বলেন, ‘নিশ্চয় আমি তো বস্তির ছ্যাঁচড়ার মতো কাজ করব না। আর যদি ছ্যাঁচড়ার মতো কাজ করাতেই হতো, আমি কি আমার অ্যাসিস্ট্যান্টরে বলাতাম যে, ‘তুই গিয়ে কর’। নিশ্চয় না, রাস্তার একটা ছেলেকে বলতাম। এখন আমার অ্যাসিস্ট্যান্ট গেছে ভেগে, ছেলেটা একটু পাগল টাইপের। ও (অ্যাসিড নিক্ষেপ) করতেই পারে। এখন ছেলেটাকে তো আমরা কন্টাক্ট করার চেষ্টা করছি। কিন্তু সানজারি যেগুলো বলতেছে, আমার গাড়ি দাঁড়াই ছিল ওখানে, এগুলোর তো একটা প্রমাণ থাকতে হবে।’ সাবেক স্বামীর কাছে মিডিয়া নিয়ে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে মিলা বলেন, ‘আমি যাইতেও পারতেছি না ওখানে। আমি বারবার চাচ্ছি যে ওখানে যাব, আমার যাওয়াটা কিন্তু খুব জরুরি। আমি না গেলে বার্নটাও দেখতেছি না। ওরে (পারভেজ সানজারি) আমি ভালো করে চিনি, ও একমাত্র আমার সামনেই ভয় পাবে। আমি ওর সামনে দাঁড়ালে ও কিন্তু তখন… একদম মিডিয়া নিয়ে যাওয়া উচিত ওর সামনে।’ উল্লেখ্য, গত ৪ জুন পারভেজ সানজারির বাবা এস এম নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে এসিড অপরাধ দমন আইনের ৫ (খ) ৭ ধারায় একটি মামলা করেন। এজাহারে তিনি উল্লেখ করেছেন, গত ২ জুন রাত ৮টার দিকে উত্তরায় তিন নম্বর সেক্টর এলাকার ৭/বি সড়কে পারভেজের গায়ে এসিড নিক্ষেপ করা হয়। ঘটনার পর পারভেজ সানজারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হন। এসিডে সানজারির দুই উরু, পেট, দুই হাত ও পায়ের কিছু অংশ ঝলসে গেছে বলে জানান হয়। সানজারি জানান, গত রোববার রাতে মোটরসাইকেলে পাইলট ক্লাবে খেলা দেখতে যাচ্ছিলেন তিনি। এ সময় দুর্বৃত্তরা তার পথরোধ করে শরীরে দাহ্য পদার্থ ছুড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তদের সঙ্গে তার সাবেক স্ত্রী মিলার সহকারী কিমকে দেখতে পান বলেও অভিযোগ করেন তিনি। প্রসঙ্গত, কণ্ঠশিল্পী মিলার সঙ্গে ২০১৭ সালের মে মাসে পারিবারিকভাবে বৈমানিক পারভেজ সানজারির বিয়ে হয়। এরপর ওই বছরের অক্টোবরে মিলা বাদী হয়ে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় নারী নির্যাতন ও যৌতুক দাবির অভিযোগ করে সানজারির বিরুদ্ধে মামলা করেন। মিলার করা সেই মামলা এখনো চলমান। এরইমধ্যে ২০১৮ সালের ২২ মে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এছাড়া মিলার ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে গত ২১ এপ্রিল সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা দায়ের করেন তার সাবেক স্বামী সানজারি। বর্তমানে মামলাটির তদন্ত চলছে। অপরদিকে সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন মিলা। তবে সানজারির অভিযোগ, বিবাহ বিচ্ছেদের পর থেকে মিলা তাকে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। তারা প্রায়ই একে অন্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে আসছেন। এসএ/    

গুগল ডুডলে বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী লাকী আখন্দ

প্রখ্যাত সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক ও বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী লাকী আখন্দের ৬৩তম জন্মদিন আজ। আর এ উপলক্ষে একটি বিশেষ ডুডল বানিয়েছে গুগল। বৃহস্পতিবার রাত ১২টার পর থেকে গুগলে প্রবেশ করলেই ডুডলটি চোখে পড়ছে। ডুডলে দেখা যায়, অসংখ্য কালজয়ী গানের স্রষ্টা লাকী আখন্দ গিটার হাতে গান গাইছেন। মাথায় তার বিখ্যাত ক্যাপ। একই সঙ্গে গুগল লেখাটি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে রঙ্গিন রঙে। আর শিল্পীর ছবির দুই পাশে ছড়িয়ে আছে শাপলা ফুল। লাকী আখন্দের ছবির উপর ক্লিক করলে তার সম্পর্কে বিভিন্ন পেজে নিয়ে যাচ্ছে গুগল। প্রসঙ্গে, মাত্র ৫ বছর বয়সেই তিনি তার বাবার কাছ থেকে সংগীত বিষয়ে হাতেখড়ি নেন। ১৯৬৩ থেকে ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত টেলিভিশন এবং রেডিওতে শিশু শিল্পী হিসেবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন তিনি। মাত্র ১৪ বছর বয়সেই এইচএমভি পাকিস্তানের সুরকার এবং ১৬ বছর বয়সে এইচএমভি ভারতের সংগীত পরিচালক হিসেবে নিজের নাম যুক্ত করেন আখন্দ। ১৯৮৪ সালে সরগমের ব্যানারে লাকি আখন্দের প্রথম একক অ্যালবাম ‘লাকী আখান্দ’ প্রকাশিত হয়। তিনি ব্যান্ড দল হ্যাপী টাচের সদস্য। তার সংগীতায়জনে করা বিখ্যাত গানের মধ্যে রয়েছে ‘এই নীল মনিহার’, ‘আবার এলো যে সন্ধ্যা’ এবং ‘আমায় ডেকো না’। তিনি বাংলাদেশি জাতীয় রেডিও নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ বেতার এর সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৬৯ সালে লাকী আখান্দ পাকিস্তানী আর্ট কাউন্সিল হতে ‘বাংলা আধুনিক গান’ বিভাগে পদক লাভ করেন। লাকী আখন্দ দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুস ক্যান্সারে ভুগছিলেন। ২০১৭ সালের ২১ এপ্রিল তিনি নিজের আর্মানিটোলার বাসাতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে মিটফোর্ড হাসপাতালে নেয়া হয় এবং কর্মরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। প্রসঙ্গত, বিভিন্ন ব্যক্তিকে স্মরণ ও বিভিন্ন জাতির বিশেষ দিন উপলক্ষে গুগল ডুডল প্রকাশ করে থাকে। বাংলাদেশের বিভিন্ন দিবস ও ব্যক্তির স্মরণে গুগল এখন নিয়মিত নানা ডুডল প্রকাশ করছে। এরই অংশ হিসেবে শিল্পীর প্রতি তাদের এই সম্মান। এসএ/  

প্রখ্যাত সুরকার লাকী আখন্দের জন্মদিন আজ

প্রখ্যাত সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক ও গায়ক লাকী আখান্দের ৬৩তম জন্মদিন আজ। ১৯৫৬ সালের ৭ জুন ঢাকার পাতলা খান লেনে জন্মগ্রহণ করেন এই গুণী শিল্পী। মাত্র ৫ বছর বয়সেই তিনি তার বাবার কাছ থেকে সংগীত বিষয়ে হাতেখড়ি নেন। ১৯৬৩ থেকে ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত টেলিভিশন এবং রেডিওতে শিশু শিল্পী হিসেবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন তিনি। মাত্র ১৪ বছর বয়সেই এইচএমভি পাকিস্তানের সুরকার এবং ১৬ বছর বয়সে এইচএমভি ভারতের সংগীত পরিচালক হিসেবে নিজের নাম যুক্ত করেন আখন্দ। ১৯৮৪ সালে সরগমের ব্যানারে লাকি আখন্দের প্রথম একক অ্যালবাম ‘লাকী আখান্দ’ প্রকাশিত হয়। তিনি ব্যান্ড দল হ্যাপী টাচের সদস্য। তার সংগীতায়জনে করা বিখ্যাত গানের মধ্যে রয়েছে ‘এই নীল মনিহার’, ‘আবার এলো যে সন্ধ্যা’ এবং ‘আমায় ডেকো না’। তিনি বাংলাদেশি জাতীয় রেডিও নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ বেতার এর সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৬৯ সালে লাকী আখান্দ পাকিস্তানী আর্ট কাউন্সিল হতে ‘বাংলা আধুনিক গান’ বিভাগে পদক লাভ করেন। লাকী আখন্দ দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুস ক্যান্সারে ভুগছিলেন। ২০১৭ সালের ২১ এপ্রিল তিনি নিজের আর্মানিটোলার বাসাতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে মিটফোর্ড হাসপাতালে নেয়া হয় এবং কর্মরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এসএ/  

সঙ্গীতশিল্পী মিলার বিরুদ্ধে এসিড হামলার অভিযোগে মামলা

সংগীতশিল্পী মিলা। তার সঙ্গে বেশ আগেই বিচ্ছেদ হয়েছে সাবেক স্বামী পাইলট এস এম পারভেজ সানজারির। তবে দুজনার মধ্যে দ্বন্দ্ব এখনও কাটেনি। কিছুদিন আগে সংবাদ সম্মেলনে এসে মিলা বেশ কিছু অভিযোগ তোলেন পারভেজের বিরুদ্ধে। এরই মধ্যে নতুন করে ঘটেছে ভিন্ন ঘটনা। গত ২ জুন রাতে পারভেজের গায়ে এসিড নিক্ষেপ করা হয়েছে। আর এ জন্য মিলার বিরুদ্ধে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় এসিড হামলার অভিযোগে মামলা করেছেন পারভেজের বাবা এস এম নাসির উদ্দিন। মিলা ছাড়াও এ মামলায় তার সহকারী পিটার কিমকেও আসামি করা হয়েছে। উত্তরা পশ্চিম থানায় এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তপন চন্দ্র সাহা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগেও মিলার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেছিলেন পারভেজ সানজারি। ওই মামলাটিও তদন্ত করছে পুলিশ। ওসি বলেন, ‘গত ৪ জুন পারভেজ সানজারির বাবা এস এম নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে এসিড অপরাধ দমন আইনের ৫ (খ) ৭ ধারায় একটি মামলা করেন। এজাহারে তিনি উল্লেখ করেছেন, গত ২ জুন রাত ৮টার দিকে উত্তরায় তিন নম্বর সেক্টর এলাকার ৭/বি সড়কে পারভেজের গায়ে এসিড নিক্ষেপ করা হয়। এ ঘটনায় মিলা ও তার সহকারীকে দায়ী করেছেন তারা। আমরা মামলাটি তদন্ত করে দেখছি।’ ঘটনার পর পারভেজ সানজারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হন। এসিডে সানজারির দুই উরু, পেট, দুই হাত ও পায়ের কিছু অংশ ঝলসে গেছে। সানজারি জানান, গত রোববার রাতে মোটরসাইকেলে পাইলট ক্লাবে খেলা দেখতে যাচ্ছিলেন তিনি। এ সময় দুর্বৃত্তরা তার পথরোধ করে শরীরে দাহ্য পদার্থ ছুড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তদের সঙ্গে তার সাবেক স্ত্রী মিলার সহকারী কিমকে দেখতে পান বলেও অভিযোগ করেন তিনি। সম্প্রতি সংবাদ সম্মেলন করে সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন মিলা। তবে সানজারির অভিযোগ, বিবাহ বিচ্ছেদের পর থেকে মিলা তাকে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। তারা প্রায়ই একে অন্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে আসছেন। উল্লেখ্য, কণ্ঠশিল্পী মিলার সঙ্গে ২০১৭ সালের মে মাসে পারিবারিকভাবে বৈমানিক পারভেজ সানজারির বিয়ে হয়। এরপর ওই বছরের অক্টোবরে মিলা বাদী হয়ে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় নারী নির্যাতন ও যৌতুক দাবির অভিযোগ করে সানজারির বিরুদ্ধে মামলা করেন। মিলার করা সেই মামলা এখনও চলমান। এরইমধ্যে ২০১৮ সালের ২২ মে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। মিলার ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে গত ২১ এপ্রিল সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা দায়ের করেন তার সাবেক স্বামী সানজারি। বর্তমানে মামলাটির তদন্ত চলছে। এসএ/    

আজম খানের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আজ পপ গুরু আজম খানের মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১১ সালের আজকের এই দিনে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান এই পপ সম্রাট। বাংলাদেশে পপগানের সূচনা হয়েছিল তাঁর হাত ধরেই। তাইতো দেশের সবাই একবাক্যে তাকে এ দেশের পপসংগীতের ‘গুরু’ হিসেবে বরণ করে নিয়েছেন। আজম খান পপশিল্পী হিসেবেই নন, স্বাধীনতাযুদ্ধের অন্যতম একজন বীরযোদ্ধাও ছিলেন। তিনি স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে ১৯৭২ সালে লাকী আখন্দ ও হ্যাপি আখন্দ দুই ভাইকে নিয়ে ‘উচ্চারণ’ নামের একটি গানের দল গড়েন। এর মধ্য দিয়েই পপসংগীতে আজম খানের যাত্রা শুরু। সে বছরই বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত ‘এত সুন্দর দুনিয়ায় কিছুই রবে নারে’ ও ‘চার কালেমা সাক্ষী দেবে’- এই গান দুটি তাকে জনপ্রিয় করে তোলে। এরপর ‘ওরে সালেকা ওরে মালেকা’, ‘রেল লাইনের ঐ বস্তিতে’, ‘আসি আসি বলে তুমি আর এলে না’, ‘আলাল ও দুলাল’, ‘হারিয়ে গেছে খুঁজে পাব না’- এ গানগুলো গেয়ে শ্রোতাদের তিনি মাতিয়ে তোলেন। উল্লেখ্য, ১৯৫০ সালের ২৮ শে ফেব্রুয়ারি ঢাকার আজিমপুর কলোনির ১০ নম্বর সরকারি কোয়ার্টারে জন্ম হয় আজম খানের। ১৯৮১ সালে ১৪ জানুয়ারি ৩১ বছর বয়সী আজম খানের সঙ্গে বিয়ে হয় সাহেদা বেগমের। আজম খান দুই মেয়ে এবং এক ছেলের জনক। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬১ বছর। তিনি ক্যানসারের সঙ্গে এক বছরেরও বেশি সময় লড়েছিলেন। সে যুদ্ধে পরাজয় মেনে নিয়ে যাওয়ার আগে তিনি দুটি জিনিস রেখে গেছেন—স্বাধীন দেশ ও মানচিত্র আর অন্যটি বাংলা রক গান। রাজধানীর কমলাপুর এলাকায় কবি জসীমউদ্‌দীন রোডে, মতিঝিলের ব্যাংক কলোনি মাঠে কিংবা স্টেডিয়ামের সুইমিংপুলে যারা আজম খানকে দেখেছেন, তাঁরা জানেন, বিপুল জনপ্রিয়তা সত্ত্বেও ব্যক্তিজীবনে শিল্পী আজম খান কতটা সহজ-সরল ছিলেন। খোলা মনের মানুষ ছিলেন তিনি। সে প্রমাণ সহশিল্পী বা সংগীতজগতের মানুষেরাও প্রমাণ পেয়েছেন। এসএ/    

সংগীতশিল্পী মিলার সাবেক স্বামী সানজারিকে এসিড নিক্ষেপ

সংগীতশিল্পী মিলার সাবেক স্বামী পাইলট পারভেজ সানজারীর শরীরে এসিড নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। গত রোববার রাত ৮টার দিকে তার উত্তরার বাসা থেকে কিছুটা দূরে কে বা কারা তার গায়ে এসিড নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় সানজারির হাতের কিছুটা অংশ পুড়ে গেছে। এরপর তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা দেওয়া হয়। বিভিন্ন গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর উত্তরার বাসা থেকে কিছুটা দূরে সানজারীর পথরোধ করা হয়। এ সময় মোটরসাইকেল যোগে আসা ব্যক্তি তার শরীরে এসিড নিক্ষেপ করে। এতে তার দুহাতের কিছু অংশ পুড়ে যায়। পরে তার ভাই ও স্বজনদের মধ্যে কয়েকজন তাকে নিয়ে ঢামেকে বার্ন ইউনিটে ভর্তি করান। বিষয়টি গণমাধ্যমকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়াও নিশ্চিত করেছেন। এসএ/

ঈদে ন্যান্সির উপহার ‘বৃষ্টি ভেজা রাত’

ঈদকে সামনে রেখে কণ্ঠশিল্পীরা প্রকাশ করছেন নতুন নতুন গানের ভিডিও। সেই ধারাবাহিকতায় বসে নেই কণ্ঠশিল্পী ন্যান্সিও। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নতুন গান প্রকাশ করলেন তিনি। গানের শিরোনাম ‘বৃষ্টি ভেজা রাত’।  ‘বৃষ্টি ভেজা রাত/সাহস করে ভালোবেসে আজ ধরতেই হবে হাত … হঠাৎ চোখে ইশায়ার ফুল যেনো ফুটেছে- এমন কথার গানটি লিখেছেন প্রদীপ সাহা। অভি আকাশের সুরে এর সঙ্গীতায়োজন করেছেন মুশফিক লিটু। গানটির গল্পনির্ভর ভিডিও নির্মাণ করেছেন সেউল বাবু। এতে মডেল হয়েছেন প্রীতম খান ও জান্নাত। দেখা যাবে ন্যান্সিকেও। গানটি প্রসঙ্গে ন্যান্সি বলেন, ‘গানের কথা, সুর ও সঙ্গীত এককথায় চমৎকার। ব্যক্তিগতভাবে গানটা আমার ভালো লেগেছে। ভিডিও নির্মাণও সুন্দর হয়েছে। আশা করছি দর্শক-শ্রোতাদেরও ভালো লাগবে।’ ‘বৃষ্টি ভেজা রাত’ প্রকাশ পেয়েছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘মা মিউজিক স্টেশন’র ইউটিউব চ্যানেলে। এসএ/  

বেলাল খানের গানে মডেল নিলয় ও হিমি

এবার ঈদকে সামনে রেখে প্রকাশ পাচ্ছে ‘কেনো আজ’ শিরোনামে একটি গান। গীতিকবি জামাল হোসেনের কথায় গানটি গেয়েছেন কণ্ঠশিল্পী বেলাল খান। ‘কেনো আজ’ গানটির সূর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন আহমেদ হুমায়ূন। গানটির কথার সঙ্গে মিল রেখে নির্মিত হয়েছে নান্দনিক একটি গল্প নির্ভর ভিডিও। যে ভিডিওতে হাজির হয়েছেন টিভি পর্দার দুই পরিচিত মুখ নিলয় আলমগীর ও হিমি। সঙ্গে থাকছেন শিল্পী বেলাল খানও। ভিডিওটি নির্দেশনা দিয়েছেন পরিচালক মাহিন আওলাদ। যিনি ইতোমধ্যে মায়া বাড়াইছে, মনের দুঃখ, পিছুটান, গানগুলোর নান্দনিক ভিডিও নির্মাণ করে পরিচিত হয়েছেন। চমৎকার সেট বানিয়ে গানটির শুটিং হরা হয়েছে এফডিসিতে। গানটি প্রসঙ্গে গীতিকবি জামাল হোসেন বলেন, ‘সঙ্গীত চর্চা আমার দীর্ঘদিন থেকে। তবে গান লেখার চর্চা চার বছর ধরে। আর কবিতা আমার নিত্য দিনের সঙ্গী। এই কবিতাই গান হয়ে যায়। ‘কেনো আজ’ একটি রোমন্টিক গান। গানটির পিছনে সবাই খুব যত্ন নিয়ে কাজ করেছেন। ফলে ভালো একটি কাজ দাঁড়িয়েছে। আশা করি শ্রোতাদের গানটি ভালো লাগবে।’ এ প্রসঙ্গে গায়ক বেলাল খান বলেন, ‘গীতিকবি জামাল ভাই দারুন একটি গান লিখেছেন। কথাগুলো আমার আমার কাছে ভালো লেগেছে। আর আহমেদ হুমায়ূন গানটির কথায় দারুন সুর ও মিউজিক বসিয়েছেন। গাইতে বেশ ভালো লেগেছে। আর মিউজিক ভিডিওতে গানটি শোনার পাশাশি শ্রোতারা সিনেমার একটি ফ্লেবার পাবেন। কারণ মাহিন ভাই যত্ন করে ভিডিওটি বানিয়েছেন।’ গানটির ভিডিও নির্মাতা মাহিন বলেন, সময়ের চাহিদায় এখন গানের সঙ্গে ভিডিও নির্মাণ করা হয়। গানের কথার সঙ্গে সে ভিডিওর গল্পের মিল না থাকলে দর্শকরা গান থেকেও মুখ ফিরিয়ে নেয়। আমার নির্মাণে সব সময় গল্প বলার চেষ্টা করি। গানেও তার ব্যতিক্রম হবেনা।’ গানটি দর্শক-শ্রোতাদের ঈদের আনন্দ আরও বাড়িয়ে দেবে বলে মন্তব্য করেন মডেল নিলয় আলমগীর ও হিমি। মঙ্গলবার গানটি প্রযোজনা সংস্থা রঙ্গন মিউজিক থেকে প্রকাশিত হবে। এসি  

কুমার বিশ্বজিৎ-এর জন্মদিন আজ

‘তোরে পুতুলের মত করে সাজিয়ে’, ‘তুমি রোজ বিকেলে’ কিংবা ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’ এর মতো গান দিয়ে এখনও শ্রোতাদের হৃদয়ে চির সবুজ হয়ে আছেন কুমার বিশ্বজিৎ। আজ ১ জুন, জনপ্রিয় এই সঙ্গীতশিল্পীর জন্মদিন। একুশে টেলিভিশনের পক্ষ থেকে শিল্পীর প্রতি অনেক অনেক শুভেচ্ছা। ১৯৬৩ সালের আজকের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন কুমার বিশ্বজিৎ। তার শৈশব কেটেছে চট্টগ্রাম জেলায়। বাংলা আধুনিক কিংবা চলচ্চিত্রের গানে দীর্ঘ চার দশক ধরে কণ্ঠ দিচ্ছেন কুমার বিশ্বজিৎ। তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয় করেছেন। এখনও নিয়মিত গান গেয়ে যাচ্ছেন তিনি। গানের প্রতি ছিল তার অগাধ টান। হিন্দু ধর্মালম্বী পরিবারে বেড়ে ওঠায় কীর্তন ও শ্যামা সংগীত শোনার সুযোগ ছিল। তার বিশ্ব সঙ্গীতের উৎস ছিল রেডিও। এভাবে গান শুনতে শুনতে একসময় শেখার প্রতিও আগ্রহ জন্মে কুমার বিশ্বজিতের। সঙ্গীতের ব্যাকরণ শিখতে তেজেন বাবু নামে এক সঙ্গীতজ্ঞের শরণাপন্ন হন তিনি। সেই থেকে তার সংগীতের পথচলা শুরু। ধ্রুপদী, আধুনিক সমসাময়িক, লোকসঙ্গীত ও জীবনমুখী গান নিয়ে নানান পরীক্ষানিরীক্ষা চালিয়েছেন কুমার বিশ্বজিৎ। ‘তোরে পুতুলের মতো করে সাজিয়ে’ ‘তুমি রোজ বিকেলে’, ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘শিকারি’, ‘ও ডাক্তার’, ‘ইতিহাস’, ‘জ্বালাইয়া প্রেমের বাত্তি’, ‘অন্তর জ্বলে’, ‘একটা চাঁদ ছাড়া রাত’, ‘প্রেমের মানুষ’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় গান রয়েছে কুমার বিশ্বজিতের। নিজের জন্মদিন প্রসঙ্গে বিশ্বজিৎ জানান, এবারই প্রথম তার জন্মদিন উপলক্ষে নিবিড় টাকা জমিয়ে কেক কিনে এনে তা কেটে গতকাল দিবাগত রাত ১২টায় জন্মদিনের শুভারম্ভ করেন। এসএ/    

বিটিভিতে ঈদের সঙ্গীতানুষ্ঠানে বাপ্পা-কোনাল

আসছে ঈদে বিটিভিতে দেখা যাবে সঙ্গীতানুষ্ঠান ‘একমুঠো রোদ্দুর’। যেখানে গান গাইবেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী বাপ্পা মজুমদার ও সোমনুর মনির কোনাল। সম্প্রতি বিটিভির নিজস্ব স্টুডিওতে এর রেকর্ডিং শেষ হয়েছে। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেছেন মডেল অভিনেত্রী শামীমা তুষ্টি। প্রযোজনা করেছেন মাহবুবা ফেরদৌস। এতে বাপ্পার কণ্ঠে শোনা যাবে ‘দিন বারি যাই’, ‘চোখেরই জলে’, ‘পরি’ শিরোনামের গান এবং কোনাল গেয়েছেন ‘স্বপ্ন মেলেছে ডানা’, ‘জাদু’, ‘মনে করো তুমি আমি’ গানগুলো। এ ছাড়া দু’জনের কণ্ঠে শোনা যাবে ‘ঘুম জড়ানো দু’চোখ মেলে’ গানটি। অনুষ্ঠানটি সম্পর্কে বাপ্পা মজুমদার বলেন, ‘বেশ বিরতির পর কোনালের সঙ্গে ‘একমুঠো রোদ্দুর’ অনুষ্ঠানে গান করেছি। আশা করছি, নতুন আঙ্গিকে সাজানো অনুষ্ঠানটি শ্রোতাদের ভালো লাগবে। অনুষ্ঠানটি ঈদের দিন দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে বিটিভিতে প্রচার হবে। এসএ/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি